সর্বশেষ খবর

   সিলেটে মিডল্যান্ড ব্যাংক    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি ধোঁকাবাজি: আরসা    মাংস এবং উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত পানীয় ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়    ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?    প্রকাশ্যে চুমু, ‘দেশি গার্ল’-এর বিদেশি রোম্যান্স    নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি তিন খানের    ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!    আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব    নেতাকর্মীদের জেলে রেখে নির্বাচন হবে না: ফখরুল    সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ভিত্তিতেই গ্রেফতার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হচ্ছে না কাল    সিলেটের দক্ষিন সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৪    সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার    মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজন গ্রেফতার    যুবলীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সমাবেশে অর্থমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ    গোয়াইনঘাট থানার আসামী উপশহরে গ্রেফতার    হবিগঞ্জে জমির আইল কাটা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০    সিলেট জেলা বিএনপির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত    কোম্পানীগঞ্জে পরীক্ষার্থীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন॥    দক্ষিণ সুরমায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার


খবর - তথ্য প্রযুক্তি

ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?

পনি কি ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করেন? তাহলে নতুন বছরে এই সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপে আপনার জন্য থাকছে নয়া ফিচার।

ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ–এর পর এবার ইনস্টাগ্রামেও দেখা যাবে আপনি অনলাইন রয়েছেন কিনা। কিংবা আপনার ফলোয়াররা এটাও দেখতে পাবেন যে আপনি শেষ কখন অনলাইন হয়েছিলেন। এর আগে হোয়াটসঅ্যাপ এবং ফেসবুক মেসেঞ্জারে ব্যবহারকারীরা এই ফিচারটি পেতেন।  

আইওএস এবং অ্যান্ড্রয়েড দু’ধরনের ব্যবহারকারীরাই এই সুযোগ পেতে চলেছেন। কিন্তু কীভাবে পাবেন এই ফিচারটি? এই ফিচারটি পেতে আপনাকে প্লে–স্টোরে গিয়ে নিজের ইনস্টাগ্রামের অ্যাপ্লিকেশনটি আপডেট করাতে হবে। তারপরই দেখতে একজন ব্যক্তির ডাইরেক্ট মেসেজ বক্সের পাশে লেখা ফুটে উঠবে ‘Active now’ কিংবা ‘Active 3h বিস্তারিত

স্মার্ট কার্ড পেলেন অর্থমন্ত্রী ও পরিবারের সদস্যরা

জাতীয় পরিচয় পত্রের পরিবর্তে বিশেষ প্রযুক্তির মাধ্যমে তৈরী স্মার্ট কার্ড পেয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও পরিবারের সদস্যরা।

রোববার সকালে নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে অর্থমন্ত্রী ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের স্মাট কার্ড প্রদান করা হয়।এসময় স্মার্টকার্ড গ্রহণ করেন অর্থমন্ত্রীর ভাই এএসএ মুঈজ সুজন, জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ড. একে আব্দুল মোমেন, জাতীয় অধ্যাপক ডা. শাহেলা খাতুন, শিপা হাফিজা, ভাইস চ্যান্সেলর আতহুল হাই শিবলী, নাজিয়া খাতুন, জিও আজিজ সেলিম, শামা মুগদী,ড. একে আব্দুল মুবিন, সাব্বির মুবিন, সামিয়া মুবিন, সাহেদ মুহিত, মন্ত্রীর স্ত্রী সাবিয়া মুহিত, সেলিনা মোমেন।স্মার্টকার্ড বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক, এডিসি রেভিনিউ সৈয়দ মোহাম্মদ আমিনুর রহমান, নির্বাচন কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান, কাউন্সিলর ফয়জুল আমেন বাকের, আরডিসি আরিফুর রহমান, জুবের খান, ১৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাবেদ সিরাজ, এসএম নুনু মিয়া, কিশোর ভট্টাচার্য জনি, রাহাত তফাদার প্রমুখ। বিস্তারিত

রোবট তৈরি করা শিখল শিশুরা

বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের আয়োজনে শনিবার, রাজধানীর সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের কনফারেন্স রুমে বেলা ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত শিশুদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হলো ‘নিজের হাতে রোবট বানাই-প্রথম পর্ব’ শীর্ষক কর্মশালা।

ঢাকাতে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হয় শিশুদের নিয়ে বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের এই আয়োজন। পরবর্তীতে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।
আয়োজনটিতে শিশুদের ২টি গ্রুপে বিভক্ত করে কর্মশালা পরিচালনা করা হয়। ১ম থেকে ৪র্থ শ্রেণী পর্যন্ত একটি গ্রুপ এবং ৫ম থেকে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত আরেকটি গ্রুপে বিভক্ত করে ওয়ার্কশপটিতে শিশুদের নিয়ে আয়োজনস্থলেই রোবট বানানোর ব্যবস্থা করা হয়। ১০ জন অভিজ্ঞ মেনটর এই কর্মশালায় শিশুদের রোবট বানানোর জন্য যাবতীয় সহযোগিতা করেন। কর্মশালায় ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৪০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। শিশুরা তাদের মেনটরের সহযোগিতায় আয়জনস্থলেই লাইট ফলোয়িং রোবট, ড্রয়িং রোবট, ওয়াকিং রোবট নিজেরাই তৈরি করে।


বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা আরিফুল হাসান অপু বলেন, আমাদের দেশের শিশুদের মেধার বিকাশ এবং উদ্ভাবনী চিন্তার ধারাবাহিকতায় আনার জন্য আমরা এমন উদ্যোগ নিয়েছি। প্রাথমিকভাবে ঢাকাতে শুরু করলেও, আমরা সমগ্র দেশব্যাপী শিশুদের নিয়ে এমন আয়োজন করতে চাই।
কর্মশালায় উপস্থিত বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান লাফিফা জামাল বলেন, আমাদের দেশের শিশুদের মেধার বিকাশের জন্য এমন উদ্যোগ প্রশংসনীয়। শিশুদের জন্য এমন সুযোগ তৈরি করলে, আমাদের দেশের শিশুরা অনেক ভালো কিছু করবে বলেই আশা করি। বিজ্ঞান নিয়ে সারা বিশ্বে এখন প্রতিনিয়ত গবেষণা, কার্যক্রম চলছে। আমাদের দেশের শিশুদের নিয়ে বিজ্ঞানভিত্তিক কার্যক্রম আরো বেশি করা উচিৎ, যার ফলে শিশুরা ছোট থেকেই বিজ্ঞানের প্রতি তাদের আগ্রহ এবং উদ্ভাবনী বিকাশ ঘটাবে বলেই আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।


বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের এই আয়োজনে সহযোগিতায় ছিল রেভারি, ইনোভেটিভ লিমিটেড, রোবটিক শপ এবং বাইল্যাব।
বিস্তারিত

মাঠে-ঘাটে প্রোগ্রামিং

কোথাও শহীদ মিনার, কোথাও চায়ের দোকানের সামনে, কোথাও মাঠে, আবার কোথাও বাস স্টপে। কোথাও বেশ কয়েকজন, কোথাও হয়তো ২-৩ জন। কিন্তু সব জায়গায় একটি সাধারণ মিল। সবাই ল্যাপটপে একটা কিছু করছে।

১২ জানুয়ারি, দেশের ১৫টি স্থানে ‘এক ঘণ্টার প্রোগ্রামিং’ এর আয়োজনে এই দৃশ্য দেখা গেছে। বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের (বিডিওএসএন) উদ্যোগে এবং হিমু পরিবহনের সহযোগিতায় শিশু-কিশোরদের কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ে আগ্রহী ও উৎসাহী করার জন্য এ আয়োজন করা হয়।
বিশ্বব্যাপী যেকোনো বয়সিকে কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ে হাতেখড়ি দেওয়ার জন্য এক ঘণ্টার প্রোগ্রামিং শেখার এই আয়োজন ‘আওয়ার অব কোড’ নামে পরিচিত। চার বছর ধরে বাংলাদেশেও এটি পালিত হচ্ছে। এ বছর ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত মোট ১০০টি আয়োজন অনুষ্ঠিত হবে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন। 
বিশ্ব কম্পিউটার শিক্ষা সপ্তাহকে কেন্দ্র করে বিডিওএসএনের দুই মাসব্যাপী কর্মকাণ্ডের অংশ হিসেবে এই আওয়ার অব কোডিং-এর আয়োজন। আয়োজনে গোল্ড স্পন্সর এডিএন গ্রুপ, ব্রোঞ্চ স্পন্সর শিওরক্যাশ ও দোহাটেক নিউ মিডিয়া, ল্যাপটপ পার্টনার ডেল এবং পার্টনার ইন্টারনেট সোসাইটি ঢাকা চ্যাপ্টার।
এই আয়োজনের আওতায় সারাদেশে আওয়ার অব কোড, প্রোগ্রামিং আড্ডা, হ্যালো ওয়ার্ল্ড ক্যাম্প, গার্লস প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা ইত্যাদির আয়োজন করা হচ্ছে। বিস্তারিত

