সর্বশেষ খবর

   সিলেটে মিডল্যান্ড ব্যাংক    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি ধোঁকাবাজি: আরসা    মাংস এবং উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত পানীয় ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়    ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?    প্রকাশ্যে চুমু, ‘দেশি গার্ল’-এর বিদেশি রোম্যান্স    নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি তিন খানের    ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!    আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব    নেতাকর্মীদের জেলে রেখে নির্বাচন হবে না: ফখরুল    সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ভিত্তিতেই গ্রেফতার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হচ্ছে না কাল    সিলেটের দক্ষিন সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৪    সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার    মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজন গ্রেফতার    যুবলীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সমাবেশে অর্থমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ    গোয়াইনঘাট থানার আসামী উপশহরে গ্রেফতার    হবিগঞ্জে জমির আইল কাটা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০    সিলেট জেলা বিএনপির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত    কোম্পানীগঞ্জে পরীক্ষার্থীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন॥    দক্ষিণ সুরমায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার


খবর - ধর্ম

আখেরি মোনাজাতে দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা শেষ

ঢাকা: আখেরি মোনাজাতে দেশ ও মুসলিম উম্মাহর শান্তি, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনার মধ্য দিয়ে গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগতীরের বিশ্ব ইজতেমা এবারের মতো শেষ হয়েছে। আখেরি মোনাজাতে লাখ লাখ মুসল্লি দুই হাত তুলে আল্লাহর দরবারে সৎ ও ন্যায়ের পথে থেকে ইসলামের মর্মবাণী অনুসরণের জন্য আল্লাহর করুণা প্রার্থনা করেছেন। এ সময় তাঁরা চোখের জলে জাহানের সব মানুষের জন্য মঙ্গল কামনা করেন।
 রোববার সকাল সাড়ে ১০টার কিছু আগে আখেরি মোনাজাত শুরু হয়। ইজতেমা ময়দানে বিদেশি নিবাসের পূর্বপাশে বিশেষভাবে স্থাপিত মঞ্চ থেকে এ মোনাজাত পরিচালনা করা হয়। এর আগে অনুষ্ঠিত হয় হেদায়েতি বয়ান। ভারতের মাওলানা সাদ কয়েক বছর ধরে ইজতেমায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করলেও এবার তাঁর পরিবর্তে বিস্তারিত

আজ আখেরি মোনাজাত

ঢাকা: ইজতেমা প্রাঙ্গণে তিল ধারণের জায়গা নেই। তারপরও টঙ্গীর তুরাগ তীর অভিমুখে মুসল্লিরা আসছেন স্রোতের মতো। আজ আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হবে তাবলিগ জামাত আয়োজিত ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। ইজতেমা ময়দানের বিদেশি নিবাসের পূর্বপার্শ্বে বিশেষভাবে স্থাপিত মোনাজাত মঞ্চ থেকে সকাল ১১টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে শুরু হবে আখেরি মোনাজাত। এ মোনাজাতে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ লাখ মুসল্লি অংশ নিবেন বলে ইজতেমার আয়োজকরা ধারণা করছেন। মোনাজাত পরিচালনা করবেন কাকরাইল মসজিদের ইমাম মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ যোবায়ের। তিনি মোনাজাত করবেন বাংলায়। মোনাজাতের আগে হেদায়াতি বয়ানও হবে বাংলায়। বিশ্ব ইজতেমার ইতিহাসে এবারই প্রথম বাংলাতে হেদায়াতি বয়ান ও মোনাজাত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ইজতেমা সংশ্লিষ্টরা।
 বিশ্ব ইজতেমার মুরুব্বি মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, শুক্রবার রাতে তাবলিগ জামাতের মুরব্বিদের এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, এবার আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ যোবায়ের। মোনাজাতের আগে হেদায়াতি বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল মতিন। সাধারণত ইজতেমায় হেদায়াতি বয়ান ও আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন দিল্লি মারকাজ থেকে আসা মুরব্বিরা। দীর্ঘদিন ইজতেমায় আখেরি   মোনাজাত পরিচালনা করেছেন দিল্লির মাওলানা যোবায়েরুল হাসান। ২০১৪ সনে তার ইন্তেকালের পর থেকে মোনাজাত পরিচালনা করে আসছেন দিল্লির মাওলানা সাদ কান্ধলভী। তবে এবার তাকে নিয়ে বিতর্ক চরম আকার ধারণ করে। আলেমদের প্রবল বিরোধিতার মুখে তিনি এবার ইজতেমায় অংশ নিতে পারেননি। গতকাল শনিবার দুপুরে জেট এয়ারের একটি ফ্লাইটে তিনি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দিল্লির উদ্দেশ্যে ফিরে যান। বিশেষ ব্যবস্থায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঢাকা থেকে প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতে শরিক হবেন বলে আইন-শৃংখলা বাহিনীর দায়িত্বশীল একটি সূত্র থেকে জানা গেছে। ৪ দিন বিরতির পর আগামী ১৯ জানুয়ারি থেকে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে। আর ২১ জানুয়ারি এ পর্বের আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হবে বিশ্ব ইজতেমা। আখেরি মোনাজাতের প্রস্তুতি আখেরি মোনাজাতে অংশগ্রহণ সহজতর করার লক্ষ্যে জেলা তথ্য অফিস ও গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের উদ্যোগে চেরাগ আলী মার্কেট থেকে উত্তরা আব্দুল্লাপুর পর্যন্ত মহাসড়ক ব্যতীত শাখা সড়ক ও অলিগলিতে মাইক সংযোগের ব্যবস্থা করেছে। ইজতেমা মাঠের কট্রোল রুমের আশপাশের এলাকা, মন্নু রোড, স্টেশন রোড, বাটা ফ্যাক্টরির অভ্যন্তর, হোন্ডা ফ্যাক্টরির অভ্যন্তর, টেলিফোন শিল্প সংস্থার মাঠের পুলিশ কন্ট্রোল রুম এলাকাসহ ১৬টি পয়েন্টে মাইক সংযোগের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঢাকা গণযোগাযোগ অধিদপ্তর উত্তরা আবদুল্লাপুরসহ বেশ কয়েকটি পয়েন্টে মাইক সংযোগের ব্যবস্থা করেছে বলে জানিয়েছেন  জেলা তথ্য অফিসার এসএম রাহাত হাসনাত। আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ে চট্টগ্রাম, সিলেট, আখাউড়া, কুমিল্লা ও ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন রেল রুটে বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আখেরি মোনাজাতের আগে এবং পরে সব ট্রেন টঙ্গী জংশন স্টেশনে যাত্রা বিরতি করবে বলে জানিয়েছেন টঙ্গী রেল স্টেশন কর্তৃপক্ষ। ইজতেমা সূত্র জানায়, প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতের জন্য আজ ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক ও টঙ্গী-কালীগঞ্জ সড়কে বেলা ১২টা পর্যন্ত যানচলাচল বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া যানচলাচল বন্ধের কারণে টঙ্গী ও আশপাশের এলাকায় কলকারখনার মালিক কর্তৃপক্ষ বিশ্ব ইজতেমার জন্য ১ দিন কারখানা বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। হাজার হাজার শ্রমিকরা যাতে করে আখেরি মোনাজাতে শরীক হতে পারে সে জন্য এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। একজনের মৃত্যুইজতেমায় আগত মুসল্লিদের মধ্যে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত গত দুদিনে মোট ২২ জনকে টঙ্গী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে সাড়ে তিন হাজার মুসল্লিকে। গুরুতর অসুস্থ ৭ জনকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। এ ছাড়া বিশ্ব ইজতেমায় লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চরবাইতা গ্রামের মোঃ রফিকুল ইসলাম (৫০) নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। তিনি শুক্রবার রাত ১১টার দিকে হঠাত্ অসুস্থ হয়ে পড়েন।  ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা ও গ্রেফতার গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও ইজতেমা মাঠে স্থাপিত জেলা প্রশাসকের কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এডিসি (রাজস্ব) মোঃ মাহমুদ হাসান জানান, শনিবার পর্যন্ত ৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় ইজতেমা ময়দানের আশপাশে গড়ে ওঠা দুটি মিষ্টির দোকানে অভিযান পরিচালনা করে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। 
  
বিস্তারিত

ঢাকা ছেড়েছেন মাওলানা সাদ

দিল্লির নিজামুদ্দিন তাবলিগের মুরব্বি মাওলানা সা’দ কান্ধলভি ঢাকা ত্যাগ করেছেন। আজ শনিবার সকাল ১১টা ৪৫ মিনিটে জেট এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে সফরসঙ্গীদের নিয়ে ঢাকা ছাড়েন মাওলানা সা’দ।তাবলিগ ও বিমানবন্দর সূত্রে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

প্রসঙ্গত, টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দেওয়ার উদ্দেশ্যে বুধবার দুপুরে তিনি ঢাকায় আসেন। সেদিন তার আগমনের বিরোধিতা করে বিমানবন্দর ও আশপাশের এলাকায় বিক্ষোভ করেন সা’দ বিরোধী তাবলিগকর্মী ও কওমি আলেমরা। এই কয়েকদিন মাওলানা সা’দ রাজধানীর কাকরাইল মসজিদে অবস্থান করেছেন। শুক্রবার তিনি এই মসজিদে জুমার নামাজে বয়ান করেন। বিরোধিতার মুখে বিশ্ব ইজতেমায় অংশ না নিয়েই ফিরে গেলেন তিনি। বিস্তারিত

বিশ্ব ইজতেমা প্রথম পর্ব: কোরআন-হাদিসের আলোকে বয়ান অব্যাহত

দেশ-বিদেশের লাখ লাখ মুসল্লির আল্লাহু আকবর ধ্বনিতে মুখর গাজীপুরের বিশ্ব ইজতেমা ময়দান।