ছুটির দিনে জমজমাট স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা

বিশেষ মূল্যছাড় আর উপহারে ছুটির দিনে রাজধানীতে জমে উঠেছে ‘টেকশহর ডটকম স্মার্টফোন অ্যান্ড ট্যাব এক্সপো ২০১৮’। তিনদিনব্যাপি এই মেলার দ্বিতীয়দিন চলছে আজ।
 শুক্রবার সকাল থেকেই দর্শনার্থীদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠে ঢাকার আগারগাঁওয়ের বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) দেশের প্রযুক্তিখাতের পণ্য প্রদর্শনীর সবচেয়ে বড় এই আয়োজন। ছুটির দিন থাকায় বড়দের পাশাপাশি ছোটদের ও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহন ছিল দেখার মতো। বিক্রিও হচ্ছে বেশ। মেলায় দেশি বিদেশি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্যামসাং, টেকনো, শাওমি, উই, হুয়াওয়ে, এলজি স্মার্টফোন, অপ্পো, সিম্ফনি, লাভা, নকিয়া, লেনোভো, আসুস জেনফোন, উইনম্যাক্স, মাইক্রোম্যাক্স, ডিসিএল, ডিটেল, এডাটা, কিকসা ডটকম, আজকের ডিল, মেঘনা ব্যাংক ট্যাপ এন পে, কুইক ফিক্স, বিজয় ডিজিটালসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহন করেছে। মেলা উপলক্ষে ইতোমধ্যে ব্র্যান্ডগুলো নানা ধরনের ছাড়-উপহার দিচ্ছে। মেলায় স্যামসাং মোবাইলে রয়েছে নির্দিষ্ট কিছু মডেলের স্মার্টফোনের উপর নির্দিষ্ট পরিমান মূলছাড়। এছাড়াও গ্যালাক্সি এ৮ প্লাস ফোন মেলার প্রথম দিন থেকেই এর প্রি অর্ডার করা যাচ্ছে। রয়েছে নানা ধরনের উপহার চাবির রিং, ট্র্যাভেল ব্যাগ, সুয়েটার, জ্যাকেট, লেদার বক্স, ভিয়ারগিয়ারসহ আরো অনেক কিছু। টেকনো মোবাইল টেকশহর স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলায় ফোনের মূল্যের উপর ১০ শতাংশ মূল্যছাড় দিচ্ছে। এছাড়াও প্রতিটি ফোনের জন্য রয়েছে আলাদা আলাদা উপহার। উপহার হিসেবে রয়েছে ব্যাকপ্যাক, টি-শার্ট, ক্যাপ, সেলফি স্টিক ও চাবির রিং। মেলাতে শাওমি প্রতিটি হ্যান্ড সেটে রয়েছে ফ্রি উইন্টার জ্যাকেট। এছাড়া প্রতিদিন র‌্যাফেল ড্র রয়েছে শাওমি স্টলে। উই মোবাইল স্টলে মিলছে একটি কিনলে একটি ফ্রি অফার। এছাড়া রয়েছে সর্বোচ্চ ৩০% পর্যন্ত মূল্যছাড়। এছাড়া রয়েছে ব্লুটুথ, ব্যাক কভার, টি-শার্ট, ব্যাকপ্যাক। হুয়াওয়ে টেকনোলজিস বাংলাদেশ স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলায় সর্বোচ্চ ২০% মূল্যছাড় দিচ্ছে। এছাড়া রয়েছে ট্যাব ও ফোনের জন্য আলাদা আলাদা উপহার। মেলায় এলজি মোবাইলের ছয়টি মডেলের স্মার্টফোন রয়েছে। যেগুলো ৮ হাজার টাকা থেকে শুরু হয়ে ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস। উপহার হিসেবে রয়েছে ব্যাগপ্যাক, জ্যাকেট, ক্যাপ, ব্লুটুথ স্পিকার। এছাড়া ক্রেতাদের পিটিসি ব্যাংক চেক দিয়ে কিস্তিতে ফোন কেনার সুযোগও রয়েছে। অপ্পো ফোন কিনলেই উপহার হিসেবে যাওয়া যাবে গিফট বক্স। গিফট বক্সে রয়েছে সেলফি স্টিক, হেড ফোন, ওয়াটার পট, কি রিং। নির্দিষ্ট কিছু ফোনের উপর রয়েছে মূল্য ছাড়। এছাড়া মেলায় অপ্পো এফ৫ ৬ জিবি রেড ফোন পাওয়া যাচ্ছে। দেশের নম্বর ওয়ান ব্র্যান্ড হিসেবে স্বীকৃত সিম্ফনি স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলায় ৫ শতাংশ ক্যাশব্যাক অফার দিচ্ছে। রয়েছে নির্দিষ্ট বেশ কিছু মডেলের স্মার্টফোনের উপর ৫% ডিসকাউন্ট। এছাড়া উপহার হিসেবে রয়েছে টি-শার্ট, সেলফি স্টিক, মোবাইল রিং, চাবির রিং, ব্লুথ স্পিকার, পাওয়ার ব্যাংক ও ব্যাকপ্যাক। নকিয়া মোবাইলে ৫০০ টাকা ছাড়া রয়েছে। এছাড়া লাভা, লেনোভো, ডিটেল, ডিসিএল, উইনম্যাক্স, মাইক্রোম্যাক্সের স্মার্টফোন মেলায় পাওয়া যাচ্ছে। স্মার্টফোন ছাড়াও মেলায় স্মার্টফোনের আনুষঙ্গিক গ্যাজেট বিক্রি করবে এডাটা, কিকশা ডটকম, আজকের ডিলসহ আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। রয়েছে মেঘনা ব্যাংক ট্যাপ এন পে, কুইক ফিক্স এবং অল্পদামে ট্যাবলেট নিয়ে এসেছে বিজয় ডিজিটালের স্টল। স্মার্টফোন অথবা ট্যাবলেট, যে ডিভাইসই হোক না কেন সবাই সেটি কোনো কারণে নষ্ট হয়ে গেলে কোথায় নির্ভরযোগ্য ভাবে সেটি ঠিক করা যাবে তা নিয়ে চিন্তিত থাকেন। সে চিন্তা দূর করতে রিপেয়ার সেবা নিয়ে স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপো ২০১৮ তে হাজির হয়েছে কুইক ফিক্স। সেবাটির মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা স্যামসাং, হুয়াওয়ে, অপ্পো, ভিভো, শাওমি, অ্যাপল ও অন্যান্য ব্র্যান্ডের ডিভাইসের নানাবিধ সমস্যা রিপেয়ার করতে পারবেন। মেলা উপলক্ষে কুইক ফিক্সের স্টলে বুকিং দিয়ে প্রথম রিপেয়ারে পাওয়া যাবে ১০ শতাংশ ডিসকাউন্ট। সেবাটি নেয়ার জন্য কুইক ফিক্সের ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। স্মার্টফোন মেলায় গেইম তৈরির নির্দেশনা পেলেন তরুণরানতুন অনেক তরুণ-তরুণী গেইম ও অ্যাপ তৈরি করতে চান। কিন্তু জানেন না কিভাবে শুরু করবেন? এমনি এক ঝাঁক তরুণ-তরুনীদের নিয়ে টেকশহর ডটকম  স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপোর প্রথম দিনে অনুষ্ঠিত হয় ‘মোবাইল অ্যাপ ও গেইম : সম্ভবনা ও করণীয়’ বিষয়ক সেমিনার। এডুমেকার ও টেকশহরের আয়োজনে এই সেমিনারটিতে কিনোট উপস্থাপন করেন বিশ্বমাতানো গেইম ট্যাপ ট্যাপ অ্যান্টসের নির্মাতা এবং রাইজআপ ল্যাবসের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও এরশাদুল হক। সেমিনারটি মডারেটও করেন তিনি। সেমিনারে মাইন্ডফিশার গেইমসের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও জামিল রশিদ বলেন, দেশীয় খাতে গেইম বেশ কম, তাই যদি দেশীয় বাজার লক্ষ্য করে ভালো গেইম তৈরি করা যায় তাহলে অনেক বেশি সাড়া পাওয়া যাবে। নতুনদের গেইম তৈরি করতে হলে কোয়ালিটির দিকে নজর দিতে হবে। তিনি আরো বলেন, বড় ধরনের গেইম তৈরির জন্য অনেক বিনিয়োগের প্রয়োজন। তাই গেইমগুলো কেমন সেগুলো অনেকাংশ নির্ভর করে বিনিয়োগের উপর। তবে নতুনদের বিনিয়োগ কম থাকে, সেক্ষেত্রে ছোট ছোট কিছু গেইম তৈরি করে শুরু করা উচিত। তারপর আস্তে আস্তে বড় প্রজেক্টের গেইম তৈরি করা উচিত। নতুন কেউ যদি মোবাইল অ্যাপ তৈরি করতে চায় তাহলে কোন বিষয়ে নজর দিতে হবে, এমন প্রশ্নের জবাবে অডাসিটি আইটি সলিউশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও সিদ্দিক আবু বাক্কার বলেন, নতুন ডেভেলপাররা যদি দেশীয় মার্কেট লক্ষ্য করে অ্যাপ তৈরি করতে চান তাহলে প্রথমে কোন একটি সমস্যার সমাধান করতে হবে। যদি অ্যাপ ব্যবহারকারীদের উপকার হয় তাহলে তা দ্রুত জনপ্রিয়তা পাবে এবং লাভবান হওয়া যাবে। নতুনরা কিভাবে স্কিল ডেভেলপ করবেন, এই সম্পর্কে আইটিআইডব্লিউ এর প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও তানভীর আদনান বলেন, গেইম খাতে কাজ করতে হলে অবশ্যই তাদের আগ্রহী হতে হবে বিষয়টি নিয়ে। গেইম নিয়ে বিশ্বের অনেক দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ বছরের কোর্স রয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে তেমন নেই। তবে কিছু প্রতিষ্ঠান প্রশিক্ষণ দিলেও তা পর্যাপ্ত নয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে সহজ উপায় হল ইন্টারনেট থেকে শেখা।ইউটিউবে অনেক ভিডিও টিউটোরিয়াল রয়েছে গেইম ডেভেলপমেন্ট নিয়ে। এরশাদুল হক বলনে, গেইম তৈরি শিখতে হলে ধৈর্য ধরে কাজ করতে হবে। এতে কোন শর্টকাট উপায় নেই। তাই যদি কেউ ধৈর্য্য করে কাজ করতে চায় তাহলে সফলতা আসবেই। এছাড়া ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক রিয়াদ হোসেন সেমিনারে মোবাইল গেইম ডেভেলপমেন্ট ও গেইম অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্টে বাংলাদেশের সম্ভাবনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। দেশে স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট ক¤িপউটার নিয়ে এটিই সবচেয়ে বড় আয়োজন। অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান এক্সপো মেকারের স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট নিয়ে এটি নবম আয়োজন। চলবে আগামীকাল ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত। এক্সপো মেকারের কৌশলগত পরিকল্পনাকারী মুহম্মদ খান জানান, প্রদর্শনী উপলক্ষে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বিশেষ ছাড় ও উপহার দিচ্ছে। দর্শকরা প্রযুক্তির আধুনিক সব স্মার্ট ডিভাইস যাচাই বাছাই করে দেখতে ও কিনতে পারছেন। রয়েছে অন্যান্য অনেক আয়োজন। এবারের মেলার টাইটেল স্পন্সর দেশের আইসিটি ও টেলিকম বিষয়ক শীর্ষস্থানীয় নিউজ পোর্টাল টেকশহরডটকম। প্ল্যাটিনাম স্পন্সর স্যামসাং ও টেকনো মোবাইল। গোল্ড স্পন্সর শাওমি ও উই। সিলভার স্পন্সর হুয়াওয়ে, এলজি স্মার্ট ফোন, অপ্পো ও সিম্ফনি। পার্টনার হিসেবে রয়েছে এডুমেকার। মেলার টিকিট বুথ স্পন্সর কিকসা ডটকম। মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে। 

বিস্তারিত

ফেসবুকে রিমনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

বর্তমান সময়ে মোবাইল ছিনতাই, মলম পার্টির খপ্পর, পকেটমার, বেকারত্ব, মাদকের ছোবল, সড়ক দুর্ঘটনা, খাদ্যে ভেজাল, যাত্রাপথে ব্যাগ চুরিসহ নানা ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটে চলেছে আমাদের আশপাশে। কিন্তু বিষয়গুলো নিয়ে আমাদের আচরণ এমন যে, এসব নিয়ে ভাবার সময় যেন আমাদের নেই। আমরা এগুলোকে স্বাভাবিক হিসেবেই ধরে নিচ্ছি! কিন্তু আমার আপনার মতো সবাই যে স্রোতে গা ভাসান না, তার প্রমাণ সাঈদ রিমন।

বরগুনার ছেলে সাঈদ রিমন জীবন সংগ্রামের পাশাপাশি লড়ে যাচ্ছেন সমাজের অনিয়ম অসঙ্গতির বিরুদ্ধে। এক্ষেত্রে তিনি বেছে নিয়েছেন বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক। তার ব্যবহৃত ফেসবুক আইডিতে (https://www.facebook.com/rimon.sayeed) প্রবেশ করলে দেখা যায় সচেতনতামূলক শত শত স্থিরচিত্র।
২০১৪ সালে চোখের সামনে কয়েকবার বাসের জানালা দিয়ে মোবাইল ছিনতাই দেখে রিমন ভাবতে থাকেন এর প্রতিকার এবং নিজের করণীয় বিষয়ে। একসময় প্রতিকারের পথও খুঁজে পান তিনি। শুরু করেন বিভিন্ন সচেতনতামূলক স্থিরচিত্রের মাধ্যমে ফেসবুকে প্রচারণা। তার ফেসবুক ওয়ালে (প্রোফাইল) একে একে ভেসে উঠতে থাকে সমাজ সচেতনতামূলক বিভিন্ন স্থিরচিত্র কিংবা ভিডিও। স্থিরচিত্রগুলোতে তাকে দেখা যায় মোবাইল ছিনতাইকারী কিংবা মলম পার্টির ভূমিকায়, কখনো কখনো রিকশাচালক, কখনো আবার হতাশাগ্রস্ত বেকার যুবক কিংবা মাদকাসক্তের ভূমিকায় এবং সঙ্গে সচেতনতামূলক বক্তব্য।
 প্রথম দিকে স্থিরচিত্রগুলো নিয়ে একটু হেনস্তার শিকার হলেও এখন বেশ সারা পাচ্ছেন এই উদ্যমী যুবক। যার প্রমাণ পাওয়া যায় নারায়ণগঞ্জ, বরগুনা, নাটোর এবং মুন্সিগঞ্জ পুলিশের বিভিন্ন সময়ের জনসচেতনতামূলক বিলবোর্ড কিংবা লিফলেটগুলোতে। যেখানে রিমনের ফেসবুকে ব্যবহৃত  সচেতনতামূলক একক স্থিরচিত্রগুলো চোখে পড়ে। সমাজের কল্যাণে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাওয়া এই তরুণকে অনেক সময় বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়, যখন দেখেন তার ব্যবহৃত ছবি অন্য কেউ প্রোফাইল কিংবা ফেসবুক পেজে ব্যবহার করছে নিজেদের মতো ক্যাপশন দিয়ে। তাতে বিভিন্ন জন অশ্লীল কমেন্ট করছে। কিন্তু অনিয়ম অসঙ্গতির কথা সবাইকে জানিয়ে সচেতন করে তোলা তার কাছে নেশার মতো। ফলে রিমনের চলার পথে কোনো বাধাই যেন বড় হয়ে উঠতে পারে না। অকৃত্রিম ভালোবাসা এবং নিরলস পরিশ্রমের মাধ্যমে সে এগিয়ে যাচ্ছে স্বচ্ছ সমাজ তথা রাষ্ট্র গঠনের প্রত্যয়ে। এজন্য আমার আপনার কাছে রিমনের চাওয়া খুব অল্প- সামান্য সহযোগিতা।   বিস্তারিত

টাইম মেশিন ক্যামেরা!