৫৩ তম এই ইজতেমার প্রথম পর্বের দ্বিতীয় দিন আজ শনিবার। তুরাগ নদীর তীরে ইজতেমা মাঠে লাখ লাখ মুসল্লির উপস্থিতিতে চলছে পবিত্র কোরআন-হাদিসের আলোকে বয়ান।
জানা যায়, শনিবার বাদ ফজর বয়ান করেন বাংলাদেশের মাওলানা মো. নূরুর রহমান। এছাড়া দ্বিতীয় দিন বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলানা ড. মো. জাহাদ, মাওলানা ফারুক হোসেন, মাওলানা মো. নূরুর রহমান। উত্তরের শৈত্যপ্রবাহ আর কনকনে শীত উপেক্ষা করে লাখো মুসল্লি  বয়ান, তাশকিল, তাসবিহ-তাহলিলে কাটাচ্ছেন। তবে তীব্র শীতের কারণে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া মুসল্লিদের প্যান্ডেলের বাইরে যেতে দেখা যায়নি। শীত বস্ত্র মুড়ি দিয়ে ইজতেমায়ী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন তারা।
ইজতেমার মুরব্বীদের সূত্রে জানা যায়, আজ দ্বিতীয় দিনে হেদায়েত ও তাশকিলের বয়ান হবে। কাল আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হবে। আগামী ১৯ জানুয়ারি শুরু হবে ৩ দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। দ্বিতীয় পর্বে যোগ দেবেন দেশের ১৬টি জেলার মুসল্লিরা। ইজতেমাকে ঘিরে ৮ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিস্তারিত

সোমবার বড়দিন, উদযাপনের প্রস্তুতি সম্পন্ন

খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শুভ বড়দিন আগামীকাল সোমবার। রাজধানীসহ সারা দেশে যথাযোগ্য মর্যাদায় বড়দিন উদযাপনের লক্ষ্যে এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশের খ্রিষ্টান ধর্মানুসারীরাও যথাযথ ধর্মীয় আচার, আনন্দ-উৎসব ও প্রার্থনার মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করবেন।
আগামীকাল সোমবার সরকারি ছুটির দিন। দিনটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বাণী দিয়েছেন।
বাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশ। আবহমানকাল ধরে এ দেশে সব ধর্মের মানুষ পারস্পরিক ভালোবাসা ও সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ। বিদ্যমান সম্প্রীতির এই সুমহান ঐতিহ্যকে আরো সুদৃঢ় করতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী এ পুণ্য দিন উপলক্ষে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়সহ জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকলকে ঔদার্য এবং মানবতার মহান ব্রতে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কল্যাণ ও উন্নয়নে এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানান।
 


তিনি আশা করেন, বড়দিন দেশের খ্রিষ্টান ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিরাজমান সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতিকে আরো সুদৃঢ় করবে।
বাংলাদেশ খ্রিষ্টান অ্যাসোসিয়েশনের দপ্তর সম্পাদক স্বপন রোজারিও জানিয়েছেন, আজ রাতে গির্জায় বিশেষ প্রার্থনা এবং আগামীকাল সকাল থেকে বড়দিনের প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হবে।
দিনটি উপলক্ষে অনেক খ্রিষ্টান পরিবারে কেক তৈরি হবে, থাকবে বিশেষ খাবারের আয়োজন। দেশের অনেক অঞ্চলে কীর্তনের পাশাপাশি ধর্মীয় গানের আসর বসবে। রাজধানীর তেজগাঁও ক্যাথলিক গির্জায় বড়দিনের বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হয়েছে। গির্জা ও এর আশপাশে রঙিন বাতি জ্বালানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রচুর জরি লাগিয়ে গির্জার ভেতর সুসজ্জিত করা হয়েছে। ভেতরে সাজানো হয়েছে ক্রিসমাস ট্রি।
বড়দিন উপলক্ষে গির্জার মূল ফটকের বাইরে বসে মেলা। মেলার দোকানগুলোতে বড়দিন ও ইংরেজি নতুন বছরের কার্ড, নানা রঙের মোমবাতি, সান্তা ক্লজের টুপি, জপমালা, ক্রিসমাস ট্রি, যিশু-মেরি-যোসেফের মূর্তিসহ নানা জিনিস বিক্রি হতে দেখা যায়।
বড়দিন উপলক্ষে বাংলাদেশ খ্রিষ্টান অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট নির্মল রোজারিও এবং মহাসচিব হেমন্ত আই কোড়াইয়া আজ এক যৌথ বিবৃতিতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোকজনকে প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বড়দিন ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে সবার জন্য আনন্দের বার্তা বয়ে আনুক, এ কামনা করেছেন তারা।
 এদিকে বাংলাদেশ ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদের নেতারা পৃথক বার্তায় খ্রিষ্টান সম্প্রদায়সহ সবাইকে বড়দিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, এই দিনে খ্রিষ্টান ধর্মের প্রবর্তক যিশু খ্রিষ্ট বেথেলহেমে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, সৃষ্টিকর্তার মহিমা প্রচার এবং মানবজাতিকে সত্য ও ন্যায়ের পথে পরিচালিত করতে প্রভু যিশুর এই ধরায় আগমন ঘটেছিল। বিস্তারিত

‘বাবরি মসজিদ’ ভাঙা গড়ার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

রামায়ণ-খ্যাত অযোধ্যা শহর ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যের ফৈজাবাদ জেলায় অবস্থিত৷ তারই কাছে রামকোট পর্বত৷ ১৫২৮ সনে সেখানে সম্রাট বাবরের আদেশে একটি মসজিদ নির্মাণ করা হয়, যে কারণে জনমুখে মসজিদটির নাম হয়ে যায় বাবরি মসজিদ৷ আবার এও শোনা যায়, গত শতাব্দীর চল্লিশের দশকের আগে এই মসজিদ ‘মসজিদ-ই-জন্মস্থান’ বলেও পরিচিত ছিল৷
 সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিবাবরি মসজিদ নিয়ে সংঘাত ঘটেছে বার বার৷ অথচ ফৈজাবাদ জেলার ১৯০৫ সনের গ্যাজেটিয়ার অনুযায়ী ১৮৫২ সন পর্যন্ত হিন্দু এবং মুসলমান, দুই সম্প্রদায়ই সংশ্লিষ্ট ভবনটিতে প্রার্থনা ও পূজা করেছে৷ সংঘাতের সূত্রপাতপ্রথমবারের মতো হিন্দু মুসলমানের মধ্যে সংঘাতের সূত্রপাত হয় ১৮৫৯ সনে ব্রিটিশ সরকার দেয়াল দিয়ে হিন্দু আর মুসলমানদের প্রার্থনার স্থান আলাদা করে দেয়ার পরে৷ হিন্দু সম্প্রদায়ের দাবিআওয়াধ অঞ্চলের বাবর-নিযুক্ত প্রশাসক ছিলেন মির বকশি৷ তিনি একটি প্রাচীনতর রাম মন্দির বিনষ্ট করে তার জায়গায় মসজিদটি নির্মাণ করেন বলে হিন্দু সম্প্রদায়ের দাবি। বেআইনিভাবে মূর্তি স্থাপন১৯৪৯ সনের ২৩শে ডিসেম্বর – বেআইনিভাবে বাবরি মসজিদের অভ্যন্তরে রাম-সীতার মূর্তি স্থাপন করা হয়৷ নেহরুর ঐতিহাসিক পদক্ষেপরাম-সীতার মূর্তি স্থাপনের পর ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী গোবিন্দ বল্লভ পন্থকে চিঠি লিখে হিন্দু দেব-দেবীদের মূর্তি অপসারণ করার নির্দেশ দেন, তিনি বলেন, “ওখানে একটি বিপজ্জনক দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করা হচ্ছে৷” মসজিদের তালা খোলার আন্দোলন১৯৮৪ সনে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ মসজিদের তালা খুলে দেওয়ার দাবিতে ব্যাপক আন্দোলন শুরু করে৷ ১৯৮৫ সনে রাজীব গান্ধীর সরকার ঠিক সেই নির্দেশই দেয়৷ দুই সম্প্রদায় মুখোমুখি অবস্থানেবিশ্ব হিন্দু পরিষদ রাম মন্দির নির্মাণের জন্য একটি কমিটি গঠন করে৷ ১৯৮৬ সনে মসজিদের তালা খুলে সেখানে পূজা করার অনুমতি প্রার্থনা করে হিন্দু পরিষদ৷ অন্যদিকে, মুসলমানরা বাবরি মসজিদ অ্যাকশন কমিটি গঠন করেন৷ ‘রাম রথযাত্রা'’১৯৮৯ সনের নভেম্বরের সাধারণ নির্বাচনের আগে ভিএইচপি বিতর্কিত স্থলটিতে (মন্দিরের) ‘শিলান্যাস’-এর অনুমতি পায়৷ ভারতীয় জনতা পার্টির প্রবীণ নেতা লাল কৃষ্ণ আদভানি ভারতের দক্ষিণতম প্রান্ত থেকে দশ হাজার কিলোমিটার দূরত্বের ‘রাম রথযাত্রা'’ শুরু করেন৷১৯৯২ সনের ৬ই ডিসেম্বর এল কে আডভানি, মুরলি মনোহর যোশি, বিনয় কাটিয়াসহ অন্যান্য হিন্দুবাদী নেতারা মসজিদ প্রাঙ্গনে পৌঁছান৷ ভারতীয় জনতা পার্টি বিজেপি, শিব সেনা আর বিজেপি নেতাদের আহ্বানে প্রায় দেড় লাখ মানুষ বাবারি মসজিদে হামলা চালায়৷ ছড়িয়ে পড়ে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সমঝোতার উদ্যোগ২০০২ সনে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী দু’পক্ষের সমঝোতার জন্য বিশেষ সেল গঠন করেন৷ বলিউডের সাবেক অভিনেতা শত্রুঘ্ন সিনহাকে হিন্দু ও মুসলমানদের নেতাদের সাথে আলাপ আলোচনা করার দায়িত্ব দেয়া হয়৷ শিলালিপি যা বলেপুরাতাতত্বিক বিভাগ জানায়, মসজিদের ধ্বংসাবশেষে যে সব শিলালিপি আবিষ্কৃত হয়, তা থেকে ধারণা করা হয়, মসজিদের নীচে একটি হিন্দু মন্দির ছিল৷ আবার ‘জৈন সমতা বাহিনী’-এর মতে ধ্বংসপ্রাপ্ত বাবরি মসজিদের নীচে যে মন্দিরটির ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কৃত হয়েছে, সেটি ষষ্ঠ শতাব্দীর একটি জৈন মন্দির৷ বিজেপি দোষীবিশেষ কমিশন ১৭ বছরের তদন্তের পর ২০০৯ সনে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের ঘটনায় প্রতিবেদন জমা দেয়৷ প্রতিবেদনে ভারতীয় জনতা পার্টি বিজেপিকে দোষী দাবি করা হয়৷ এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়২০১০ সনে এলাহাবাদ হাইকোর্ট তার রায়ে জানান, যে স্থান নিয়ে বিবাদ তা হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে ভাগ করে দেয়া উচিত৷ এক তৃতীয়াংশ হিন্দু, এক তৃতীয়াংশ মুসলমান এবং বাকি অংশ নির্মোহী আখড়ায় দেওয়ার রায় দেন৷ রায়ে আরো বলা হয়, মূল যে অংশ নিয়ে বিবাদ তা হিন্দু সম্প্রদায়কে দেয়া হোক৷ ইতিহাসের কলঙ্কিত অধ্যায়ভারতে হিন্দু-মুসলিম সম্পর্কের কণ্টকিত ইতিহাসে বাবরি মসজিদে হামলা একটি ‘কলঙ্কিত অধ্যায়’৷ গুটি কয়েক হিন্দু সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী দিনটিকে সূর্য দিবস বলে আখ্যায়িত করলেও বেশিরভাগ ভারতীয় দিনটিকে ‘কালো দিন’ বলে উল্লেখ করেন৷ অনেকেই বলেন, এই ঘটনায় দেশের অসাম্প্রদায়িক ভাবমূর্তি একেবারে ভূলুন্ঠিত হয়েছিল৷
  বিস্তারিত

আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.): সিলেটসহ সারাদেশে নানা কর্মসূচি

আজ শনিবার মুসলিম উম্মাহর অন্যতম পবিত্র দিন ঈদ-ই মিলাদুন্নবী (সা.)। 

এ উপলক্ষে  সিলেটসহ সারাদেশে আয়োজন করা হয়েছে নানা কর্মসূচি। 
গতকাল শুক্রবার দিনটি পালন উপলক্ষে সোবহানীঘাটস্থ হযরত শাহজালাল দারুছুন্নহা ইয়াকুবিয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে বাদ জুম'আ এক বিশাল র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
আজ শনিবার বাদজোহর এ উপলক্ষে শাহজালাল দরগাহ প্রাঙ্গনে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এক দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।
এছাড়াও নগরীর প্রায় প্রতিটি মসজিদে মহল্লার বিভিন্ন ইসলামী সংগঠনের উদ্যোগেও আলোচনা সভা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।
বিভিন্ন উপজেলা সদর এবং গ্রামাঞ্চলের মসজিদ মাদ্রাসায়ও একই ধরণের কর্মসূচির মাধ্যমে দিনটি পালন করা হচ্ছে।
এদিকে ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে সরকারি, আধা-সরকারি ভবন, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি ভবন ও সশস্ত্র বাহিনীর সব স্থাপনাসমূহে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। জাতীয় পতাকা ও ‘কালিমা তায়্যিবা’ লিখিত ব্যানার ঢাকা মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ ট্রাফিক আইল্যান্ড ও লাইট পোস্টে প্রদর্শন করা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে রাতে সরকারি ভবনসমূহ ও সামরিক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় আলোকসজ্জা করা হবে। সারাদেশে সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, বেসরকারি সংস্থাসমূহে হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর জীবন ও কর্মের উপর আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠান হবে।
বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতার দিবসটির যথাযোগ্য গুরুত্ব তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করবে। শিশু একাডেমি কর্তৃক শিশুদের জন্য বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। দেশের সব হাসপাতাল, কারাগার, সরকারি শিশু সদন, বৃদ্ধ নিবাস, মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন এর ব্যবস্থা করা হবে।
এছাড়া, বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও মিশনসমূহে যথাযথভাবে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) পালন করবে। সারাদেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিশেষ ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হবে।
দিবসটি উপলক্ষে পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বিস্তারিত

সিলেট নগরীর দুটি মসজিদ পুন:নির্মাণে অর্থায়ন করবে তুরস্ক সরকার

মসজিদে নববীর আদলে তুরস্ক সরকারের অর্থায়নে পুন:নির্মিত হবে সিলেট নগরীর নয়াসড়ক ও শেখঘাট জামে মসজিদ। সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর পত্রের প্রেক্ষিতে তুরস্ক সরকার ঐতিহ্যবাহী মসজিদ দুইটির পুন:নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহন করে। এ লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার সকালে মসজিদ দুইটির স্থান পরিদর্শন করেছেন তুরস্কের একটি প্রতিনিধি দল।
পরিদর্শনে আসা তুরস্কের এ প্রতিনিধি দলের প্রধান ঢাকাস্থ তুরস্ক হাইকমিশনের ডেপুটি কো-অর্ডিনেটর শরীফাহ উস্তুর জানান, তুরস্কের প্রকৌশলীদের সহযোগিতায়, তাদের নিজস্ব নকশায় ও নিজস্ব মিস্ত্রি দিয়ে নির্মাণ করা হবে এই দুটি মসজিদ । সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, তুরস্ক সরকারের অর্থায়নে এটিই হবে বাংলাদেশের প্রথম কোন মসজিদ নির্মাণ। পুন:নির্মাণের পর মসজিদ দুইটিতে পুরুষের পাশাপাশি নারী মুসল্লীরা স্বাচ্ছ্যন্দে ইবাদত বন্দেগি করতে পারবেন। এছাড়া দৃষ্টিনন্দন মসজিদগুলো পুন:নির্মাণ কাজ শেষ হলে সবার নজর কাড়বে বলেও মেয়র আশাপ্রকাশ করেন।সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী আরো জানান, সিলেট নগরীর পুরনো মসজিদ হিসেবে নয়াসড়সক ও শেখঘাট জামে মসজিদ পুন:নির্মাণে সহায়তার জন্য সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে তুরস্ক সরকারের কাছে চিঠি লিখা হয়েছিল। তুরস্কের মসজিদের দৃষ্টিনন্দন নকশা ও পরিকল্পনা দিয়ে তাদেরকে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানিয়ে লেখা চিঠির জবাবে দুই সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বৃহস্পতিবার মসজিদ দুইটি পরিদর্শন করে গেছেন।



বিস্তারিত

রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে ব্রিটেন

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য ব্রিটেন কূটনীতিক এবং রাজনৈতিক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন দেশটির আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী পেনি মরডান্ট।
তিনদিনের বাংলাদেশ সফরে মিস মরডান্ট কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন।
বিবিসির সাথে এক সাক্ষাৎকারে তিনি আরো বলছেন রোহিঙ্গাদের সহায়তার জন্য যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের পাশে থাকবে।
রোহিঙ্গা সংকট শুরুর পর থেকে তিন মাস অতিবাহিত হলেও সংকটের দ্রুত সমাধানের কোন লক্ষন দেখা যাচ্ছে না।
সংকট শুরুর কিছুদিন পর থেকেই মিয়ানমার বিশেষ করে দেশটির নেত্রী অং সান সুচি’র উপর আন্তর্জাতিক চাপ বেড়েছে তাতে কোন সন্দেহ নেই।
মিস সু চি’র সাথে ব্রিটেনের সম্পর্ক অনেক পুরেনো। তিনি যখন গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করেছেন তখন অন্য অনেকের মতো ব্রিটেনও তাঁর পাশে ছিল।
কিন্তু বর্তমান বাস্তবতায় রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য মিস সু চিকে ব্রিটেন কতটা প্রভাবিত করতে পারছে?আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জানালেন, সার্বিকভাবে এ সংকট মোকাবেলা জন্য ব্রিটেন তার তরফ থেকে সব চেষ্টাই করছে।.
জাতিসংঘ এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থায় রোহিঙ্গা ইস্যুটি তুলে ধরার জন্য ব্রিটেন অনেক কাজ করেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য ব্রিটেনের তরফ থেকে রাজনৈতিক এবং কূটনৈতিক চাপ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।
“আমি দায়িত্ব গ্রহনের ১৫ দিনের মধ্যে বাংলাদেশ সফরে এসেছি। এর মাধ্যমে বোঝা যায় যে, এ সংকট আমাদের এজেন্ডা থেকে হারিয়ে যাবে না। আমরা বাংলাদেশকে সহায়তা করে যাব এবং কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখবো,” বলেন মিস মরডান্ট। বিস্তারিত

কাবাঘর ও মসজিদে নববিতে ছবি তোলায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ

পবিত্র কাবাঘর ও ইসলামের অন্যতম পবিত্র স্থান মসজিদে নববি এবং এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় পর্যটকদের ছবি তোলার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সৌদি আরব। কারণ কিছুদিন আগে এক ইসরাইলি নাগরিক মসজিদে নববিতে ছবি তুলে তা সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করে।

এ নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ার পর সৌদি কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত নিল।
ডেইলি সাবাহারের খবরে বলা হয়েছে, এ ঘটনায় গত ১২ নভেম্বর দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ সিদ্ধান্ত নেন। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান তথ্য ও গণমাধ্যম বিভাগের মহাপরিচালক।
এ ব্যাপারে গণমাধ্যম বিভাগের মহাপরিচালক বলেন, নতুন এ নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নির্ধারিত এলাকায় কোনো প্রকার ক্যামেরা বা ছবি ও ভিডিও ধারণের যন্ত্র নিয়ে গেলে তা জব্দ করা হবে।
ওই বিবৃতিতে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, কাবাঘর ও মসজিদে নববির পবিত্রতা রক্ষা এবং এর মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  ওই এলাকায় ছবি তোলা ও ভিডিও ধারণের কারণে নামাজরতদেরও সমস্যা হয়। এ সিদ্ধান্তের ফলে এখন থেকে কাবাঘর ও মসজিদে নববি এবং এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় কোনো পর্যটক আর ছবি তুলতে পারবে না। বিস্তারিত

আম্বরখানায় ইসকনের তোরণ নিয়ে উত্তেজনা

ইসকন দীক্ষাগুরু শ্রীল জয়পতাকা স্বামী মহারাজের সিলেট আগমন উপলক্ষে আম্বরখানা জামে মসজিদের সামনে তোরণ স্থাপন নিয়ে উত্তেজনা দেখা যায়।

মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে জোহরের নামাজে আম্বরখানা জামে মসজিদে আসা মুসল্লিদের মধ্যে এ তোড়ন নিয়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। 
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, জোহরের নামাজ শেষে মুসল্লিরা মসজিদের সামনে তোরণ দেখে উত্তেজিত হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ ঘটনাস্থলে এসে মুসল্লিদের শান্ত করেন এবং ইসকনের প্রতিনিধির সাথে কথা বলেন। কিছুক্ষণ পরই পুলিশের গাড়িতে করে ইসকন ইয়ুথ ফোরামের পরিচালক দেবর্ষি বিভাস এসে মুসল্লিদের সাথে কথা বলেন এবং এবং তোরণ সরিয়ে নেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন।
আম্বরখানা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কুতুবুর রহমান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক গুলজার আহমদকে তোরণ সরিয়ে ফেলা হবে বলে কথা দিলে মুসল্লিরা শান্ত হন এবং ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। ৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কয়েস লোদী এবং উপ কমিশনার (দক্ষিণ) বিভূতি ভূষণ এসময় উপস্থিত ছিলেন।
ইসকন ইয়ুথের পরিচালক বলেন, তোরণ নির্মাণের সময় আমি উপস্থিত ছিলাম না, যারা স্থাপন করেছে তারা হয়তো ব্যাপারটা খেয়াল করেনি। আমরা সবসময় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার পক্ষে। আজকের ভেতরই তোরণটি মসজিদে সামনে থেকে সরিয়ে ফেলা হবে।
এদিকে বিমানবন্দর থানার ওসি মোশারফ হোসেন বলেন, "আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘের (ইসকন) জি.বি.সি, দীক্ষাগুরু ও বিশ্ব পরিব্রাজকাচার্য শ্রীল জয়পতাকা স্বামী মহারাজের সিলেট আগমন উপলক্ষে আম্বরখানা পয়েন্টে একটি তোরণ স্থাপন করলে মুসল্লিরা এতে আপত্তি জানায়। তোরণে ইসকন মহারাজের ছবি আছে এবং তোরণটি মসজিদের মুল ফটকের পাশে হওয়ায় এমনটি হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, সাথে সাথেই ইসকন ইয়ুথ ডাইরেক্টরকে ব্যাপারটি জানালে তিনি মুসল্লিদের সাথে আলাপ করে তোরণ সরাবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। আমি নিজেও ঘটনাস্থলে গিয়ে মুসল্লিদের সাথে আলাপ করেছি। ব্যাপারটি মিটমাট হয়ে গেছে। বিস্তারিত

পোপ ফ্রান্সিস সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশে বক্তৃতা দেবেন

আগামী ৩০ নভেম্বর বাংলাদেশে আসছেন খ্রিস্টান ধর্মের রোমান ক্যাথলিক শাখার প্রধান ধর্মীয় গুরু পোপ ফ্রান্সিস। এর পরের দিন ১ ডিসেম্বর ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এক উন্মুক্ত সমাবেশে বক্তৃতা দেবেন তিনি।

সমাবেশে পোপ বাংলাদেশের ১৬ জন যাজককে অভিষিক্ত করবেন।
গত বৃহস্পতিবার ভ্যাটিকান রেডিও তাদের অনলাইনে প্রকাশিত এক খবরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
এছাড়া ঢাকায় অবস্থানকালে পোপ ফ্রান্সিস রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এ ছাড়া তিনি জাতীয় স্মৃতিসৌধ ও ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরও পরিদর্শন করবেন। বাংলাদেশে আসার আগে ২৭ নভেম্বর মিয়ানমারে যাবেন পোপ।

বিস্তারিত

বিশ্ব ইজতেমা ১২ জানুয়ারি শুরু

আগামী বছরের ১২ জানুয়ারি রাজধানীর উপকণ্ঠে তুরাগ তীরে বিশ্ব মুসলিমের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় সমাবেশ বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।
জানুয়ারি ১২ থেকে ১৪  প্রথম পর্ব এবং ১৯ থেকে ২১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান মন্ত্রী।

সোমবার বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে সচিবালয়ে আয়োজিত আইনশৃংখলা বাহিনীর বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ইজতেমার এই পুরো সময় যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিদেশিদের জন্য আর্চওয়েসহ বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বিদেশিরা যেভাবে অংশ নেয় ইজতেমায় রোহিঙ্গারাও সেভাবে অংশ নিতে পারবে।
বিস্তারিত

দুর্গোৎসবের আজ মহানবমী

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার আজ শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর) মহানবমী। আর মাত্র এক দিন পরেই মর্ত্য ছেড়ে কৈলাশে স্বামীগৃহে ফিরে যাবেন দুর্গতিনাশিনী দেবী দুর্গা।

দশভুজা দুর্গার আরাধনার পাশাপাশি দেবীকে বিদায় জানানোর আয়োজনে ভক্তকুল থাকবেন বিষন্ন।

ভক্তি আর শ্রদ্ধায় বিভিন্ন পূজা মন্ডপে আরতি, অঞ্জলি প্রদান ও প্রসাদ বিতরণের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হচ্ছে নবমী পূজা।

নবমীর দিনে মন্ডপে মন্ডপে প্রধান আকর্ষণ থাকবে আরতি প্রতিযোগিতা। রাতকে উজ্জ্বল করে ভক্তরা মেতে উঠবেন নানা ঢঙে আরতি নিবেদনে। একই সঙ্গে দিনভর চলবে চন্ডীপাঠ। থাকবে ভক্তদের কীর্তনবন্দনা।

শ্রী শ্রী দুর্গা দেবীর নবপত্রিকা প্রবেশ স্থাপন অষ্টম্যাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার শেষ হয়েছে অষ্টমী পূজা।

এদিকে নবমীর দিনে আনন্দ আয়োজনে অংশ নিতে মন্ডপে মন্ডপে পূজারীদের ভীড় ছিল লক্ষনীয়। দুর্গাদেবীকে দর্শন করার জন্য পূণ্যার্থীরা মন্ডপে মন্ডপে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ভক্তরা মায়ের চরনে অঞ্জলী প্রদানও করছেন।

ঢাক ঢোল ও শঙ্খ বাজিয়ে চলছে উলদ্ধনি। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দুর্গাপূজাকে ঘিরে সমগ্র সিলেট যেন পরিণত হয়েছে উৎসবে নগরীতে।

শিশু থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের ভক্তদের উপস্থিতি দেখা যায় মন্ডপ গুলোতে। তবে মন্ডপগুলোতে আজ নারী ও কিশোরীদের বেশি উপস্থিতি পরিলক্ষিত হয়েছে।

এদিকে দুর্গাপূজা উপলক্ষে সিলেটের প্রতিটি পূজামন্ডপের নিরাপত্তা রক্ষায় পুলিশ, আনসার, র‌্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জেদান আল মুসা বলেন, পূজাকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এবার নিরাপত্তায় পুলিশের মোটরসাইকেল দল প্রস্তুত রয়েছে। যে কোনো স্থানে অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা ঘটলেই এরা ছুটে যাবে ঘটনাস্থলে।
বিস্তারিত

মৌলভীবাজারে দেশের একমাত্র লাল দূর্গার পূজা

মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার পাঁচগাঁও গ্রামে শুরু হয়েছে দেশের একমাত্র লাল দূর্গার পূজা। মৃৎশিল্পীরা সুন্দর সাজে সাজিয়ে তৈরীর করেছেন এশিয়ার একমাত্র এই লাল প্রতিমা। প্রায় তিনশ’ বছর ধরে ব্যতিক্রমী এই লাল পূজা চলছে। যা দেশের আর কোথাও হয় না। আর সেই কারনেই এখানে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে লাখ লাখ ভক্তবৃন্দের সমাগম ঘটে।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ উৎসব হচ্ছে দূর্গাপূজা। ভক্তদের বিশ্বাস রাজনগরের পাঁচগাঁও দুর্গাবাড়িতে স্বয়ং দেবী অধিষ্ঠান করেন। এটি জাগ্রত প্রতিমা। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ছাড়া প্রায় তিনশ’ বছর ধরে ব্যতিক্রমী এই লাল পূজা চলছে। দেশের আর কোথাও লাল বন্যের লাল দেবী দুর্গার পূজা হয় না। প্রতি বছর লক্ষাধিক ভক্তের ঢল নামে এখানে।

রাজনগরের উপজেলার পাঁচগাঁওয়ে শুরু হয়েছে দেশের একমাত্র লাল বর্নের জাগ্রত দুর্গাদেবীর পূজা। প্রতি বছরের মতো এবারও জেলার প্রতিটি পূজা মন্ডপে শুরু হয়েছে দূর্গা পুজা। তবে জেলার রাজনগরের উপজেলার পাঁচগাঁওয়ে শুরু হয়েছে দেশের একমাত্র লাল বর্নের জাগ্রত দুর্গা দেবীর পূজা। আপন মনের মাধুরী মিশিয়ে একমাত্র লাল দেবী প্রতিমা উৎকর্ষতা সাধন করেছেন শিল্পীরা। প্রাতিষ্ঠানিক কোন শিক্ষা না থাকলেও বংশপরমপরায় অপরূপ সাজে নির্মান করেছেন দেশের একমাত্র দূর্গাদেবীর লাল প্রতিমা। এছাড়াও মনোবাসনা পূরণের জন্য এখানে কয়েক হাজার পশু কবুতর, মহিশ, পাঠা বলি দেন ভক্তরা।

এখানে দেশের একমাত্র লাল পুজা হয়। মায়ের আর্শিবাদ চাইতে এখানে এসেছেন। পাঁচগাঁও নামক স্থানে স্বর্গীয় সর্বানন্দ দাসের বাড়িতে পালিত হচ্ছে শারদীয় দুর্গা পূজা। দেশের অন্যতম একটি লাল দুর্গা মন্ডপ এটি। প্রতি বছর উৎসব মূখর পরিবেশে লাখ লাখ পূজারীরা আসেন দেশ বিদেশ থেকে। এখানে হাজার হাজার হিন্দু ধর্মাবলম্বী পুণ্যার্থীরা তাদের নানা মানত নিয়ে ছুটে আসেন দূর দুরান্ত থেকে। কেউ হোমযজ্ঞ দেন, কেউ প্রদীপ ও আগরবাতি জ্বালান আবার কেউবা মহিশ, পাঠা, কবুতরসহ অন্যন্য পশু বলি দেন।