বছরের শুরুতেই কনজুমার ইলেকট্রনিক্স শো বা সিইএস প্রদর্শনীর মাধ্যমে ধারণা পাওয়া যায়, কোন কোন প্রযুক্তিপণ্যগুলো বছর মাতাবে। লাস ভেগাসে চলছে ৪ দিনব্যাপী নতুন প্রযুক্তি পণ্যের বিশ্বের সবচেয়ে বড় আসর সিইএস ২০১৮।

পরিধানযোগ্য ভিডিও ক্যামেরার ক্ষেত্রে চলতি বছরে সিইএস মেলায় অন্যতম চমক হচ্ছে, রোডার ক্যামেরা। এটিকে টাইম মেশিন ক্যামেরা বলা হচ্ছে। নেদারল্যান্ডের একটি প্রতিষ্ঠান প্রদর্শন করেছে অভিনব এ ক্যামেরা।
রোডার ক্যামেরায় ফুটেজ ধারণের আগের মুহূর্তের ফুটেজ পাওয়া যায়। অর্থাৎ টাইম মেশিনে যেমন পেছনে যাওয়া যায়, তেমনি এ ক্যামেরায় আগের মুহূর্তের দৃশ্য পাওয়া যায়। এ ক্যামেরার মোশন সেন্সর সর্বদা সক্রিয় থাকে। ফলে রেডর্ক বাটনে ক্লিক করার আগের ১০ সেকেন্ড সময়ের দৃশ্য এবং পরের ১০ সেকেন্ড সময় দৃশ্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে এটি ধারণ করে।
১৬ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ সুবিধাসম্পন্ন এ ক্যামেরা স্বল্প রেজল্যুশনের ফুটেজ সংরক্ষণ না করে অ্যাপের মাধ্যমে স্মার্টফোনে পাঠিয়ে দেয়। উচ্চ রেজল্যুশনের ফুটেজ ক্যামেরা স্টোরেজ সংরক্ষণ করে। যেকোনো কিছুর ওপর ফোকাস করে ভিডিও রেকর্ড বাটন ক্লিক করার আগের ১০ সেকেন্ডের মুহূর্ত ধারণ করার ক্যামেরা এটিই প্রথম।
রোডার নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির সিইও এসজোর্ড পিটস্ট্রো বলেন, ‘টাইম মেশিন সুবিধার এ ক্যামেরা কখনো আপনাকে আগের সুন্দর মুহূর্তের জন্য আক্ষেপ করাবে না। অনেক সময় এমন কিছু মুহূর্ত আসে যখন পকেট থেকে স্মার্টফোন বের করে ফোকাস করতে করতে ওই মুহূর্তটি চলে যায়। কাঙ্ক্ষিত মুহূর্তটি যেন মিস না হয়, সে সুবিধা নিশ্চিতেই এ ক্যামেরা।
এ বছরের শেষের দিকে রোডার ক্যামেরা বাজারে আসবে। বর্তমানে ১৪৯ ডলারে প্রি-অর্ডার (www.roader.com/products/roader-camera) করে রাখা যাবে, সঙ্গে শিপিং চার্জ প্রযোজ্য হবে।  বিস্তারিত

গ্রামীণফোনের যত অনিয়ম

ঢাকা: শুধু যে প্রতারণা আর প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ তাই নয়, মূল উদ্যোক্তাকেই বলতে গেলে জোড় করে তাড়িয়ে দিয়েছে গ্রামীণফোন বা তাদের মূল প্রতিষ্ঠান টেলিনর। ইকবাল কাদির নামের ওই ব্যক্তি-ই ছিলেন বর্তমানের এই জায়ান্ট মোবাইল ফোন কোম্পানিটির স্বপ্নদ্রষ্টা। নিজে খুব বেশি অর্থলগ্নি করতে না পারায় পেয়েছিলেন মাত্র ৪ দশমিক ৫ ভাগ শেয়ার। তাও শেষ পর্যন্ত থাকতে দেয়নি টেলিনর। তাঁকে পরিচালনা পর্ষদে তো নেয়া হয়ইনি বরং তাঁর শেয়ার কেড়ে নিয়ে বিদায় করে দেওয়া হয়েছে। ক্ষোভে দুঃখে দেশ ছেড়ে চলে যান ইকবার কাদির। টেলিনর গ্রুপ এই কাজ করে ২০০১ সনে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার গঠনের পর। টেলিনরের এই কাজে সায় ছিল ড: ‍ুমুহাম্মদ ইউনূসেরও।
 শুধু ইকবাল কাদির নয়, শুরু থেকে গ্রামীণফোনে জাপানের মারুবিনি নামের একটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ছিল ৯ দশমিক ৫ ভাগ। তাদেরও এই ব্যবসায় থাকতে দেয়নি টেলিনর। এক পর্যায়ে ইকবাল কাদিরের সাথে মারুবিনিকেও চলে যেতে হয়। সে সময় এই ঘটনাগুলোর সাথে সংশ্লিষ্ট একাধিক ব্যক্তি বলেছেন, আওয়ামী লীগের আমলে শেখ হাসিনার কাছ থেকে লাইসেন্স পেলেও ২০০১ সনে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসার পর টেলিনরের প্রভাব বেড়ে যায় কয়েকগুন। তখন থেকেই তারা গ্রামীণফোনে একচ্ছত্র মালিকানা নিতে মরিয়া হয়ে উঠে। ড: ইউনূস টেলিনরকে প্রাথমিক অবস্থায় কোম্পানিটিকে দাঁড় করানোর সুযোগ করে দিয়েছিলেন। ভেবেছিলেন এক সময় এই কোম্পানির সিংহভাগ শেয়ারের মালিক হবে গ্রামের দরিদ্র নারীরা। কিন্তু টেলিনরের পুঁজির দাপটে কিছুই হয়নি। ড: ইউনূস তাঁর শেয়ার ধরে রাখতে পারলেও কাদিরকে বিদায় নিতে হয় খালি হাতেই। সুত্রমতে ১৯৯৩ সনের শুরুর দিকে প্রকল্পের প্রাথমিক ভাবনা দাঁড় করান যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করা ইকবাল কাদীর। তিনি সে সময় ছিলেন এটরিয়ারম ক্যাপিটালের ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকার। দেশে ফিরে কিছু একটা করার পরিকল্পনায় হাত দেন তিনি। সেলফোন হতে পারে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধের লড়াইয়ের বড় হাতিয়ার—এটা তারই ভাবনা। ড: ইউনূস যখন ওহাইয়োতে সম্মানসূচক ডিগ্রি নিতে গিয়েছিলেন, তখন তাঁর কাছে নিজের এ ভাবনার কথা তুলে ধরেন ইকবাল কাদীর। ১৯৯৩ সনের ডিসেম্বরে দু’জনের মধ্যে আবার দেখা হয়। ইকবাল কাদির কীভাবে তারবিহীন ফোন বাংলাদেশে উন্নয়নে বিপ্লব ঘটাতে পারে সে চিন্তা তুলে ধরেন অধ্যাপক ইউনূসের কাছে। শুরুতে অধ্যাপক ইউনূস বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা না করলেও ১৯৯৪ সনে কাদিরের লিখিত পরিকল্পনা পাওয়ার পরে তিনি নড়েচড়ে বসেন। কিন্তু প্রাথমিক লগ্নি করার জন্য তেমন একটি আগ্রহ দেখালেন না। কিন্তু কাদির ছিলেন নাছোড়বান্দা। নিজের স্বপ্নকে বাস্তব রূপ দিতে আবারও ফিরে গেলেন নিউইয়র্কে। মার্কিন এক ধনী ব্যক্তিকে বুঝিয়ে প্রতিষ্ঠা করলেন গণফোন। কিছু অর্থ হাতে আসার পর তিনি ফিনল্যান্ডের টেলিকন কোম্পানিকে পরামর্শক হিসাবে নিয়োগ দিলেন। উদ্দেশ্য ছিল এই পরামর্শক কোম্পানির মাধ্যমে স্ক্যান্ডনেভিয়ান দেশগুলোর সেলফোন অপারেটদের সম্পর্কে নেটওয়ার্ক স্থাপন। ১৯৯৪ সনের শেষদিকে তিনি সুইডিশ কোম্পানি টেলিয়া, গণফোন ও গ্রামীণ ব্যাংকের একটি কনসোর্টিয়াম স্থাপন করতে সফল হলেন। পরিকল্পনা ছিল বাংলাদেশ সরকার নতুন লাইসেন্স এর জন্য দরপত্র আহবান করলেই তাতে অংশগ্রহণ করা। প্রাথমিকভাবে পরিকল্পনা হলে একটি লাভজনক বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন নেওয়া হবে। যে প্রতিষ্ঠান সরকারের কাছ থেকে লাইসেন্স নিয়ে টেলিফোন অপারেটর হিসাবে ব্যবসা পরিচালনা করবে। পাশাপাশি আরেক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান খোলা হবে, যারা এই কোম্পানির কাছ থেকে পাইকেরি দামে কথাবলার সময় কিনে তা গ্রামের দরিদ্র নারী উদ্যোক্তাদের কাছে ফোন ও কল সময় বিক্রি করবে। অলাভজনক এই প্রতিষ্ঠানের নাম হবে গ্রামীণ টেলিকম। কিন্তু ছয় মাস পর টেলিয়া এই কনসোর্টিয়াম থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়। কাদীরের বিচক্ষণতা ও দূরদর্শিতায় রাজি হলো টেলিনর। কিন্তু পুঁজি জোগানের লড়াইয়ের টেলিনরের কাছ হার মানলেন সকলেই। প্রাথমিকভাবে ১ কোটি ৭৫ লাখ ডলারের লগ্নিতে ৫১ ভাগ শেয়ারের মালিক হলো টেলিনর, ৩৫ ভাগ গ্রামীণ টেলিকম, ৯ দশমিক ৫ ভাগ জাপানের মারুবিনি আর ৭ লাখ ৯০ হাজার ডলার দিয়ে মাত্র ৪ দশমিক ৫ ভাগ শেয়ারের মালিক হলেন মূল উদ্যোক্তা ইকবাল কাদীরের গণফোন। এত অল্প শেয়ারে কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদে জায়গা হলো না তাঁর। ১৯৯৭ সনের ২৬ মার্চ গ্রামীণ তার যাত্রা শুরু করে। প্রথম বছর ৭০ লাখ ডলার, পরের বছর ১ কোটি ৩০ লাখ ডলার লোকসান হয় গ্রামীণফোনের। ২০০০ সনের পর থেকে সাফল্যের মুখ দেখতে থাকে। সে বছর প্রতিষ্ঠানটি ৩০ লাখ ডলার মুনাফা করে। ২০০১ সনে দেশের মোবাইল ফোন গ্রাহকের ৬৯ শতাংশ চলে যায় গ্রামীণফোনের দখলে। ২০০২ থেকে ২০০৪ এ শুরু হয় টেলিনর ও গ্রামীণ টেলিকমের নিয়ন্ত্রণের লড়াই। এই পরিস্থিতিতে ইকবাল কাদির ও মারুবিনি তাদের অংশের শেয়ার ছেড়ে দিয়ে কোম্পানি থেকে বের হয়ে যেতে বাধ্য হন। পুরো শেয়ার চলে যায় টেলিনরের হাতে। ২০০৬ সনে ড: ইউনুস প্রকাশ্যে গণমাধ্যমে টেলিনরের প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি দাবি করেন, কনসোর্টিয়ামের সমঝোতা চুক্তিতে টেলিনর ৬ বছরের মধ্যে তাদের শেয়ার ৩৫ শতাংশে নামিয়ে আনবে-এ বিষয়টি উল্লেখ ছিল। আর এ সময়ের মধ্যে প্রতিষ্ঠানের যে কোন পক্ষের শেয়ার হস্তান্তরের বিষয়ে প্রাথমিক আপত্তি জানানোর অধিকার পাবে গ্রামীণ টেলিকম। কিন্তু সমঝোতা চুক্তি মেনে শেয়ার ৩৫ শতাংশে নামিয়ে আনতে অস্বীকৃতি জানায় টেলিনর। এ নিয়ে উভয় পক্ষে বাকবিতণ্ডা এবং চিঠি চালাচালি হলেও, টেলিনর গ্রামীনফোনে নিজেদের নিয়ন্ত্রন ছাড়েনি। গত ১৫ বৎসরের এসব পুরনো দলিল ও কাগজপত্র পরীক্ষা করে টেলিনরের এসব প্রতারণা ও প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের প্রমাণ পেয়েছে গ্রামীণ ব্যাংক কমিশন। কমিশনের চেয়ারম্যান মামুন উর রশিদ তখন বলেছিলেন, সে সময় গ্রামীণ কনসোর্টিয়ামকে লাইসেন্স দেওয়া হয়েছিল সরল বিশ্বাসে। লাইসেন্সিং প্রক্রিয়ায় যোগ্যতার বিচারে বাদ পড়েছিল টেলিনর। তারপরও তাদের লাইসেন্স দেওয়া হয় এবং তারা যথারীতি বিশ্বাস ভঙ্গ করেছে সবার সাথেই। বিস্তারিত

অনলাইনে আয় করা যাবে যেসব সাইট থেকে

বর্তমান বিশ্বে হাজারো ফ্রিল্যান্সিং সাইট রয়েছে, কিন্তু কাজ করার জন্য সবগুলোই উপযুক্ত নয়। কিছু কিছু সাইট আছে শুধু নির্দিষ্ট টাইপের কাজ পাওয়া যায়। কিছু কিছু সাইট শুধু দক্ষ লোকের জন্য।

আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনার কর্মজীবনের শুরু করতে চান তাহলে আপনার প্রয়োজন বিশ্বের সেরা এবং বিশ্বস্ত ফ্রিল্যান্সিং সাইট, যেখানে আপনি কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন এবং নিজের ভালো একটি প্রোফাইল সাজাতে পারবেন।
এ প্রতিবেদনে এমনই ৩১টি ফ্রিল্যান্সিং জব সাইট তুলে ধরা হলো। সবগুলো সাইটই নির্ভরযোগ্য। সাইটগুলো দেখুন আর আপনার জন্য কোন সাইটটি উপযুক্ত তা বেছে নিন।
* upwork.com : বিশ্বের সবচেয়ে বড় অনলাইন মার্কেটপ্লেস ইল্যান্স-ওডেস্ক নতুন একটি নাম নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে। প্রতিষ্ঠানটির নতুন নাম দেওয়া হয়েছে আপওয়ার্ক। এখানে আপনি সব ধরনের কাজ করতে পারবেন।
* fiverr.com : ফাইভার হচ্ছে, ছোট ছোট কাজের জন্য বিখ্যাত একটি সাইট। ৫ ডলার থেকে এখানে কাজের রেট করা আছে। এখানে আপনি সব ধরনের কাজ পাবেন।
* freelancer.com : এটি ফ্রিল্যান্সারদের জন্য খুব বড় একটি কাজের ক্ষেত্র। এটি সেরা সাইটগুলোর মধ্যে অন্যতম। এখানে ওয়েব ডিজাইনার, কপিরাইটার বা ফ্রিল্যান্স প্রোগ্রামার, এসইও সব ধরনের কাজের জন্য বিড করে কাজ করতে পারবেন।
* peopleperhour.com : পিপল পার আওয়ার মূলত ডুয়াল মার্কেটপ্লেস। এখানে আপনি ফাইভারের মতো আপনার সার্ভিস সেল করতে পারবেন, আবার ফ্রিল্যান্সার এর মতো জবে বিড করতে পারবেন। তবে বিডিং সিস্টেম থেকে সার্ভিস সেল করাটাই এখানে বেশি জনপ্রিয়। এখানে আপনি সব ধরনের কাজ বিক্রি ও কিনতে পারবেন।
* 99designs.com : বর্তমানে ডিজাইনের জন্য সবচেয়ে আলোচিত ফ্রিল্যান্সিং সাইট হচ্ছে ৯৯ডিজাইনস। এখানে ডিজাইনের কাজগুলো সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায়। আপনি এখানে লোগো, ব্যবসায়িক কার্ড, ওয়েবসাইট, অ্যাপ্লিকেশন, ইনফোগ্রাফিক, টি-শার্ট, কার্ড, আমন্ত্রণ, পণ্য প্যাকেজ, বই, এবং পত্রিকা কভার ইত্যাদি টাইপের অসংখ্য কাজ পাবেন।
* designcrowd.com : এটি একটি গ্রাফিক্স ডিজাইন মার্কেটপ্লেস যেখানে ক্রিয়েটিভ ধরনের লোকেরা সহজেই কাজ পায়।
* studio.envato.com : এই সাইটটি খুব নামকরা একটি সাইট, যেখানে আপনি আপনার তৈরি করা ডিজাইনগুলো বিক্রি করতে পারবেন।
* stackoverflow.com/jobs : এই সাইটটি শুধু সমস্যা সমাধানের জন্য নয়, এখানে অনেক কাজ পাওয়া যায়। তবে এখানে কাজ করতে হলে অ্যাকাউন্টের সঙ্গে স্টাক ক্যারিয়ার-এর থেকে আমন্ত্রণ পেতে হবে।
* toptal.com : আপনি যদি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে একজন ভালো ডেভেলপার হয়ে থাকেন তাহলে টপটাল আপনার জন্য একটি ভালো কাজের সাইট। অন্যান্য সাইটগুলোতে সাধারণত বিভিন্ন ধরনের কাজ থাকে। কিন্তু এখানে শুধু ডেভেলপারদের ওপর ফোকাস করা হয়।
* dribbble.com : এখানে সাইন আপ করুন এবং প্রোফাইল পেজের ‘হায়ার মি’ বাটনে ক্লিক করে জব বোর্ডে আপনার কাজ খুঁজুন।
* behance.net/joblist : এই সাইটটি যারা সৃজনশীল এবং ইউনিক আইডিয়া নিয়ে কাজ করেন যেমন- গ্রাফিক্স ডিজাইনার, মাল্টিমিডিয়া ইত্যাদি তাদের জন্য খুব ভালো একটি সাইট।
* linkedin.com/jobs : এই সাইটটি খুবই প্রফেশনাল মানের সাইট। আপনি এখানে একবার সাইন আপ করুন, তারপর থেকে আপনি তাদের জব বোর্ড থেকে কাজ খুঁজতে পারবেন।
* smashingmagazine.com/jobs : প্রোগ্রামার, ওয়েব ডিজাইনার সহ আরো অন্যান্য অনেক কাজের সুবিধাসহ এটি একটি সুন্দর একটি জব পোর্টাল।
* jobs.wordpress.net : এটি ওয়ার্ডপ্রেসের একটি অফিসিয়াল জব বোর্ড। এখানে আপনি প্লাগিন ডেভেলপমেন্ট, থিম কাস্টমাইজেশন বা ওয়ার্ডপ্রেস সাইট অপ্টিমাইজেশন- এ ধরনের কাজ পাবেন। আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেসের ভালো কাজ পারেন তাহলে সহজেই এখানে কাজ পাবেন।
* guru.com : গুরু ডটকম একটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট, যেখানে আপনি বিভিন্ন ধরনের কাজ পাবেন। এই সাইটটি সবচেয়ে জনপ্রিয় ভারতে। এখানে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন নিয়ে অনেক কাজ পাওয়া যায়।
* weworkremotely.com : নামের মতোই এটি এমন একটি সাইট যেখানে আপনার পছন্দমতো বা যে কাজ আপনি ঘরে বসে করতে পারবেন সেরকম কাজ এখানে আপনি খুঁজে পাবেন।
* wphired.com : ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপারদের জন্য এই সাইটটি খুব বড় ধরনের ভালো সুযোগ। সাইটটিতে ওয়ার্ডপ্রেস সম্পর্কিত প্রজেক্টে একজন ফুলটাইম ফ্রিল্যান্সার বা পার্টটাইম বা ইন্টার্নি হিসেবে কাজ করতে পারবেন।
* wearehirable.com : এটি একটি সোশ্যাল সাইট, যেখানে ফ্রিল্যান্সার এবং এমপ্লয়াররা যোগাযোগ করতে পারে।
* gun.io : এই সাইটটি খুব সফলভাবে আমজন ডটকম, লোনলি প্লানেট এর মতো কোম্পানিদের ফ্রিল্যান্সার সরবরাহ করে। আপনি এখানে কাজ করতে চাইলে আগে গিথহাব এ আকাউন্ট থাকতে হবে।
* crew.co : এই সাইটটি ওয়েব ডিজাইনার এবং অ্যাপ ডেভেলপারদের ওপর ফোকাস করে।
* localsolo.com : লোকালসোলো সাইটটি হচ্ছে, বিজনেস এবং ফ্রিল্যান্সারদের যোগাযোগের জায়গা। এখানে আপনি বিনামূল্যে একজন ফ্রিল্যান্সার বা এমপ্লয়ার হিসেবে সাইনআপ করতে পারেন।
* crowdsite.com : আপনি যদি ভালো ডিজাইনার এবং ডেভেলপার হয়ে থাকেন এই সাইটে চেষ্টা করতে পারেন।
* onsite.io : ডিজাইনার, কপিরাইটার বা ফ্রিল্যান্স প্রোগ্রামাররা এখান থেকে ফ্রিল্যান্সিংয়ের জন্য অনেক সুযোগ খুঁজে পাবেন।
* joomlancers.com : এই সাইটটি শুধু যারা জুমলা নিয়ে কাজ করেন তাদের জন্য। জুমলা প্রফেশনালদের জন্য এটি একটি দারুণ সাইট।
* simplyhired.com : এটিও একটি অসাধারণ সাইট। এই অনলাইন জব পোর্টাল থেকে আপনি সব ধরনের কাজ খুঁজে পাবেন।
* yunojuno.com : এটি আরো একটি অসাধারণ ফ্রিল্যান্সিং গিগের জব সাইট। এই সাইট ফ্রিল্যান্সারদের সঙ্গে এমপ্লয়ারদের যোগাযোগ করিয়ে দেয়।
* theshelf.com : দ্য সেলফ এমন একটি সাইট, যেখানে ব্লগার এবং ফ্রিল্যান্স লেখক ফ্যাশন, লাইফস্টাইল, খাদ্য এবং ভ্রমণ সম্পর্কিত ব্র্যান্ডের সঙ্গে সহযোগিতা করে একসঙ্গে কাজ করে।
* bark.com/en/gb : এই মারকেটপ্লেসটি প্রায় সব ধরনের কাজের জন্য প্রযোজ্য। পেইন্টার, ফটোগ্রাফার থেকে পার্টি ক্যাটারার পর্যন্ত।
* airpair.com : এটি একটি কমিউনিটি সাইট, যেখানে ডেভেলপাররা একে অপরের সঙ্গে মিলিত হয়ে তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন। এটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট নয়, তবে এখানে একটা ভালো নেটওয়ার্ক পাবেন, যেখান থেকে হয়তো আপনি জব পাবেন যা আপনার ক্যারিয়ার তৈরি করতে সাহায্য করবে।
* wayup.com : এটি ছাত্রদের জন্য একটি ভালো সাইট যারা পার্টটাইম জব খুঁজছেন। এখান থেকে একদিকে তারা নিজেদের কাজের অভিজ্ঞতা বাড়াতে পারবেন, অন্যদিকে কিছু টাকাও আয় করতে পারবেন।
* tractionco.com : আপনার যদি একটি জনপ্রিয় ব্লগ থাকে বা সামাজিক ইনফ্লুয়েন্সার হন, তাহলে এখানে সাইনআপ করতে পারবেন ট্রাকশনকোর একজন মার্কেটিং পার্টনার হিসেবে এবং আয় শুরু করতে পারবেন। বিস্তারিত

হারিয়ে যেতে পারে চকোলেট

লন্ডন: মুখরোচক খাবার চকলেট। শিশু থেকে বৃদ্ধ সবাই যার ক্রেতা। এই জনপ্রিয় মিষ্টিজাতীয় খাবার আগামী ৩০ বছরের মধ্যেই হারিয়ে যেতে পারে। এর কারণ আর কিছুই নয়, জলবায়ু পরিবর্তন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চকোলেট তৈরির প্রধান উপাদান ক্যাকাও গাছের বীজ। আর সেই ক্যাকাও গাছের বেড়ে উঠতে প্রয়োজন প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টিপাত। কিন্তু তাপমাত্রা বাড়তে থাকায় ক্যাকাও গাছের বৃদ্ধিতে তা ব্যাপক প্রভাব ফেলছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে মার্কিন ন্যাশনাল ওসেনিক অ্যান্ড অ্যাটমোস্ফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনকে উদ্ধৃত করে জানানো হয়েছে যে, আগামী ৩০ বছরে তাপমাত্রা ২.১ সেন্টিগ্রেড বাড়লে তা চকোলেট শিল্পকেই বিপন্ন করে তুলতে পারে। এভাবে তাপমাত্রা বাড়লে তার ক্ষতিপূরণ কোনও পরিমাণ বৃষ্টিতেই সম্ভবপর নাও হতে পারে।
কোটে ডি’আইভোর ও ঘানার মতো আফ্রিকার দেশগুলিতে বিশ্বের মোট চকোলেটের ৫০ শতাংশ উত্পাদন হয়। জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত এই সমস্যার সঙ্গে যুঝতে হচ্ছে এই দেশগুলিকে।লন্ডনের গবেষণাকারী সংস্থা হার্ডম্যান অ্যাগ্রিবিজনেসের ডাফ হকিন্স জানিয়েছেন, বিশ্বের মোট কোকোয়া উত্পাদনের ৯০ শতাংশই হয় ছোট ছোট জমির মালিকদের দ্বারা। এ সব ক্ষেত্রে আধুনিক প্রযুক্তির প্রয়োগ খুবই কম।
তিনি আরও বলেছেন, যে সব ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে, তা থেকে অনুমান, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে প্রতি বছর চকোলেটে ঘাটতির পরিমাণ প্রতি বছরে হতে পারে ১০০,০০০ টন।

বিস্তারিত

দুর্ঘটনায় পড়লে অ্যাম্বুলেন্স ডেকে আনবে হেলমেট!