এখানে আসা ভক্তরা বলেন, মায়ের আর্শিবাদ চাইতে এখানে এসেছেন। পাঁচগাঁও নামক স্থানে স্বর্গীয় সর্বানন্দ দাসের বাড়িতে পালিত হচ্ছে শারদীয় দুর্গা পূজা।

মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার মো: শাহজালাল বলেন, জেলার ত্রীনয়ণী, রাজনগর, কাদিপুর উপজেলাসহ সারা জেলায় দুর্গা পুজায় সর্বত্র পুলিশ, আনসার, র‌্যাব, ভিডিআর সহ গ্রাম পুলিশ মোতায়নের রয়েছে। পাঁচগাওয়ে লাল দেবীর পূজা হওয়ায় এখানে লাখো মানুষের ঢল নামে তাই আলাদা ব্যবস্থাসহ জেলায় শান্তিপূর্নভাবে পূজা সম্পন্ন হবে।

প্রতি বছরের ন্যায় ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে এশিয়ার একমাত্র লাল দেবীর পুজা পাঁচ গাঁয়ের মন্ডপে উৎসবের আমেজে পালিত হচ্ছে লক্ষাধিক নারী-পুরুষের মিলায় দুর্গো উৎসব। শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় প্রশাসন রয়েছে।
বিস্তারিত

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দুর্গোৎসবের আজ মহাষষ্ঠী

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উত্সব শারদীয় দুর্গা পূজার মহাষষ্ঠী আজ মঙ্গলবার বিকেলে শুরু হবে।

কাঁসর ও শঙ্খের শব্দ শিহরণের মধ্যে দিয়ে আজ থেকে শুরু হলো পাঁচ দিনব্যাপী সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গোপূজা।

দুর্গাষষ্ঠীর মধ্য দিয়েই দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। সারাদেশে এখন বইছে উৎসবের আমেজ। দুর্গতি নাশিনী দেবী দুর্গার আগমনে উচ্ছ্বসিত ভক্তকুল।
 
দেবীকে আসন, বস্ত্র, নৈবেদ্য, স্নানীয়, পুষ্পমাল্য, চন্দন, ধূপ ও দীপ দিয়ে পূজা করবেন ভক্তরা। ষষ্ঠী পূজা উপলক্ষে সন্ধ্যায় পূজামণ্ডপে ভক্তিমূলক গান, রামায়ণ পালা, আরতিসহ নানা অনুষ্ঠান হবে।

৩০ সেপ্টেম্বর শনিবার দশমী পূজা অনুষ্ঠিত হবে। এদিন বিজয়া দশমী-প্রতিমা বিসর্জন। মন্দিরে মন্দিরে মন্ত্র উচ্চারণ আর প্রার্থনার মধ্য দিয়ে বিশ্বের অশুভকে তাড়িয়ে শুভ কামনা করা হবে।

এদিকে আজ সকাল থেকে সিলেটে প্রচুর পরিমানে ব্রজসহ বৃষ্টি হচ্ছে। ষষ্ঠী, সপ্তমী এ বৃষ্টিপাত থাকবে বলে সিলেট আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে।

সিলেট মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদর তথ্য অনুযায়ী, এবারে সিলেট জেলা ও মহানগরসহ ৫১৬টি মন্ডপে ও ৬০টি ব্যক্তিগত পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যা গত বছরের চেয়ে কম। গত বছরে ৫৮৫টি মন্ডপে পূজা হয়েছিল। মহানগরে সার্বজনীন গত বছরের ৪৫টি ছিল, এবার ২টি বেড়ে ৪৭টি ও ১৭টি ব্যক্তিগত পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

পুরাণ মতে- রাজা সুরথ প্রথম দেবী দূর্গার আরাধনা শুরু করেন। বসন্তে তিনি এ পূজার আয়োজন করায় দেবীর এ পূজাকে বাসন্তী পূজাও বলা হতো।

কিন্তু রাবণের হাত থেকে সীতাকে উদ্ধার করতে যাওয়ার আগে শ্রী রাম চন্দ্র দূর্গা পূজার আয়োজন করেছিলেন। তাই শরৎকালের এ পূজাকে হিন্দু মতে অকালবোধনও বলা হয়।  এই অকালবোধনে শারদীয় দূর্গোৎসবকে ঘিরে নানা আয়োজনে ব্যস্ত হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ।

দুর্গোৎসব উপলক্ষে সিলেটে পূজামণ্ডপ ঘিরে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ বড় মণ্ডপগুলোতে কঠোর নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছে।

পূজা চলাকালীন সময়ে যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সতর্ক রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এছাড়া গোয়েন্দা তৎপরতাও জোরদার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জেদান আল মুসা বলেন, পূজাকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এবার নিরাপত্তায় পুলিশের মোটরসাইকেল দল প্রস্তুত থাকবে। যে কোনো স্থানে অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা ঘটলেই এরা ছুটে যাবে ঘটনাস্থলে।

সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামসুল ইসলাম তালুকদার বলেন, নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থাই গ্রহণ করা হয়েছে।
বিস্তারিত

দূর্গাপূজা শুরু

ঢাকা: মহালয়ার মাধ্যমে মর্ত্যে দেবী দুর্গার আগমনী বার্তা শুরুর মাধ্যমে শুরু হলো বাঙালীর বৃহত্তম উৎসব শারদীয় দূর্গা পূজা। বিভিন্ন পূজামণ্ডপে গত মঙ্গলবার  থেকেই পূজা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে।

মর্ত্যে দেবী দুর্গার আগমনী বার্তা শুরু হয়েছে গত মঙ্গলবার সকাল থেকে। অর্থাৎ আনুষ্ঠানিকভাবে পূজা ও ভক্তির মাধ্যমে দুর্গাপূজার ক্ষণগণনা শুরু হলো। দেবী দুর্গার আগমনী বন্দনার এই আয়োজনকে বলা হয় মহালয়া। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান এবং বাঙালীর অন্যতম বৃহত্তম উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরুর ছয় দিন আগে হয় এই মহালয়া।

সকাল ছয়টায় চণ্ডীপাঠ, ভক্তিমূলক গান ও নাচের মধ্য দিয়ে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে মহালয়ার অনুষ্ঠান শুরু হয়। দুপুর ১২টায় দেবীর আবাহনের জন্য মূল পূজা, অর্থাৎ ‘ঘট স্থাপন’ হবে। রাজধানীর বনানীতেও সকালে মহালয়ার আয়োজন করা হয়। তবে কলাবাগানে আজ ভোরে অনুষ্ঠান হয়নি।

বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন কমিটির দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব কুমার দে মহালয়া সম্পর্কে বলেন, “পিতৃপক্ষের অবসান হয়ে দেবীপক্ষের শুরুই হচ্ছে মহালয়া। মহালয়ার পর থেকে ১৫ দিন হচ্ছে দেবীপক্ষ। মহালয়ায় দেবী দুর্গার আবাহন ছাড়াও পূর্বপুরুষদের আত্মার শান্তি কামনা করে শ্রদ্ধা জানানো হয়, যাকে তর্পণ বলে।”

আজ সন্ধ্যায় দেবী বোধনের মাধ্যমে শুরু হবে পূজার মূল আয়োজন। চলবে সপ্তাহ জুড়ে।

রাজধানি ঢাকা সহ সারা দেশেই দূর্গা পূূজা নির্বিঘ্নে আয়োজনের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে  তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তাছাড়া পূজাকে কেন্দ্র করে যাতে কোন ধরনের নাশকতা না হয়, সেজন্যও থাকছে কঠোর নজরদারিসহ সব ধরণের নিরাপত্তা ব্যবস্থা।


বিস্তারিত

দেবী দূর্গা যৌনকর্মী! বিপদে অধ্যাপক

দেবী দূর্গা সম্পর্কে ফেসবুকে একটি অপমানজনক পোস্ট করার অভিযোগে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অধ্যাপকের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছেন তাঁরই সহকর্মীরা।
 
কেদার মন্ডল নামে ওই অভিযুক্ত শিক্ষককে সাসপেন্ড করার দাবিতে আন্দোলন শুরু করেছে ক্ষমতাসীন বিজেপি-র ছাত্র সংগঠন এবিভিপি-ও।
 
এদিকে ওই শিক্ষক বিতর্কিত পোস্টটি ডিলিট করে দিয়ে আত্মগোপনে চলে গেছেন - যদিও তাঁর সেই পোস্টকে ঘিরে আসন্ন দূর্গাপুজার আগে দিল্লি সরগরম হয়ে উঠেছে।
 
কিন্তু ঠিক কী লিখে আর কেন সহকর্মী ও ছাত্রদের এই তোপের মুখে পড়েছেন অধ্যাপক কেদার মন্ডল?
 
দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের দয়াল সিং কলেজের অধ্যাপক কেদার মন্ডল শুক্রবার রাতে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লিখেছিলেন, “ভারতের মিথোলজি অনুসারে দূর্গা একজন যৌনকর্মী - তাঁর ভাষায় ‘ভেরি সেক্সি প্রস্টিটিউট'’।”
 
দূর্গাপুজার ঠিক আগে দেবীকে এভাবে অপমান করে তিনি আসলে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ছড়াতে চাইছেন - এই অভিযোগে পরদিনই তাঁর বিরুদ্ধে দিল্লির লোদি রোড পুলিশ থানায় অভিযোগ দায়ের করে বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন এনডিটিএফ।
 
ওই সংগঠনের সভাপতি এ কে বাগি বলছিলেন, “আমরা মনে করি প্রথমে তার মানসিক চিকিৎসা দরকার। খুব শস্তা প্রচার পাওয়ার লক্ষ্যেই তিনি এ ধরনের আপত্তিকর কথাবার্তা লিখেছেন।”
 
“আগেও তিনি এধরনের জিনিস লিখেছেন, তবে এবার তিনি সব সীমা ছাড়িয়ে গেছেন এবং দেশের সাম্প্রদায়িক পরিবেশ বিষিয়ে দেওয়ার জন্যই এ কাজ করেছেন বলে আমাদের ধারণা।”
 
দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, তথ্যপ্রযুক্তি আইনের কোন্ কোন্ ধারায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে চার্জ আনা যায়, সেটা তারা খতিয়ে দেখছে।
বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপি-ও দাবি তুলেছে অধ্যাপক মন্ডলকে অবিলম্বে বহিষ্কার করতে হবে, আলাদাভাবে সেই একই দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস সমর্থক ছাত্ররাও।
 
তিনি নিজে অবশ্য এই বিতর্ক শুরু হওয়ার পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছেন, পোস্টটি ডিলিট করে দিলেও কোনও ফোন ধরছেন না বা এসএমএস-এরও জবাব দিচ্ছেন না।
 
এদিকে তাঁর আত্মপক্ষ সমর্থনের অধিকার আছে বলে মানলেও তাঁর পোস্টটিকে সমর্থন করছেন না দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের বামপন্থী শিক্ষকরাও।
 
ডেমোক্র্যাটিক টিচার্স ফ্রন্টের সভাপতি শাশ্বতী মজুমদার যেমন বলেন, “ওই শিক্ষক যে ভাষা ব্যবহার করেছেন সেটা কিছুতেই মানা যায় না - ফলে মানুষ অভিযোগ করবেন এটা খুব স্বাভাবিক। আপনারা নিশ্চয় দেখেছেন উনি কী লিখেছেন, ওতে আমরা কিছুতেই সায় দিতে পারি না।”
 
ঘটনা হল, দেবী দূর্গাকে যৌনকর্মী বলা ঠিক হয়েছে কি না, সেই প্রশ্নে ভারতের পার্লামেন্টে খোলাখুলি বিতর্ক হয়েছিল গত বছরেই।
ক্যাবিনেট মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি সেখানে জেএনইউ-র তফসিলি জাতিভুক্ত ছাত্রদের একটি ফেসবুক পেজ থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছিলেন, “তারা বলছে ফর্সা সুন্দরী নারী দূর্গা কীভাবে কৃষ্ণাঙ্গ আদিবাসীদের ছলেবলে হত্যা করছে - দূর্গাপুজা না কি তারই উৎসব। আরও বলা হচ্ছে, অসুর নিধনে দেবতারা নাকি দূর্গা নামে এক যৌনকর্মীকে ভাড়া করেছিলেন।”
 
দিল্লিতে অধ্যাপক কেদার মন্ডলও দূর্গার বর্ণনা করেছিলেন অনেকটা একই ভঙ্গীতে। কিন্তু ভারতীয় পুরাণতত্ত্বের বিশেষজ্ঞ নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ী বিবিসিকে বলেন, এটা আসলে পুরাণের খন্ডিত ও বিকৃত ব্যাখ্যা ছাড়া কিছুই নয়।
 
“রামায়ণ-মহাভারত-পুরাণই তো আমাদের মিথোলজি। তো সেখানে এক জায়গায় আছে শুম্ভ-নিশুম্ভকে আকৃষ্ট করতে দেবী দূর্গা মোহিনী রূপ ধারণ করেন। কিন্তু সেই মায়াবী রূপও তো আসলে তাদের হত্যা করতেই - এখানে আমি তো অন্তত কোনও যৌনকর্মীর রেফারেন্স পাই না।
 
“আসলে মিথোলজি হল সমুদ্রের মতো - এটা একটা টোটালিটি বা সামগ্রিকতার মধ্যে দিয়ে দেখতে হয়। সেই সমুদ্র থেকে এক অঞ্জলি জল তুলে কেউ যদি বলেন এটাই আসল মিথোলজি, তাহলে খুব ভুল হবে,” বলেন অধ্যাপক ভাদুড়ী।
সেই ভুলের ফাঁদে পা দিয়েই এখন বেকায়দায় পড়েছেন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিযুক্ত শিক্ষক।
 
যেভাবে ও যে ভাষায় তিনি দেবী দুর্গাকে আক্রমণ করেছেন, তাতে ভারতে যারা সব সময় মতপ্রকাশের স্বাধীনতার কথা বলেন তাঁরাও এখন তাঁর পাশে দাঁড়াচ্ছেন না।–বিবিসি
বিস্তারিত

১ অক্টোবর পবিত্র আশুরা

বাংলাদেশের আকাশে বৃহস্পতিবার ১৪৩৯ হিজরি সালের পবিত্র মহররম মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে শুক্রবার থেকে পবিত্র মহররম মাস গণনা করা হবে এবং আগামী ১ অক্টোবর সারাদেশে পবিত্র আশুরা উদযাপিত হবে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীতে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ কমপ্লেক্সে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আনিছুর রহমান। সরকারি এক তথ্য বিবরণীতে এসব জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ১৪৩৯ হিজরি সনের পবিত্র মহররম মাসের চাঁদ দেখা সম্পর্কে সকল জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়সমূহ, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠান হতে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে পর্যালোচনা করে উপরোক্ত সিদ্ধান্ত নেয় কমিটি।

সভায় ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. হাফিজুর রহমান, তথ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. মিজান-উল-আলম, অতিরিক্ত প্রধান তথ্য কর্মকর্তা ফজলে রাব্বী, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপ-সচিব মো. শাফায়াত মাহবুব চৌধুরী, ঢাকা জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মজিবর রহমান, বাংলাদেশ টেলিভিশনের পরিচালক (প্রশাসন) মো. শাখাওয়াত হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
বিস্তারিত

বানিয়াচংয়ে ১০৮টি মণ্ডপে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি

বানিয়াচংয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ শারদীয় দুর্গাপূজার প্রস্তুতি এখন শেষপর্যায়ে। প্রতিমা তৈরিতে খুব ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎশিল্পীরা। মঙ্গলবার শুভ মহালয়ার মাধ্যমে শুরু হয়ে গেছে পূজার আনুষ্ঠানিকতা।

এবার বানিয়াচং উপজেলায় মোট ১০৮টি মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। যার মধ্যে সার্বজনীন পূজামণ্ডপ রয়েছে ১০৬টি আর পারিবারিক পূজামণ্ডপ রয়েছে ২টি।

দেবী দুর্গার শেষ তুলির শেষ টান আর ঢাকের বাদ্য শুরু হলেই উৎসবে মেঠে উঠবে হিন্দু সম্প্রদায়। আকাশের ছেঁড়া মেঘের ভেলা, কাঁশফুল, ভোরবেলার শিউলি ফুলের গন্ধ এসব কিছুর কারণ একটাই দুর্গতিনাশিনী দেবী মা দুর্গার আগমন। বাঙালির জীবনে দুঃখের যেমন শেষ নেই, শাশ্বত আনন্দের উপলক্ষেরও কমতি নাই। শারদ-উৎসব বাঙালির ঐতিহ্য ও পরম্পরা বহন করে চলেছে।

কালো মেঘে আকাশজুড়ে তবু ও যথানিয়মে কার্তিক মাস এসেছে। পদ্মা ও শিউলির লাবণ্য ছড়িয়েছে এদিক ওদিকে শুরু হবে ঢাকের বাদ্য। প্রতিবারের মতো সঙ্গী করে এবারও দুর্গা দেবী যথারীতি আসবেন। আর এই দেবীকে বরণ করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে হিন্দু সম্প্রদায়।

এদিকে, সবকটি পূজামণ্ডপে সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রণালয় জিআর প্রকল্পের ৫০০ কেজি করে মোট ৫৩ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্লাবন পাল। তিনি জানান, বরাদ্দকৃত চাল দুই এক দিনের মধ্যেই নিজনিজ পূজামণ্ডপের সভাপতির কাছে হস্তান্তর করা হবে।

উপজেলা সদরের রায়েরপাড়ার রামকৃষ্ণ সেবাশ্রম, কালীবাড়ি, বুড়া শিববাড়ি ও কয়েকটি বাড়ি ঘুরে দেখা গেছে পুরোদমে ব্যস্ত মৃৎশিল্পীরা। তুলির শেষ টান দিচ্ছেন দুর্গা, সরস্বতী, লক্ষ্মী, কার্তিক ও গণেশের গায়ে। আর পুরো বিষয়টি আরও দৃষ্টিনন্দন করতে মৃৎশিল্পীরা মুল প্রতিমার পাশাপাশি তৈরি করেছেন পুরানের নানা চরিত্র।

এ প্রসঙ্গে মৃৎশিল্পী দুলাল পাল বলেন, প্রতিমা তৈরির কাজ শেষে দিকে। এখন রঙ এর আঁচড়ে প্রতিটি প্রতিমাকে আকর্ষণীয় করে তোলার কাজ চলছে।

এদিকে দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিভিন্ন স্থানে পুলিশী প্রহরায় নির্মিত হচ্ছে প্রতিমা। নির্মাণের স্থানগুলোতে পুলিশ প্রহরায় সার্বক্ষণিক ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বানিয়াচং পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বাবু কৃষ্ণ দেব জানান, পূজার সব প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়ে। নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য উপজেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে বৈঠক করা হয়েছে।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক জানান, আসন্ন দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যাপক আকারে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পূজা শুরুর দিন থেকে পুলিশের পাশাপাশি আনসার ও সাদা পোশাকের পুলিশ মোতায়েন করা হবে। যে কোন বিশৃঙ্খলা এড়াতে নেয়া হবে কঠোর ব্যবস্থা।
বিস্তারিত

মসজিদ মন্দির উন্নয়নে বরাদ্দ ৬৬৫ কোটি টাকা

দেশব্যাপী ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে অর্থ পাচ্ছেন সংসদ সদস্যরা। এজন্য ৬৬৫ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে আলাদা প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। ‘সার্বজনীন সামাজিক অবকাঠামো উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় তারা ওই অর্থ নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী মসজিদ, ইদগাহ, কবরস্থান, মন্দির, শ্মশান, গীর্জা, প্যাগোডা, গুরুদুয়ারা এবং খেলার মাঠের উন্নয়নে তারা ব্যয় করতে পারবেন।

বুধবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ প্রকল্পসহ প্রায় পাঁচ হাজার ১৮১ কোটি টাকার দশ প্রকল্প অনুমোদন করা হয়।

সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সার্বজনীন সামাজিক অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের মাধ্যমে। এজন্য সাংসদরা সরাসরি বরাদ্দ পাবেন না। তবে তাদের পছন্দ অনুযায়ী কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, এ প্রকল্পে সিটি করপোরেশন এলাকা বাদে প্রত্যেক উপজেলার জন্য এক কোটি টাকা করে দেশের ৪৯১টি উপজেলার জন্য ৪৯১ কোটি টাকা বরাদ্দের কথা বলা হয়েছে।

এছাড়া পূর্ত কাজের জন্য থোক বরাদ্দ হিসেবে ১০৯ কোটি টাকা রাখার কথা বলা হয়েছে প্রকল্প প্রস্তাবে। থোক বরাদ্দের অর্থ চাহিদা ও গুরুত্ব অনুযায়ী ব্যয় করা হবে। নির্বাচিত প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে কমপক্ষে পাঁচ লাখ টাকার উন্নয়ন কাজ হবে। প্রকল্পের কাজ শেষ করা হবে ২০২০ সালের জুনের মধ্যে।

এদিন একনেকের বৈঠকে সাড়ে চার হাজার কোটি টাকার আরও নয়টি প্রকল্প সরকারের অনুমোদন পেয়েছে।

যমুনা নদীর ভাঙন থেকে সিরাজগঞ্জ জেলার কাজীপুর উপজেলায় খুদবান্দি, সিংড়াবাড়ি ও শুভগাছা এলাকা রক্ষায় ৪৬৫ কোটি টাকার প্রকল্প।

গোপালগঞ্জে বহুতল সরকারি অফিস নির্মাণে ৯৮ কোটি টাকার প্রকল্প। বাংলাদেশের ২৩টি পৌরসভায় পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশনের জন্য ৯৯২ কোটি টাকার প্রকল্প।

নারায়নগঞ্জ সিটি করপোরেশনে পরিচ্ছন্নতা কর্মী নিবাস নির্মাণে ১০০ কোটি টাকার প্রকল্প। সিলেট বিভাগের ‘গুরুত্বপুর্ণ গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে এক হাজার ২১৪ কোটি টাকার প্রকল্প। বৃহত্তর কুমিল্লা জেলার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে ৯৮৬ কোটি টাকার প্রকল্প।

চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ উপজেলার ৭২ নম্বর পোল্ডারে ভাঙনপ্রবণ এলাকায় পুনর্বাসন প্রকল্পে ব্যয় হবে ১৯৭ কোটি টাকা।

আরিচা-ঘিওর-দৌলতপুর-টাঙ্গাইল সড়কে ১০৩ দশমিক ৪৩ মিটার দীর্ঘ পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ প্রকল্পে বরাদ্দ হয়েছে ৬৫ কোটি টাকা।

সারাদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটর ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপনে ৩৯৮ কোটি টাকার প্রকল্প।

বিস্তারিত

প্রথম ফ্লাইটে ফিরলেন ৪১৯ হাজি

৪১৯ জন হাজি নিয়ে বাংলাদেশ বিমানের প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট ঢাকায় ফিরেছে।

বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর মডেলের বিমানটি হাজিদের নিয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিমানের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ জানান, প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট বিজি২০১২ সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটে ঢাকায় অবতরণের কথা থাকলেও জেদ্দা বিমানবন্দরে বিভিন্ন ফ্লাইটের যাত্রীদের অতিরিক্ত চাপের কারণে নিরাপত্তা তল্লাশিতে বেশি সময় লাগে। এতে দেরি হওয়ায় রাত ৮টা ২০ মিনিটে সেটি অবতরণ করে।

এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ১৭ হাজার ১৯৮ জন হজ পালনের উদ্দেশে সৌদি আরব যান। তাদের ফিরিয়ে আনতে বিমানের ৩০টি নিয়মিত ফ্লাইটের বাইরেও ১৬৯টি ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আগামী ৫ অক্টোবরের মধ্যে সব হাজি দেশে ফিরতে পারবেন।

এদিকে, সৌদি আরবে অবস্থানরত ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান হজ অফিসে এক পর্যালোচনা সভায় বলেন, এ বছর এক লাখ ২৭ হাজার ২২৯ জন বাংলাদেশি হজ পালন করেছেন, যা অতীতের যে কোনও সময়ের চেয়ে বেশি।

সৌদি আরব সরকারের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর সারা পৃথিবী থেকে ২৩ লাখ ৫২ হাজার হজ পালন করেছেন। এদের মধ্যে সৌদি আরবের বাইরে থেকে এসেছেন ১৭ লাখ ৫২ হাজার। এ পর্যন্ত সৌদি আরবে মোট ৭৪ জন বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে।
বিস্তারিত

রাতে আসছে প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফিরতি হজ ফ্লাইট আজ বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে। সন্ধ্যা সোয়া ৬টা নাগাদ দেশের মাটিতে পা রাখার কথা ছিল প্রথম ফিরতি ফ্লাইটের হজযাত্রীদের। কিন্তু দুই ঘণ্টা বিলম্বে ফ্লাইটটি আসছে বলে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস সূত্র জানিয়েছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) শাকিল মেরাজ রাইজিংবিডিকে জানিয়েছেন, সৌদি আরবের জেদ্দা বিমানবন্দরে হজযাত্রীদের অতিরিক্ত চাপে নিরাপত্তা তল্লাশিতে সময় লাগছে। বিভিন্ন দেশের হজযাত্রীরা নিজ নিজ দেশে ফিরছেন। তাই নিরাপত্তার কারণে অনুমতি পেতে দেরি হচ্ছে। ফলে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইটটি দুই ঘণ্টা দেরিতে বাংলাদেশে পৌঁছাবে।

ফিরতি হজ ফ্লাইট চলবে ৫ অক্টোবর পর্যন্ত। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স সূত্রে জানা গেছে, প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইটে (বিজি ২০১২) ৪১৯ জন হজযাত্রী আসবেন। সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটের পরিবর্তে হজ ফ্লাইটটি রাত ৮টা ২০ মিনিটে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ফিরতি হজ ফ্লাইট বিজি-২০১১ মঙ্গলবার রাতেই হাজিদের আনতে জেদ্দার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ে। এটি দ্বিতীয় হজ ফ্লাইট হিসেবে আসতে পারে।

এর আগে বুধবার সকালে শাকিল মেরাজ জানিয়েছিলেন, প্রথম ফ্লাইটের হাজিদের বরণ করতে বিমান পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল ইনামুল বারী, বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এ এম মোসাদ্দিক আহমেদসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকবেন।

জানা গেছে, চলতি হজ মৌসুমে ৬৪ হাজার ৮৭৩ জন হজযাত্রীকে সৌদি আরবে পৌঁছে দিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। যদিও বিমানের হজযাত্রী পরিবহনের পূর্বনির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬৩ হাজার ৫৯৯ জন।

২৪ জুলাই থেকে ২৮ আগস্ট পর্যন্ত মোট ১৮৭টি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করেছে বাংলাদেশ বিমান। এর মধ্যে ১৫২টি ডেডিকেটেড এবং ৩৫টি শিডিউল ফ্লাইট। এ ছাড়া চট্টগ্রাম থেকে ১৫টি ফ্লাইট এবং সিলেট থেকে ৪টি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করে বিমান। এবারই প্রথম বিমান চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করে।

গত ২২ জুলাই সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশকোনার ক্যাম্পে হজ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ৫০০ জনের হজ পালন করতে সৌদি আরবে যাওয়ার কথা ছিল। এর মধ্যে সরকারিভাবে যাওয়ার কথা ৪ হাজার ২০০ ও বেসরকারিভাবে ১ লাখ ২২ হাজার। আর সরকারি ডেলিগেটের সংখ্যা ১ হাজার ২৫০ জন। শেষ পর্যন্ত ১ লাখ ২৭ হাজার ১০৩ জন হজে গিয়েছেন। ৩৯৭ জন যাত্রী ভিসা, টিকেট ও অন্যান্য সমস্যার কারণে যেতে পারেননি।
বিস্তারিত

পবিত্র হজ আজ

আজ বৃহস্পতিবার পবিত্র হজ। ‘লাব্বাইকা আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হাম্‌দা ওয়ান নি’মাতা লাকা ওয়াল মুল্‌ক, লা শারিকা লাক।’ (আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো শরিক নেই, সব প্রশংসা ও নেয়ামত শুধু তোমারই, সব সাম্রাজ্যও তোমার)।

লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি আজ এই তালবিয়া পাঠ করে মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে নিজের উপস্থিতি জানান দিয়ে পাপমুক্তির আকুল বাসনায় সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত আরাফাতের ময়দানে থাকবেন। মূলত ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান হজ পালনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। হজ পালন করতে এসে যারা অসুস্থতার জন্য হাসপাতালে চিকিৎসাধীন, তাদেরও অ্যাম্বুলেন্সে করে আরাফাতের ময়দানে স্বল্প সময়ের জন্য আনা হবে।

হজের দিন সারাক্ষণ আরাফাতে অবস্থান করা ফরজ। আজ মসজিদে নামিরাহ থেকে হজের খুতবা দেবেন গ্র্যান্ড মুফতি। আরাফাতের খুতবার পর হাজিরা একসঙ্গে জোহর ও আসরের নামাজ আদায় করবেন। এরপর তারা সূর্যাস্ত পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করে মুজদালিফায় যাবেন এবং সেখানে একসঙ্গে মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করবেন। রাতে সেখানে তারা অবস্থান করবেন খোলা মাঠে। সেখান থেকে শয়তানের প্রতিকৃতিতে নিক্ষেপের জন্য প্রয়োজনীয় পাথর সংগ্রহ করবেন। এর আগে পবিত্র হজ পালন করতে মঙ্গলবার রাতে হাজিরা মক্কা থেকে মিনায় পৌঁছান।

১০ জিলহজ মুজদালিফায় মুসল্লিরা ফজরের নামাজ আদায় করে কেউ ট্রেনে, কেউ গাড়িতে, কেউ হেঁটে মিনায় যাবেন এবং নিজ নিজ তাঁবুতে ফিরবেন। মিনায় বড় শয়তানকে সাতটি পাথর মারার পর পশু কোরবানি দিয়ে মাথার চুল ছেঁটে (ন্যাড়া করে) গোসল করবেন এবং সেলাইবিহীন দুই টুকরো কাপড় বদল করবেন। এরপর স্বাভাবিক পোশাক পরে মিনা থেকে মক্কায় গিয়ে পবিত্র কাবা শরিফ তাওয়াফ করবেন। কাবার সামনের দুই পাহাড় সাফা ও মারওয়ায় সাঈ (সাতবার দৌড়াবেন) করবেন। সেখান থেকে তারা আবার মিনায় যাবেন।