বাইকের সঙ্গে বাস বা অন্যান্য যানবাহনের সংঘর্ষে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হন বাইক আরোহীরা। বুয়েটের তথ্য অনুযায়ী, দেশে ৫০ শতাংশ দুর্ঘটনা ঘটছে বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে আর ১৫ শতাংশ দুর্ঘটনা ঘটছে বেপরোয়া মোটরসাইকেল আরোহীদের জন্য। কথায় আছে দু’চাকায় ভরসা নেই! কথাটা অমূলক নয়। রোমাঞ্চকর বাইক ভ্রমণ কখনো কখনো দুর্ঘটনার কারণ হতে পারে। মোটরসাইকেল আরোহীদের জন্য হেলমেট পরা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। প্রায় সব দেশেই মোরটসাইকেল আরোহীদের হেলমেট পরা বাধ্যতামূলক। কারণ দুর্ঘটনার কবলে পড়লে হেলমেট অনেকটা রক্ষাকবচের কাজ করে। এ বিষয়ে প্রশাসনের কড়াকড়ি থাকলেও অনেকে হেলমেট না পরেই মোটরসাইকেল চালান।

কিন্তু এবার হেলমেট শুধু প্রাথমিকভাবে আরোহীকে রক্ষাই করবে না, দুর্ঘটনায় পড়লে আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করবে। নিজে থেকেই অ্যাম্বুল্যান্স ডেকে আনতে পারে এটি।
পাকিস্তানে তৈরি হয়েছে এই স্মার্ট হেলমেট। দেখতে সাধারণ হেলমেটের মতোই। পোশাকি নাম হেলি। তবে আর পাঁচটা হেলমেটের থেকে অনেক বেশি কাজ করে এটি। কারণ প্রযুক্তিগতভাবে অনেক এগিয়ে এটি। যারা নতুন মোটরবাইক চালাচ্ছেন, তাদের জন্য এই স্মার্ট হেলমেট আদর্শ।
এতে রয়েছে স্পিকার, মাইক্রোফোন, ব্লুটুথ রিসিভার, জিপিএস ট্র্যাকার এবং একটি হার্ট রেট মনিটরও রয়েছে। অর্থাৎ ফোন এলে আলাদা করে কানে যেমন মোবাইল ধরার প্রয়োজন নেই, তেমনই রাস্তা হারিয়ে ফেলার সমস্যাও নেই। এখানেই শেষ নয়, হেলমেটের মাথায় লাগানো রয়েছে একটি ক্যামেরা এবং দুটি ইনডিকেটর। মানে এ হেলমেট মাথায় চাপালে রাস্তার দিক পরিবর্তনের সময় আলাদা করে ইনডিকেটর অন করারও দরকার হবে না। পাশাপাশি দুর্ঘটনায় পড়লে হেলির এসওএস মোডের মাধ্যমে সরাসরি ফোন চলে যাবে পরিবার এবং অ্যাম্বুলেন্সে সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে। তারা এতে উদ্ধার কাজে অংশ নেবে। তবে যদি মনে করেন এই হেলমেটের জন্য ইন্টারনেট প্রয়োজন, তাহলে ভুল ভাবছেন।
২০১৩ সালে এমনই এক স্মার্ট হেলমেট বাজারে এসেছিল। তবে তার মূল্য ছিল এক হাজার ডলার। কিন্তু মাত্র ৫ হাজার টাকা বিনিময়েই হেলি মাথায় তুলতে পারবেন আরোহীরা। এক হেলমেটে এত গুণের কথা ভাবতে অবাক লাগতেই পারে। কিন্তু তার কীর্তি যে বাইক সফরকে আরও মসৃণ ও সুরক্ষিত রাখবে তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। বিস্তারিত

ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলতেও এবার আধার?

ভুয়ো অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে এবার আধার-এর দ্বারস্থ ফেসবুক। ফেসবুকে নতুন অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে আধার কার্ডে থাকা নাম জানাতে হবে ফেসবুককে। তবে মিলবে ফেসবুক ব্যবহারের অনুমতি। এর ফলে আত্মগোপন করে ফেসবুকে প্রোফাইল খোলা মুশকিল হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

নাম গোপন করে ফেসবুকে একাধিক প্রোফাইল অনেকেরই রয়েছে। এছাড়া ফেসবুকে ভুয়ো পরিচয় দিয়ে প্রোফাইল খুলে প্রতারণা চক্রও বিরল নয়। তবে এবার এই প্রবণতায় রাশ টানতে চলেছে ফেসবুক। ব্যবহারকারীদের পরিচয় নিশ্চিত করতে এবার আধার কার্ডে থাকা নাম উল্লেখের আবেদন জানাল ফেসবুক।
বিষয়টা কী, একটু খোলসা করে বলা যাক। এখন থেকে ফেসবুকে কেউ অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে বা সাইন আপ করতে গেলে তাকে আধার কার্ডে থাকা নাম হুবহু উল্লেখ করতে হবে। ফেসবুকের তরফে বলা হয়েছে, আসল পরিচয়ে অ্যাকাউন্ট খোলাতে উত্সাহ দিতেই সংস্থার তরফে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
পাশাপাশি সংস্থার তরফে আরও বলা হয়েছে, বিভিন্ন দেশে পরিচয়পত্রের ভিত্তিতে অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম আগে থেকেই চালু রয়েছে। ভারতে এই ব্যবস্থা নতুন হলেও আপাতত তা পরীক্ষামূলক স্তরেই রয়েছে। একইসঙ্গে সুস্পষ্ট করে জানানো হয়েছে, এর সঙ্গে আধার নম্বরের কোনও সম্পর্ক নেই। শুধুমাত্র নামের ক্ষেত্রেই আধার কার্ডকে অনুসরণের কথা বলা হয়েছে।
বিস্তারিত

লুকিয়ে রাখুন গোপন ভিডিও, ‘দুষ্টু’ অ্যাপের খোঁজ

হোয়াটসঅ্যাপে কত রকম ছবিই আসে। আসে ভিডিও-ও। তার মধ্যে কিছু ছবি বা ভিডিও থাকে, যা কেবল বন্ধুদের মধ্যেই শেয়ার করা চলে। কিংবা ধরুন বান্ধবীর পাঠানো এমন কিছু ছবি বা ভিডিও, যা আপনি চান এই ব্রহ্মাণ্ডে কেবল আপনারই থাকুক। কিন্তু ভাবতে গেলেই ভয় হয়। যদি গ্যালারিতে সেভ করে রাখা সেই সব ভিডিও বা ছবি পড়ে যায় অন্য কারও চোখে! বলা তো যায় না। সব সময়ে তো আর কেউ ফোন বগলে করে ঘোরে না। যদি অতর্কিতে ওই সব ‘ব্যক্তিগত’ ছবিপত্তর অন্যের সামনে চলে আসে! কিন্তু এই দুশ্চিন্তা থেকে আপনি সহজেই রেহাই পেতে পারেন। হোয়াটসঅ্যাপে আসা যে কোনও ছবি বা ভিডিওকেই ‘হাইড’ করে রাখা সম্ভব।

টেকহুক.কমে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে সেই লুকিয়ে রাখার কাজটি কেমন করে করা সম্ভব। এর জন্য আপনাকে কয়েকটি স্টেপ ফলো করতে হবে।

আগে দেখে নিন আপনার ফোনে ‘ফাইল ম্যানেজার’ রয়েছে কি না। যদি না থাকে, তা হলে গুগল প্লে স্টোর থেকে আপনার স্মার্টফোনে ইনস্টল করে নিন ইএস ফাইল এক্সপ্লোরার।
ওই ইএস ফাইল এক্সপ্লোরার বা আপনার ফোনের ফাইল ম্যানেজারে গিয়ে খুলে দেখে নিন তার ভিতরে থাকা ‘হোয়াটসঅ্যাপ’ ফোল্ডার। ওই ফোল্ডারের মধ্যে আছে ‘মিডিয়া’ ফোল্ডার, তার মধ্যে রয়েছে ‘হোয়াটসঅ্যাপ ইমেজেস’ ফোল্ডার।
আপনি কেবল ওই ‘হোয়াটসঅ্যাপ ইমেজেস’ ফোল্ডারটির নাম বদলে দিন। বিরাট কোনও পরিবর্তন নয়, কেবল নামটির আগে ‘.’ বসিয়ে ‘.হোয়াটসঅ্যাপ ইমেজেস’ করে ফেলুন। এতেই হবে ‘ম্যাজিক’। ওই ফোল্ডার হয়ে যাবে ‘হিডেন’। ব্যাস, আপনার মিশন কমপ্লিট।
না, এখনও পুরো কমপ্লিট নয়, আর একটি ছোট্ট কাজ বাকি। এর পর ফোটো গ্যালারিতে ‘শো হিডেন ফাইল’ অপশনটি অফ করে দিন। কেল্লা ফতে। যখন দেখতে চান, অপশন অন করুন। অন্য সময় অফ করে রাখুন।
এ তো গেল ছবির কথা। এই একই পদ্ধতি অবলম্বন করুন ভিডিও কিংবা অডিও ফাইলের ক্ষেত্রেও। বিস্তারিত

ই-ফাইলিংয়ে শ্রষ্ঠেত্বরে সম্মাননা পলে ডাইফ

ঢাকা: নথি পত্রাদির ইলেক্ট্রনিক ব্যবস্থাপনা (ই-ফাইলিং)-এ তৃতীয়বারের মতো প্রথম স্থান অর্জন করায় শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় কর্তৃক কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর (ডাইফ)-কে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। সম্প্রতি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত একটি অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।
 প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই)-প্রকল্পের আওতায় প্রতি সপ্তাহে ঘোষিত র‌্যাংকিং-এ ১৮০টি সরকারি দপ্তর ও সংস্থার মধ্যে একমাসে তিনবার এই সাফল্য অর্জন করেছে ডাইফ। কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক মোঃ সামছুজ্জামান ভূইয়া বলেন, “ডিজিটাল বাংলাদেশ তথা রূপকল্প  ২০২১ বাস্তবায়নে বর্তমান সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের মধ্যে ই-নথির ব্যবহার অন্যতম। এ পদ্ধতিতে সরকারি কাজে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার করা হচ্ছে এবং কম সময়ে এবং কম খরচে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সঙ্গে জনগণকে সেবা দেয়া যাচ্ছে।” উল্লেখ্য, এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ের দাপ্তরিক কাজে ই-ফাইলিং চালু করা হয় এবং অক্টোবর হতে শতভাগ কার্যক্রম ই-ফাইলিং এর মাধ্যমে সম্পন্ন হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে ১২ এবং ২৬ নভেম্বর এবং ১০ ডিসেম্বর ঘোষিত র‌্যাংকিং-এ শীর্ষস্থান অর্জন করেছে ডাইফ। ছবির ক্যাপশন: কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক জনাব মোঃ সামছুজ্জামান ভূইয়াকে সম্মাননা প্রদান করছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব জনাব আফরোজা খান। 
বিস্তারিত

মধ্যম বাজেটে ৪জিবি র‌্যামের সেরা ৬টি স্মার্টফোন

২০১৭ সালে মধ্যম বাজাটের মধ্যেই ৪জিবি র‌্যামের বেশ কয়েকটি স্মার্টফোন এসেছে বাজারে। আসুন জেনে নেওয়া যাক এমন স্মার্টফোনগুলোর মধ্যে সেরা ৬টি স্মার্টফোন সম্পর্কে।

১. অনার ৭এক্স
এই ফোনটির তিনটি ভ্যারিয়েন্ট আছে। দাম পড়বে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকার মধ্যে। ফেনটিতে আছে ৫.৯৩ ইঞ্চি এলটিপিএস আইপিএস এলসিডি ১০৮০x২১৬০ পিক্সেলের ডিসপ্লে। অক্টা-কোর (কোয়াডকোরx২.৩৬ গিগাহার্টজ এবং কোয়াডকোরx১.৭গিগাহার্টজ) কর্টেক্স-এ৫৩ হাইসিলিকন কিরিন ৬৫৯ প্রসেসর। ৪জিবি র‌্যাম সাথে ৩২/৬৪/১২৮জিবি স্টোরেজ। অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ নুগেট অপারেটিং সিস্টেম। এর রিয়ার ক্যামেরাটি ১৬ মেগাপিক্সেল। আর ফ্রন্ট ক্যামেরাটি ৮মেগাপিক্সেল। ব্যাটারি ৩৩৪০ এমএএইচ।
২. ভিভো ভি ৭
এই ফোনটির দাম পড়বে ২৫,৯৯০ টাকা। এতে আছে ৫.৭ ইঞ্চির আইপিএস এলসিডি (কর্নিং গরিলা গ্লাস ৪) ৭২০x১৪৪০ পিক্সেল ডিসপ্লে। অক্টাকোর ১.৮ গিগাহার্টজ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৪৫০ প্রসেসর। ৪জিবি র‌্যাম, সাথে ৩২জিবি স্টোরেজ ক্যাপাসিটি। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ৭.১.২ নুগেট অপারেটিং সিস্টেমে চালিত। এর রিয়ার ক্যামেরাটি ১৬ মেগাপিক্সেল আর ফ্রন্ট ক্যামেরাটি ২৪ মেগাপিক্সেল। ব্যাটারি ৩০০০ এমএএইচ।
৩. মাইক্রোম্যাক্স ক্যানভাস ইনিফিনিটি
বাংলাদেশে ফোনটির দাম সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকার মধ্যে হবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। ভারতে এর দাম মাত্র ১৪ হাজার রুপি। ফোনটিতে আছে ৫.৭ ইঞ্চির আইপিএস এলসিডি ৭২০x১৪৪০ পিক্সেল ডিসপ্লে। অক্টাকোর (কোয়াডx২ গিগাহার্টজ + কোয়াডx১.৫ গিগাহার্টজ) কর্টেক্স এ ৫৩ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৪৩০ প্রসেসর। ৪জিবি র‌্যাম সাথে ৬৪জিবি স্টোরেজ। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ৭.১ নুগেট অপারেটিং সিস্টেম চালিত। এর রিয়ার ক্যামেরাটি ১৬ মেগাপিক্সেল আর ফ্রন্ট ক্যামেরাটি ২০ মেগাপিক্সেল। ব্যাটারি আছে ৩০০০ এমএএইচ এর।
৪. মটোরোলা মোটো জি৫এস প্লাস
বাংলাদেশে ফোনটির দাম পড়বে ২৪ হাজার টাকা। ফোনটিতে আছে ৫.৫ ইঞ্চির আইপিএস এলসিডি (কর্নিং গরিলা গ্লাস ৩) ১০৮০x১৯২০ পিক্সেল ডিসপ্লে। অক্টাকোর ২.০ গিগাহার্টজ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ প্রসেসর। ৪জিবি র‌্যাম সাথে ৬৪জিবি স্টোরেজ ক্যাপাসিটি। অ্যান্ড্রয়েড ৭.১ নুগেট অপারেটিং সিস্টেম। রিয়ার ক্যামেরাটি ডুয়াল ১৩+১৩মেগা পিক্সেল আর ফ্রন্ট ক্যামেরাটি ৮ মেগাপিক্সেল। ব্যাটারি ৩১০০ এমএএইচ।
৫. অনার ৯আই
চীনা স্মার্টফোন কম্পানি হুয়াওয়েই এর এই ফোনটির দাম বাংলাদেশে প্রায় ২৭ হাজার টাকা। ফোনটিতে আছে ৫.৯ ইঞ্চির আইপিএস-এলসিডি ১০৮০x২১৬০ পিক্সেল ডিসপ্লে। অক্টাকোর (কোয়াড x ২.৩৬ গিগাহার্টজ + কোয়াড x ১.৭ গিগাহার্টজ) কর্টেক্স-এ৫৩ কিরিন ৬৫৯ প্রসেসর। ৪জিবি র‌্যাম সাথে ৬৪জিবি স্টোরেজ ক্যাপাসিটি। অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ নুগেট অপারেটিং সিস্টেম। ১৬ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা ১৩ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। ব্যাটারি ৩৩৪০ এমএএইচ।
৬. মটোরোলা মোটো এক্স৪
বাংলাদেশে ফোনটির দাম প্রায় ৩৮ হাজার টাকা। ফোনটিতে আছে ৫.২ ইঞ্চির আইপিএস এলসিডি ১০৮০x১৯২০ পিক্সেল ডিসপ্লে। অক্টাকোর ২.২ গিগাহার্টজ, কর্টেক্স এ৫৩ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৩০ প্রসেসর। ৪জিবি র‌্যাম এবং ৬৪জিবি স্টোরেজ ক্যাপাসিটি। অ্যান্ড্রয়েড ৭.১ নুগেট অপারেটিং সিস্টেম। এর রিয়ার ক্যামেরাটি ১২ মেগাপিক্সেল আর ফ্রন্ট ক্যামেরাটি ১৬ মেগাপিক্সেল। ব্যাটারি ৩০০০ এমএএইচ। বিস্তারিত

ওয়াই সিরিজের নতুন স্মার্টফোন আনল হুয়াওয়ে

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে বাংলাদেশের বাজারে নিয়ে এলো ওয়াই সিরিজের নতুন প্রজম্মের স্মার্টফোন ওয়াই সেভেন। নতুন সব ফিচারের পাশাপাশি দীর্ঘস্থায়ী কর্মক্ষমতার হুয়াওয়ে ওয়াই সেভেন নকশা করা হয়েছে উদ্যমী তরুণ স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের জন্য।

সহজে ব্যবহারের কথা বিবেচনা করে ফোনটির প্রতি প্বার্শে স্বতন্ত্র ও দৃষ্টিনন্দন নকশা করা হয়েছে। পাশাপাশি এর স্যান্ডব্লাস্টেড মেটালিক বডি মার্জিত এবং শৈল্পিক কারুকার্যের অভিজ্ঞতা দেবে।
মোবাইলফোনটির ৫.৫ ইঞ্চির এইচডি ডিসপ্লেটি দুর্দান্ত গ্রাফিক্সের একটি সংমিশ্রণ এবং এর ২.৫ডি কার্ভড স্ক্রিন ডিজাইন ডিভাইসটি ধরার ক্ষেত্রে এক আরামদায়ক ও প্রিমিয়াম অভিজ্ঞতা দেবে।
হুয়াওয়ে ওয়াই সেভেনে শক্তিশালী ৪০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের দীর্ঘ ব্যাটারি ব্যাকআপ পাওয়া যাবে। এছাড়া সব কাজ দ্রুত ও সহজভাবে পরিচালনার লক্ষ্যে ব্যবহার করা হয়েছে শক্তিশালী অক্টা কোর প্রসেসর, ২ জিবি র‌্যাম এবং ১৬ জিবি রম।
হুয়াওয়ে ওয়াই সেভেনে ক্যামেরার ক্ষেত্রে রয়েছে ১২ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা এবং ৮ মেগাপিক্সেল এফ ২.০ ফ্রন্ট লেন্স। এই স্মার্টফোনের ক্যামেরাতে ফেস ডিটেকশন অটো ফোকাস (পিডিএএফ) রয়েছে, যেটি দিয়ে মাত্র ০.৩ সেকেন্ডে মূল বিষয়বস্তুকে ফোকাসে আনা সম্ভব হবে। সেলফি তোলার ক্ষেত্রে ত্বকের উপর নির্ভর করে এতে ১০ স্তরের বিউটি মোড রয়েছে। এছাড়া প্যানোরামিক সেলফি মোড বিস্তৃত ছবির তোলার অভিজ্ঞতা দেবে।
হুয়াওয়ে ওয়াই সেভেন ১.৫ আল্ট্রা মাইক্রো পিক্সেলও সরবরাহ করে, যা ব্যাক ক্যামেরা দিয়ে দ্রুত-গতিসম্পন্ন দৃশ্য ক্যাপচারের পাশাপাশি অল্প আলোতেও ছবি তুলতে সাহায্য করে।
হ্যান্ডসেটটিতে আছে হুয়াওয়ের নিজস্ব ইউজার ইন্টারফেস (ইএমইউআই) ৫.১ যা হালনাগাদযোগ্য। ইএমইউআই ৫.১ একটি পরিষ্কার এবং সহজ ইন্টারফেস প্রদান করে। ব্যবহারকারীর দেয়া ৯০ শতাংশ কমান্ড মাত্র ৩টি ধাপে সম্পন্ন করা যায় এবং অনাকাঙ্ক্ষিত বিজ্ঞাপন ব্লক করা যায়। দীর্ঘ সময় গেম খেলা অথবা কোনো কিছু পড়ার ক্ষেত্রে চোখের প্রশান্তির কথা চিন্তা করে এই ফোনে রাখা হয়াছে ‘আই কোমফোর্ট মোড’। দ্রুত এবং সহজ ফটো শেয়ারিং, এসএমএস, ইমেইল এবং নোট থেকে স্মার্ট ক্যালেন্ডার তৈরি করার সুযোগ রয়েছে এই ফোনে। হুয়াওয়ে ওয়াই-সেভেন অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ নুগাট দিয়ে পরিচালিত।
হুয়াওয়ে ব্র্যান্ডশপগুলো থেকে হুয়াওয়ে ওয়াই-সেভেন কেনা যাবে মাত্র ১৩,৯৯০ টাকায়।
বিস্তারিত

‘রিলেশনশিপ’ সংক্রান্ত যে ১০টি প্রশ্ন সব থেকে সার্চ হয় গুগলে

এক ঝলকে দেখে নেওয়া যাক, ২০১৭ সালে সম্পর্কের টানাপোড়েন নিয়ে কোন ১০টি প্রশ্ন সব থেকে বেশি বার জিজ্ঞেস করা হয়েছে গুগলকে—

কিন্তু এমনটা মনে পড়ছে না যে, সম্পর্ক-প্রেম-ভালবাসা নিয়ে প্রশ্নের উত্তর দিতেন সিধু জ্যাঠা! সেদিক থেকে আবার এক ধাপ এগিয়ে গুগল।
এক ঝলকে দেখে নেওয়া যাক, ২০১৭ সালে সম্পর্কের টানাপোড়েন নিয়ে কোন ১০টি প্রশ্ন সব থেকে বেশি বার জিজ্ঞেস করা হয়েছে গুগলকে—
১। দূরে থেকে কী ভাবে একটা সম্পর্ক ঠিক রাখা যায়?
২। ফেসবুকে ‘রিলেশনসিপ স্টেটাস’ কী ভাবে বদলাতে হয়?
৩। কোনও সম্পর্কের প্রতি বিশ্বাস কী ভাবে গড়ে তুলতে হয়?
৪। ‘পলি রিলেশনশিপ’— এর অর্থ কী?
৫। সম্পর্কে হালকা চিড় ধরেছে! কী ভাবে বাঁচানো যায় এই সম্পর্ক?
৬। ‘ওপেন রিলেশনশিপ’— এর অর্থ কী?
৭। প্রেম ভেঙে গিয়েছে! কী করে ভুলে থাকবেন তাঁকে?
৮। সম্পর্কে তিক্ততা, গালমন্দ! কী করে বেরিয়ে আসবেন এমন সম্পর্ক থেকে?
৯। কী করে বুঝবেন যে, প্রেমের সম্পর্কটি এবার শেষ?
১০। একটি সুন্দর-স্বাভাবিক সম্পর্ক কেমন হয়?

বিস্তারিত

অবিকল সৌরমণ্ডল ৮ গ্রহ নিয়ে নক্ষত্রের সংসার

আট গ্রহ নিয়ে কোনও নক্ষত্রে যদি সংসার করে, তবে তার কৃতিত্ব এতদিন ছিল সূর্যেরই। একমাত্র সৌরমণ্ডলেই আটটি গ্রহ নিজেদের মতো করে নক্ষত্রের চারপাশে ঘুরছিল। তবে এবার দোসর মিলল। খুঁজে পেলেন এই গ্রহের বিজ্ঞানীরাই। সাম্প্রতিক আবিষ্কারে জানা যাচ্ছে, ঠিক আরেকটি সৌরমণ্ডলেরও সন্ধান মিলছে। যদিও তাকে ছোট সংস্করণই বলা যায়। তবে সে নক্ষত্রের সংসারেও আছে আটটি গ্রহই।

সম্প্রতি এই নক্ষত্রের সংসারের কথা ঘোষণা করেছে নাসা। কেপলার স্পেস টেলিস্কোপ থেকে প্রতি মুহূর্তেই অসংখ্য ডেটা জমা হচ্ছে বিজ্ঞানীদের হাতে। গুগলের মেশিন লার্নিং টেকনোলজি ব্যবহার করে প্রাপত ডেটা থেকে এই নক্ষত্রমণ্ডলের হদিশ মিলেছে। বলা যায়, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিসিয়াল ইন্টালেজিন্সে ব্যবহার করেই এই সাফল্য মিলিছে। যে নক্ষত্রকে কেন্দ্র করছে ওই আটটি গ্রহ, সেটির নাম দেওযা হয়েছে ‘কেপলার ৯০’। আকারে প্রায় সূর্যের কাছাকাছি। পৃথিবী থেকে প্রায় ২৫৪৫ আলোকবর্ষ দূরে তার অবস্থান। এই নক্ষত্রকে কেন্দ্র করেই পরিভ্রমণ করছে আটটি গ্রহ। কতটা ছোট এই নক্ষত্রের সংসার? একটা উদাহরণে তা স্পষ্ট হবে। সূর্য থেকে পৃথিবীর দূরত্ব ঠিক যতটা, নক্ষত্রটি থেকে তার সিস্টেমের দূরতম গ্রহের দূরত্বও ঠিক ততখানি। এই দূরত্বের মধ্যেই পাক খাচ্ছে আরও সাতটি গ্রহ। ফলত গ্রহগুলির উষ্ণতা যে বেশি হবে তা সহজেই অনুমেয়। সে কারণে সেখানে জীবনের বিকাশ হওয়া সম্ভব নয় বলেই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।
এই সংসারে সদ্য যে গ্রহটির খোঁজ মিলেছে তার নাম দেওযা হয়েছে ‘কেপলার ৯০i’। পৃথিবীর মতোই পাথুরে তার উপরিভাগ। তবে তাপমাত্রা অত্যন্ত বেশি। বিজ্ঞানীরা অঙ্ক কষে দেখেছেন তা প্রায় ৪২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অর্থাৎ সূর্যের নিকটতম গ্রহ বুধের উষ্ণতার কাছাকাছি। আর গ্রহটি তার নক্ষত্রকে পূর্ণ পরিভ্রমণ করছে পৃথিবীর হিসেবে মোটামুটি ১৪ দিনে। অর্থাৎ আমাদের এখানে যা দুই সপ্তাহ, ওই গ্রহের সেই সময়েই এক বছর পূর্ণ হচ্ছে। বলা বাহুল্য সে অবিজ্ঞতার সাক্ষী থাকতে এখনও গ্রহটিতে কোনও বাসিন্দা নেই। নয়া নক্ষত্রমণ্ডল আবিষ্কার হওয়ার পর থেকেই বিজ্ঞানীমহলে খুশির হাওয়া। এতদিনে দোসর মিলেছে সৌরমণ্ডলের। আপাতত আর কোন নক্ষত্রের আটটি গ্রহ নিয়ে সংসার নেই। ফলত নয়া গ্রহ ও নক্ষত্রের খুঁটিনাটি জানার আগ্রহে উদগ্রীব বিজ্ঞানীরা।
বিস্তারিত