মিনায় যত দিন থাকবেন, তত দিন তিনটি (বড়, মধ্যম, ছোট) শয়তানকে ২১টি পাথর মারবেন। এরপর আবার মক্কায় বিদায়ী তাওয়াফ করার পর নিজ নিজ দেশে ফিরবেন। যারা হজের আগে মদিনায় যাননি, তারা মদিনায় যাবেন। এভাবে সম্পন্ন হবে হজের পুরো আনুষ্ঠানিকতা।

কাবা শরিফে নতুন গিলাফ পরানো হবে

আজ কাবা শরিফের গায়ে পরানো হবে নতুন গিলাফ। নতুন গিলাফ পরানোর সময় পুরোনো গিলাফ সরিয়ে ফেলা হয়। কাবা শরিফের দরজার ও বাইরের গিলাফ দুটিই মজবুত রেশমি কাপড় দিয়ে তৈরি করা হয়। গিলাফের মোট পাঁচটি টুকরা বানানো হয়। চারটি টুকরা চারদিকে এবং পঞ্চম টুকরাটি দরজায় লাগানো হয়। টুকরাগুলো পরস্পর সেলাইযুক্ত।

হাজিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সৌদি কর্তৃপক্ষ পুলিশ, আধা সামরিক ও সামরিক বাহিনী মোতায়েন করেছে। হাজিদের বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা দিতে মিনায় কিছুদূর পর পর রয়েছে হাসপাতাল। রয়েছে মোয়াচ্ছাসা, ফায়ার সার্ভিস, পুলিশের সদস্য। হাজিরা পথ হারিয়ে ফেললে স্বেচ্ছাসেবক, স্কাউট ও কর্মীরা তাদের নির্দিষ্ট (তাবু) গন্তব্যে পৌঁছে দেন।

ইসলাম ধর্মের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে একটি হচ্ছে হজ পালন। সামর্থ্যবান মুসলমানদের জীবনে অন্তত একবার হজ পালন করতে হয়। এবার বিশ্বের প্রায় ১৭১ দেশের ২০-২৫ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমান এবার হজ পালনে সৌদি আরব পৌঁছেছেন। বাংলাদেশ থেকে এবার ১ লাখ ২৬ হাজার ৭৫৮ জন হজ পালন করছেন।
বিস্তারিত

বিশ্বের প্রথম ফতোয়া বুথ

মিশরের রাজধানি কায়রোর মেট্রোতে বিশ্বের প্রথম ফতোয়া বুথ বা ইসলামিক অনুশাসন কেন্দ্র চালু হয়েছে।এর উদ্দেশ্যে- সাধারণ জনগণ এবং পর্যটকদের কাছে বিনামূল্যে ইসলামী বিধিবিধান বা অনুশাসনের পরামর্শ দেয়া।
 
মিশরের সুন্নি মুসলিম কর্তৃপক্ষ, আল-আজহারের তত্ত্বাবধানে এসব বুথ স্থাপন করা হচ্ছে। শুরুতে প্রতিটি সাবওয়ে স্টেশনে একটি করে বুথ বসানো হবে।সকাল ৯টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এসব বুথে সেবা পাওয়া যাবে। সেখানে বসে থাকা আলেম বা শেইখরা নানা প্রশ্নের উত্তর দিবেন।
 
আহমেদ আল-সাব্বাহ নামের একজন শেইখ বলেন, “প্রতিদিন আমরা পরামর্শের জন্য ৫০ থেকে ৭০ জনের অনুরোধ পাচ্ছি। বেশিরভাগ অনুরোধই পারিবারিক নানা বিষয়ে, যেমন উত্তরাধিকার আর বিবাহ বিচ্ছেদ সম্পর্কিত।”
তিনি আরো বলেন, “বেশিরভাগ তরুণরাই মসজিদে যেতে চায়না। তাই তারা এসব বুথের মাধ্যমে ইসলামি পরামর্শ পাওয়ার একটি সুযোগ পাচ্ছে। একজন যেমন এসে আমাদের জিজ্ঞেস করলেন, আত্মহত্যা করলে কি আল্লাহ্ আমাদের ক্ষমা করবেন?”
তবে এই বুথগুলোর কারণে সাধারণ মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হচ্ছে।
একজন নারী বলেন, এরকম বুথ থাকাটা ভাল, কারণ এটা মানুষের কাছে অনেককিছু সহজ করে তোলে।কিন্তু অনেকেরই শঙ্কা- এর ফলে অনেকটা জোড় করে জনগণের মধ্যে ধর্মকে চাপিয়ে দেয়ার একপকার চেষ্টা হতে পারে।– দি গার্ডিয়ান
বিস্তারিত

  • সিলেটে মিডল্যান্ড ব্যাংক
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি ধোঁকাবাজি: আরসা
  • মাংস এবং উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত পানীয় ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়
  • ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?
  • প্রকাশ্যে চুমু, ‘দেশি গার্ল’-এর বিদেশি রোম্যান্স
  • নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি তিন খানের
  • ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!
  • আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব
  • নেতাকর্মীদের জেলে রেখে নির্বাচন হবে না: ফখরুল
  • সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ভিত্তিতেই গ্রেফতার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হচ্ছে না কাল
  • সিলেটের দক্ষিন সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৪
  • সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার
  • মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজন গ্রেফতার
  • যুবলীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সমাবেশে অর্থমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ
  • গোয়াইনঘাট থানার আসামী উপশহরে গ্রেফতার
  • হবিগঞ্জে জমির আইল কাটা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০
  • সিলেট জেলা বিএনপির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
  • কোম্পানীগঞ্জে পরীক্ষার্থীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন॥
  • দক্ষিণ সুরমায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার
  • মুসলমানরাই সবচেয়ে বেশি সন্ত্রাসের শিকার: বান কি মুন   ৫০৬২৬
  • মেয়র কালামের পায়ের নিচে ওসি আতাউর শার্ট খুলে লিনডাউন,তারপর জুতো পেটার প্রস্তাব   ১৪৬৯৫
  • ছলনাময়ী নারীদের চেনার উপায়   ১৩৭২০
  • জুমার নামাজ ছুটে গেলে কী করবেন?   ১১৬৩৭
  • ​চিনা কোম্পানিকে কাজ দিতে প্রতিমন্ত্রী তারানার স্বাক্ষর জাল   ৯৩৪৪
  • ঋণখেলাপি নই-হুন্ডি ব্যবসায়িও নই,সম্পত্তি নিলামের খবর অপপ্রচার-নাসির   ৮৩৩৭
  • জেনে নিন ছুলি দূর করতে কিছু ঘরোয়া উপায়   ৮৩০৬
  • ডিমের পর স্বয়ংসম্পূর্ণতার পথে সোনালি মুরগি   ৮২৩৮
  • মুসাফির কাকে বলে? মুসাফিরের রোযা ভঙ্গ করলে   ৮২৩০
  • গরুর দুধের অসাধারণ কয়েকটি গুণ   ৮০৩৩
  • খতমে ইউনুস নামে সামাজে চলে আসা জালিয়াতী   ৭১২৭
  • মুঘল সম্রাটদের দিনযাপন   ৬৬০৮
  • চিত্রনায়িকা সাহারার সেক্স ভিডিও ফাঁস!   ৬০০৯
  • হযরত শাহ্‌ জালাল ইয়েমেনী (রাঃ)-এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনী   ৫৯১২
  • শিশুর কানে আজান দেবে কে?   ৫৫৪২
  • চিকিৎসায় দ্রুত সরকারি সহযোগিতা চান খাদিজার বাবা মাসুক মিয়া   ৫৩৩৯
  • কামরূপ-কামাখ্যা : নারী শাসিত যাদুর ভূ-খন্ড   ৫৩০১
  • প্রশ্নব্যাংকে প্রশ্ন, স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাছাই হয়ে পরীক্ষা   ৫২৫৬
  • ফুলবাড়ির বশর চেীধুরী আজ ইন্তেকাল করেছেন   ৫২৫৪
  • ম,আ,মুক্তাদিরের ছেলে রাহাত লন্ডনে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে   ৫০৭৬
  • সাম্প্রতিক আরো খবর

  • আখেরি মোনাজাতে দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা শেষ
  • আজ আখেরি মোনাজাত
  • ঢাকা ছেড়েছেন মাওলানা সাদ
  • বিশ্ব ইজতেমা প্রথম পর্ব: কোরআন-হাদিসের আলোকে বয়ান অব্যাহত
  • সোমবার বড়দিন, উদযাপনের প্রস্তুতি সম্পন্ন
  • ‘বাবরি মসজিদ’ ভাঙা গড়ার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস
  • আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.): সিলেটসহ সারাদেশে নানা কর্মসূচি
  • সিলেট নগরীর দুটি মসজিদ পুন:নির্মাণে অর্থায়ন করবে তুরস্ক সরকার
  • রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে ব্রিটেন
  • কাবাঘর ও মসজিদে নববিতে ছবি তোলায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ
  • আম্বরখানায় ইসকনের তোরণ নিয়ে উত্তেজনা
  • পোপ ফ্রান্সিস সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশে বক্তৃতা দেবেন
  • বিশ্ব ইজতেমা ১২ জানুয়ারি শুরু
  • দুর্গোৎসবের আজ মহানবমী
  • মৌলভীবাজারে দেশের একমাত্র লাল দূর্গার পূজা
  • সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দুর্গোৎসবের আজ মহাষষ্ঠী
  • দূর্গাপূজা শুরু
  • দেবী দূর্গা যৌনকর্মী! বিপদে অধ্যাপক
  • ১ অক্টোবর পবিত্র আশুরা
  • বানিয়াচংয়ে ১০৮টি মণ্ডপে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি
  • মসজিদ মন্দির উন্নয়নে বরাদ্দ ৬৬৫ কোটি টাকা
  • প্রথম ফ্লাইটে ফিরলেন ৪১৯ হাজি
  • রাতে আসছে প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট
  • পবিত্র হজ আজ
  • বিশ্বের প্রথম ফতোয়া বুথ