গুগল সার্চে শীর্ষ সাবিলা নূর দশে নায়িকা বুবলী

প্রতিবছরের মতো এবারও গুগল তাদের সার্চ ইঞ্জিনে অনুসন্ধানকৃত বাংলাদেশের শীর্ষ ব্যক্তিদের নাম প্রকাশ করেছে। যেখানে শীর্ষ দশে জায়গা করে নিয়েছেন চিত্রনায়িকা শবনম ইয়াসমিন বুবলী। গুগল সার্চে বাংলাদেশি নায়িকাদের মধ্যে একমাত্র তিনিই জায়গা পেয়েছেন।

২০১৭ সালে গুগলে সর্বাধিক অনুসন্ধাকৃত ১০ জনের মধ্যে বুবলী রয়েছেন ৯ নম্বরে। তবে গুগল ট্রেন্ডিংয়ে পিপল তালিকায় সব বিভাগের শীর্ষে রয়েছেন ছোট পর্দার অভিনেত্রী সাবিলা নূর। দুই নম্বরে রয়েছেন একজন পর্ন তারকা। এছাড়া সম্মিলিত তালিকায় তাসকিন আহমেদের স্থান রয়েছে ৩ নম্বরে। এরপরে চার নম্বরে রয়েছেন ঢাকাই ছবির সুপারস্টার শাকিব খান। জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিম আছেন পাঁচ নম্বরে। 
সার্চ ট্রেন্ডে জায়গা করে নিয়েছেন মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল তিনি আছেন ছয়ে। তারপর সাত নম্বরে আছেন ক্রিকেট তারকা মাশরাফি বিন মুর্তজা।
আটে বাংলাদেশি ইউটিউবার তৌহিদ আফ্রিদি। নয়ে বুবলী ও দশম স্থানে সংগীতশিল্পী আতিফ আসলাম।
প্রসঙ্গত, মার্কিন সার্চ জায়ান্ট গুগল প্রতিবছর তাদের সার্চ ইঞ্জিনে অনুসন্ধানকৃত বিষয়গুলোকে বছর শেষে ট্রেন্ডিং হিসেবে প্রকাশ করে। এ বছরে প্রকাশিত তালিকা থেকে পিপল তালিকায় দেখা গেছে এসব তথ্য।

বিস্তারিত

গুগলের ‘ফাইলস গো’

ঢাকা: গুগল ‘ফাইলস গো’ নামে নতুন একটি অ্যাপ নিয়ে এসেছে। এই অ্যাপের মাধ্যমে খুব সহজে দ্রুততম সময়ে ফাইল খুঁজে বের করা, ডিলিট করা বা  মুছে ফেলা এবং তা অন্যদের সাথে শেয়ার করা যাবে। বিশ্বব্যাপী আজ থেকে গুগল প্লে স্টোরে ‘ফাইলস গো’ অ্যাপটি পাওয়া যাবে। তবে এই অ্যাপ ডাউনলোড করতে হলে অ্যান্ড্রয়েড (ললিপপ) বা এর চেয়ে বেশি ক্ষমতাসম্পন্ন অপারেটিং সিস্টেমের মোবাইল ফোন থাকতে হবে।
 একই সাথে গুগল ঘোষণা করেছে যে শিঘ্রই বাজারে আসার অপেক্ষায় থাকা অ্যান্ড্রয়েড ওরিও  মোবাইল ফোনেও ‘ফাইলস গো’ নামের অ্যাপটি ব্যবহার করা যাবে। নতুন এই স্মার্টফোন বিশ্ববাজারে আসবে আগামী ২০১৮ সনের শেষের দিকে। এছাড়া নকিয়া মোবাইল, প্যানাসনিক, মাইক্রোম্যাক্স, লাভা, ইনটেক্স. কারবন মোবাইলস এবং জোলো’র মতো কোম্পানিগুলো আগামী ২০১৮ সনে নতুন মডেলের যেসব স্মার্টফোন বাজারে ছাড়বে সেগুলোতে অবশ্য ‘ফাইলস গো’ অ্যাপটি হ্যান্ডসেটেই থাকবে। অর্থাৎ এসব হ্যান্ডসেটে গুগল প্লে স্টোর থেকে ‘ফাইলস গো’ অ্যাপটি ডাউনলোড করতে হবে না। বিশ্বের অনেক অঞ্চলেই মোবাইল ফোনের ফাইল ম্যানেজ করা বা তা ব্যবহার করতে গিয়ে বড় ধরনের সমস্যায় পড়তে হয়। সে জন্য ‘ফাইলস গো’ অ্যাপ চালুর ফলে এখন থেকে এটির সাহায্যে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা খুব সহজেই ও দ্রুত তাঁদের ফাইলগুলো ম্যানেজ করতে অর্থাৎ নিজের পছন্দ ও চাহিদা অনুযায়ী ফাইল ব্যবহার বা তা নিয়ে  কাজ করতে পারবেন। প্রতিদিনই দেশে দেশে লক্ষ-কোটি মানুষের মোবাইল ফোনে অপ্রত্যাশিত ও অনাকাঙিক্ষতভাবে নানা ধরনের ইমেজ বা ছবি, ভিডিও, অ্যাপস, ডকুমেন্টস এবং অফার আসে। এগুলো আসা যেনো আর বন্ধ হয় না। যে কারণে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা কোনটি রাখবেন এবং কোনটি ডিলিট করবেন সেই সিদ্ধান্ত নিতে হয়। চারটি উপায়ে এই সমস্যার সমাধান দেবে ‘ফাইলস গো’ অ্যাপ: ● ফ্রিং আপ স্পেস বা জায়গা খালি করে নেওয়া: ‘ফাইলস গো’ অ্যাপটি অ্যান্ড্রয়েড হ্যান্ডসেট ব্যবহারকারীদের কোন ফাইল রাখবেন, ডিলিট করবেন সেই পরামর্শ বা সমাধান দেয়। সেই সাথে ফাইলস গো অব্যবহৃত বা অনাকাঙিক্ষত ফাইল অ্যাপ, বৃহৎ আকারের ফাইল, ডুপ্লিকেট বা নকল ফাইল এবং লো বা কম রেজুলেশন সম্পন্ন ভিডিও ইত্যাদি ডিলিট করতে বা ফেলে দেওয়ার উপায় জানতে পারবেন অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারকারীরা। ফাইলস গো অ্যাপে গুগলের সর্বাধুনিক মোবাইল ভিশন টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে, যা অনাকাঙিক্ষত ও অপ্রত্যাশিত ফাইল, ইমেজ বা ছবি, ভিডিও, অ্যাপস, ডকুমেন্টস ও অফার ইত্যাদি চিহ্নিত করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। সব মিলিয়ে অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা এই অ্যাপের মাধ্যমে নিজেদের মতো করে ফাইল ম্যানেজ করতে এবং তা ব্যবহার কারতে পারবেন।●  ফাইন্ডিং ফাইলস ফাস্টার বা দ্রুত ফাইল খুঁজে পাওয়া : ফাইলস গো অ্যাপ খুব দ্রুত স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইমেজ বা ছবি, ভিডিও, অ্যাপস, ডকুমেন্টস ও অন্যান্য অফার ইত্যাদি খুঁজে দেয়।● ক্লাউডে ব্যাকআপ ফাইল : কোনো অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী যদি কোনো ফাইল স্থায়ীভাবে ডিলিট করা বা মুছে ফেলা নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে থাকে তখন তার জন্য করণীয় রয়েছে ফাইলস গো অ্যাপে। এ ক্ষেত্রে অ্যান্ড্রয়েড হ্যান্ডসেটে ব্যবহারকারী ওই গ্রাহককে ফাইল মেন্যুতে গিয়ে ওই ফাইল সিলেক্ট বা চিহ্নিত করে তা গুগল ড্রাইভ বা যেকোনো ক্লাউড স্টোরেজ অ্যাপে নিয়ে রাখতে পারবেন।● অফলাইনে ফাইল শেয়ার : ফাইলস গো অ্যাপ ব্যবহারকারীরা নিজেদের অ্যান্ড্রয়েড ফোন থেকে নিকটবর্তী অন্য যেকোনো অ্যান্ড্রয়েড ফোনে সরাসরি ফাইল ট্রান্সফার বা স্থানান্তর করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে ফাইলের গোপনীয়তা বজায় থাকবে এবং ফাইলও খুব দ্রুত গতিতে (১২৫ এমবিপিএস পর্যন্ত) স্থানান্তর হবে। এ জন্য কোনো মোবাইল ডেটা ব্যবহার হবে না। গুগল ফাইলস গো অ্যাপটি পরীক্ষা করতে গিয়ে দেখা গেছে, এটি ব্যবহার করলে প্রথম মাসে একেক জন অ্যান্ড্রয়েড হ্যান্ডসেটে ব্যবহারকারীর গড়ে ১ জিবি (গিগাবাইট) স্পেস সেভ হবে। বিস্তারিত

জরুরি সেবায় ৯৯৯ নম্বরের উদ্বোধন করলেন জয়

ফায়ার সার্ভিস, এ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পুলিশি সেবা ‘৯৯৯’ নম্বরের সম্প্রসারিত ব্যবহারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হলো।
মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এ সেবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক।অনুষ্ঠানে জয় বলেন, উন্নত দেশের মতো নাগরিকরা দেশের যে কোনো প্রান্ত থেকে যে কেউ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ৯৯৯ নম্বরে সম্পূর্ণ ‘টোল ফ্রি’ কল করে জরুরি পুলিশি সেবা, ফায়ার সার্ভিস বা এ্যাম্বুলেন্স সেবা নিতে পারবেন। কেউ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সহায়তা চাইলে সার্ভিসের প্রশিক্ষিত এজেন্টরা জরুরি মুহূর্তে মানুষের প্রয়োজন অনুযায়ী ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ বা এ্যাম্বুলেন্স সেবা প্রদানকারীর সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেবেন।তিনি বলেন, এই সেবার কারিগরি ও প্রযুক্তিগত কাঠামো যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবহৃত-৯১১, যুক্তরাজ্যে ব্যবহৃত-৯৯৯ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নে ব্যবহৃত-১১২’র আদলে তৈরি করা হয়েছে।দেশের বিপুল জনগোষ্ঠীর জরুরি সেবা নিশ্চিত করতে কল সেন্টারটি সার্বক্ষণিক কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। এরইমধ্যে এই কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দেশের ৬৪ জেলায় ৯৯৯-এর ব্যবহার, প্রচার ও কমিউনিটি সেফটি এওয়ারনেস কর্মশালা সম্পন্ন করা হয়েছে বলেও জানানো হয়। বিস্তারিত

শপ আপের নতুন এ্রাড প্ল্যাটফর্ম উদ্বোধন

ফেইসবুক ব্যবহার করে যেসব ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা ব্যবসা করেন তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং এর সুবিধার জন্য শপ-আপ একটি নতুন প্ল্যাটফর্ম তৈরী করেছে। এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা সহজেই বিকাশের মাধ্যেমে তাদের টার্গেটেড অ্যাড দিতে পারবেন এবং এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে প্রমোশন করালে যেকোনো শপ আগের চেয়ে বেশি সেলস করতে সক্ষম হতে পারে।
 সম্প্রতি ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে এই প্ল্যাটফর্মটি উদ্বোধন করার সময় উপস্থিত ছিলেন ফেইসবুকের প্রতিনিধিগণ এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী মহোদয় জুনাইদ আহমেদ পলক। মাননীয় তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী শপ-আপের এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন এতে ফেইসবুক এর ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা অনেক লাভবান হবেন।  
বিস্তারিত

শপ আপের নতুন এ্রাড প্ল্যাটফর্ম উদ্বোধন

ফেইসবুক ব্যবহার করে যেসব ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা ব্যবসা করেন তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং এর সুবিধার জন্য শপ-আপ একটি নতুন প্ল্যাটফর্ম তৈরী করেছে। এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা সহজেই বিকাশের মাধ্যেমে তাদের টার্গেটেড অ্যাড দিতে পারবেন এবং এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে প্রমোশন করালে যেকোনো শপ আগের চেয়ে বেশি সেলস করতে সক্ষম হতে পারে।
 সম্প্রতি ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে এই প্ল্যাটফর্মটি উদ্বোধন করার সময় উপস্থিত ছিলেন ফেইসবুকের প্রতিনিধিগণ এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী মহোদয় জুনাইদ আহমেদ পলক। মাননীয় তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী শপ-আপের এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন এতে ফেইসবুক এর ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা অনেক লাভবান হবেন।  
বিস্তারিত

ওয়ালটন প্রযুক্তি পণ্য প্রশংসা করলেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা: তথ্যপ্রযুক্তি মেলা ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড’-এ ওয়ালটন স্টল পরিদর্শন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্প্রতি রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দেশের তথ্যপ্রযুক্তির সবচেয়ে বড় এই মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি দেশে তৈরি ওয়ালটনের প্রযুক্তি পণ্যের প্রশংসা করেন।
 প্রধানমন্ত্রীর পরিদর্শনের সময় উপস্থিত ওয়ালটনের কর্মকর্তারা জানান, শেখ হাসিনা প্রথমে ওয়ালটনের কার্যক্রম নিয়ে নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্র উপভোগ করেন। এরপর গাজীপুরের চন্দ্রায় অবস্থিত ওয়ালটন হাই-টেক এবং ডিজি-টেক ইন্ড্রাস্ট্রিজ লিমিটেডের উৎপাদন কার্যক্রম ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় সরাসরি পর্যবেক্ষণ করেন। তিনি ওয়ালটনের মাদারবোর্ড, কম্পিউটার, মোবাইল ফোন, কম্প্রেসর ইত্যাদির উৎপাদন প্রক্রিয়া দেখে মুগ্ধ হন।প্রধানমন্ত্রী ওয়ালটনের তৈরি একটি পিসিবি (প্রিন্টেড সার্কিট বোর্ড) হাতে নিয়ে পর্যবেক্ষণ করেন। ওয়ালটনের একটি ল্যাপটপও তিনি হাতে নিয়ে দেখেন। এসময় বাংলাদেশে তৈরি প্রথম স্মার্টফোন দেখানো হয় প্রধানমন্ত্রীকে। তিনি দেশীয় শিল্পের বিকাশ ও অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন। স্টলে উপস্থিত ওয়ালটনের কর্মকর্তারা জানান, সেসময় প্রধানমন্ত্রী তাদের জানিয়েছেন- তিনি নিজে ওয়ালটনের পণ্য ব্যবহার করেন এবং দেশীয় পণ্য ব্যবহারে অন্যদের উৎসাহিত করেন। পরিদর্শনকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, টেলিযোগাযোগ ও আইসিটি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ইমরান আহমেদ, আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী এবং বাংলাদেশ সফটওয়্যার ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) সভাপতি ও বিজয় সফটওয়্যারের উদ্ভাবক মোস্তফা জব্বারসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। ওয়ালটনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন হাইটেক ইন্ড্রাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এসএম শামসুল আলম, ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ড্রাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এসএম রেজাউল আলম এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএম মঞ্জুরুল আলমসহ অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।উল্লেখ্য, কয়েকটি আইটি সংগঠনের সহযোগিতায় বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি বিভাগ এবং বেসিসের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড। চার দিনব্যাপী এই আয়োজনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে- ‘রেডি ফর টুমরো’। পঞ্চমবারের মতো অনুষ্ঠিত দেশের সবচেয়ে বড় এই তথ্যপ্রযুক্তির মেলায় অংশ নিয়েছে ওয়ালটন।
বিস্তারিত

১৮ বছর হর্ন না বাজিয়ে পুরস্কার পেলেন চালক

রাস্তায় বের হলে প্রতিনিয়ত শুনতে হয় গাড়ির কর্কশ হর্ন। গাড়ি চালকরা প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে হর্ন বাজিয়ে কানের বারোটা বাজিয়ে দেন। বিশেষ করে শহরে যাদের বসবাস  ব্যাপারটির সঙ্গে তারা খুব ভালোভাবেই পরিচিত।

অথচ গত ১৮ বছর গাড়ি চালিয়ে এক বারো হর্ন বাজাননি এক ব্যক্তি। কিন্তু তিনি গাড়ি চালিয়েছেন শহরের বিভিন্ন অলি-গলিতে। অনেকে শুনলে হয়তো বলেই ফেলবেন- দূর এসব বানানো গল্প। এটা কী করে সম্ভব?
তবে এই অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন কলকাতার গাড়িচালক দীপক দাস। এমন তাক লাগানো কর্মের জন্য তিনি পেয়েছেন ‘কলকাতা মানুষ সম্মান পুরস্কার।’ তার গাড়িতে শুধুমাত্র সাধারণ যাত্রী নয়, বিখ্যাত তবলা বাদক পণ্ডিত তন্ময় বোস, গিটারিস্ট কুণালসহ একাধিক নামকরা ব্যক্তি তার গাড়িতে চড়েছেন। তারা লক্ষ্য করেছেন, দীপক গাড়ির হর্ন বাজান না। শব্দ দূষণ কমাতে তার এই পদক্ষেপ। দীপকের এই কৃতিত্বকে সম্মান জানিয়েছে মানুষ মেলা।
এ প্রসঙ্গে দীপক দাসের ভাবনা চলুন তার মুখ থেকেই শুনি: ‘‘আমি মনে করি, প্রত্যেক চালকের উচিৎ ‘হর্ন পলিসি’ মেনে চলা। তা হলেই গাড়ি চালানোর সময় অনেক বেশি মনোযোগী ও সচেতন হওয়া যায়। এটা করা অসম্ভব নয়। কঠিনও নয়। দূরত্ব বজায়, স্পিড ঠিক রাখা ও সময় জ্ঞান ঠিকঠাক থাকলে কাউকে হর্ন বাজাতে হয় না।’’
কখনো কি যাত্রীরা হর্ন বাজানোর কথা বলেনি? এমন প্রশ্নের উত্তরে দীপক বলেন, ‘বলে, কিন্তু আমি তাদের বলি, এটা কোনো সমস্যার সমাধান হতে পারে না।’
দীপকের গাড়িতে একটি প্ল্যাকার্ড লাগানো থাকে। যেখানে লেখা রয়েছে, ‘হর্ন ইজ অ্যা কনসেপ্ট। আই কেয়ার ফর ইয়োর হার্ট।’ এ প্রসঙ্গে দীপক বলেন, ‘কোনো কিছু অর্জন করা যাবে না বা খুব কঠিন কাজ এটা ভাবা সম্পূর্ণ ভুল। আমি মনে করি, এ জন্য প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক সহযোগিতারও প্রয়োজন আছে।’
প্রসঙ্গত, মানুষ মেলার এটা দ্বিতীয় বছর। নিজ চেষ্টায় যারা সমাজে অবদান রাখছেন তাদের এই সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্মান জানানো হয়। মানুষ মেলার অন্যতম উদ্যোক্তা সুদীপা সরকার বলেন, যারা দীপক দাসের গাড়ি ভাড়া করেছেন, কিংবা চড়েছেন তারা সকলেই তার এই অসামান্য কৃতিত্বের কথা বলেছেন। ফলে তিনিই এই পুরস্কারের দাবিদার। গত বছর এই সম্মান ঝুলিতে পুরেছেন বীণা উপাধ্যায়ক। নিজের আর্থিক অস্বচ্ছলতা সত্ত্বেও রাস্তার পশুদের উদ্ধার করে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করায় তাকে এই পুরস্কার দেয়া হয়। বিস্তারিত

  • সিলেটে মিডল্যান্ড ব্যাংক
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি ধোঁকাবাজি: আরসা
  • মাংস এবং উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত পানীয় ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়
  • ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?
  • প্রকাশ্যে চুমু, ‘দেশি গার্ল’-এর বিদেশি রোম্যান্স
  • নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি তিন খানের
  • ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!
  • আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব
  • নেতাকর্মীদের জেলে রেখে নির্বাচন হবে না: ফখরুল
  • সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ভিত্তিতেই গ্রেফতার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হচ্ছে না কাল
  • সিলেটের দক্ষিন সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৪
  • সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার
  • মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজন গ্রেফতার
  • যুবলীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সমাবেশে অর্থমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ
  • গোয়াইনঘাট থানার আসামী উপশহরে গ্রেফতার
  • হবিগঞ্জে জমির আইল কাটা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০
  • সিলেট জেলা বিএনপির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
  • কোম্পানীগঞ্জে পরীক্ষার্থীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন॥
  • দক্ষিণ সুরমায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার
  • মুসলমানরাই সবচেয়ে বেশি সন্ত্রাসের শিকার: বান কি মুন   ৫০৬২৬
  • মেয়র কালামের পায়ের নিচে ওসি আতাউর শার্ট খুলে লিনডাউন,তারপর জুতো পেটার প্রস্তাব   ১৪৬৯৫
  • ছলনাময়ী নারীদের চেনার উপায়   ১৩৭২০
  • জুমার নামাজ ছুটে গেলে কী করবেন?   ১১৬৩৭
  • ​চিনা কোম্পানিকে কাজ দিতে প্রতিমন্ত্রী তারানার স্বাক্ষর জাল   ৯৩৪৪
  • ঋণখেলাপি নই-হুন্ডি ব্যবসায়িও নই,সম্পত্তি নিলামের খবর অপপ্রচার-নাসির   ৮৩৩৭
  • জেনে নিন ছুলি দূর করতে কিছু ঘরোয়া উপায়   ৮৩০৬
  • ডিমের পর স্বয়ংসম্পূর্ণতার পথে সোনালি মুরগি   ৮২৩৮
  • মুসাফির কাকে বলে? মুসাফিরের রোযা ভঙ্গ করলে   ৮২৩০
  • গরুর দুধের অসাধারণ কয়েকটি গুণ   ৮০৩৩
  • খতমে ইউনুস নামে সামাজে চলে আসা জালিয়াতী   ৭১২৭
  • মুঘল সম্রাটদের দিনযাপন   ৬৬০৮
  • চিত্রনায়িকা সাহারার সেক্স ভিডিও ফাঁস!   ৬০০৯
  • হযরত শাহ্‌ জালাল ইয়েমেনী (রাঃ)-এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনী   ৫৯১২
  • শিশুর কানে আজান দেবে কে?   ৫৫৪২
  • চিকিৎসায় দ্রুত সরকারি সহযোগিতা চান খাদিজার বাবা মাসুক মিয়া   ৫৩৩৯
  • কামরূপ-কামাখ্যা : নারী শাসিত যাদুর ভূ-খন্ড   ৫৩০১
  • প্রশ্নব্যাংকে প্রশ্ন, স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাছাই হয়ে পরীক্ষা   ৫২৫৬
  • ফুলবাড়ির বশর চেীধুরী আজ ইন্তেকাল করেছেন   ৫২৫৩
  • ম,আ,মুক্তাদিরের ছেলে রাহাত লন্ডনে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে   ৫০৭৫
  • সাম্প্রতিক আরো খবর

  • ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?
  • স্মার্ট কার্ড পেলেন অর্থমন্ত্রী ও পরিবারের সদস্যরা
  • রোবট তৈরি করা শিখল শিশুরা
  • মাঠে-ঘাটে প্রোগ্রামিং
  • ছুটির দিনে জমজমাট স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা
  • ফেসবুকে রিমনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ
  • টাইম মেশিন ক্যামেরা!
  • গ্রামীণফোনের যত অনিয়ম
  • অনলাইনে আয় করা যাবে যেসব সাইট থেকে
  • হারিয়ে যেতে পারে চকোলেট
  • দুর্ঘটনায় পড়লে অ্যাম্বুলেন্স ডেকে আনবে হেলমেট!
  • ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলতেও এবার আধার?
  • লুকিয়ে রাখুন গোপন ভিডিও, ‘দুষ্টু’ অ্যাপের খোঁজ
  • ই-ফাইলিংয়ে শ্রষ্ঠেত্বরে সম্মাননা পলে ডাইফ
  • মধ্যম বাজেটে ৪জিবি র‌্যামের সেরা ৬টি স্মার্টফোন
  • ওয়াই সিরিজের নতুন স্মার্টফোন আনল হুয়াওয়ে
  • ‘রিলেশনশিপ’ সংক্রান্ত যে ১০টি প্রশ্ন সব থেকে সার্চ হয় গুগলে
  • অবিকল সৌরমণ্ডল ৮ গ্রহ নিয়ে নক্ষত্রের সংসার
  • গুগল সার্চে শীর্ষ সাবিলা নূর দশে নায়িকা বুবলী
  • গুগলের ‘ফাইলস গো’
  • জরুরি সেবায় ৯৯৯ নম্বরের উদ্বোধন করলেন জয়
  • শপ আপের নতুন এ্রাড প্ল্যাটফর্ম উদ্বোধন
  • শপ আপের নতুন এ্রাড প্ল্যাটফর্ম উদ্বোধন
  • ওয়ালটন প্রযুক্তি পণ্য প্রশংসা করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • ১৮ বছর হর্ন না বাজিয়ে পুরস্কার পেলেন চালক