সর্বশেষ খবর

   সিলেটে মিডল্যান্ড ব্যাংক    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি ধোঁকাবাজি: আরসা    মাংস এবং উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত পানীয় ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়    ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?    প্রকাশ্যে চুমু, ‘দেশি গার্ল’-এর বিদেশি রোম্যান্স    নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি তিন খানের    ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!    আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব    নেতাকর্মীদের জেলে রেখে নির্বাচন হবে না: ফখরুল    সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ভিত্তিতেই গ্রেফতার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হচ্ছে না কাল    সিলেটের দক্ষিন সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৪    সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার    মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজন গ্রেফতার    যুবলীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সমাবেশে অর্থমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ    গোয়াইনঘাট থানার আসামী উপশহরে গ্রেফতার    হবিগঞ্জে জমির আইল কাটা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০    সিলেট জেলা বিএনপির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত    কোম্পানীগঞ্জে পরীক্ষার্থীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন॥    দক্ষিণ সুরমায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার


খবর - খেলাধুলা

১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!

ওয়েলিংটন: কিউই বোলারদের বোলিং তোপে মাত্র একশ পাঁচ রানেই অল আউট হয়ে গেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। এর আগে ওয়ানডেতে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে দলটি।

টি-টোয়েন্টিতে ঘুরে দাঁড়ানোর লক্ষ্য নিয়েই মাঠে নেমেছিল পাকিস্তান। তবে ওয়েলিংটনে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে পাকিস্তান।

দুই ওপেনার ফখর জামান (৩) ও উমর আমিন (০) দলীয় ৪ রানেই সাজঘরে ফিরে যান। তার পরেই বিদায় নেন মুহাম্মদ নেওয়াজ (৭), হ্যারিস সোহেল (৯)।
তবে দলকে বিপর্যয় থেকে রক্ষার জন্য এক প্রান্ত আগলে রেখে চেষ্টা করেন বাবর আজম। সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন তিনি। হাসান আলী করেন ২৩ রান।
টিম সাউদি ও সেথ র্যা ন্স নেন তিনটি করে উইকেট নেন কিউইদের পক্ষে। এছাড়া বিস্তারিত

আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব

ঢাকা : ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) দীর্ঘ দিন যাবত কোলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেললেও এবার সাকিব আল হাসানকে দলে রাখেনি দল। তবে নিলামের সবচেয়ে ‘দামি ক্রিকেটারের’ তালিকায় রয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

২৭ জানুয়ারি নিলামের মাধ্যমে তাকে এবার দল পেতে হেচ্ছ। ‘দামি ক্রিকেটার’ তালিকায় তার সঙ্গে রয়েছেন বেন স্টোকস, মিচেল স্টার্ক, ক্রিস গেইল, কাইরন পোলার্ড, যুবরাজ সিং, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, শিখর ধাওয়ান, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, আজিঙ্কা রাহানে, হরভজন সিং, জো রুট, ফাফ ডু প্লেসিস, ডোয়াইন ব্রাভো ও কেন উইলিয়ামসন। মার্কি প্লেয়ারের তালিকা অবশ্য দুই সেটে ভাগ করে রেখেছে আইপিএল কর্তৃপক্ষ। সেখানে সাকিব রয়েছেন দ্বিতীয় সেটে। শুরুতে নিলামের জন্য বেছে নেওয়া হয় ১১২২ জনের প্রাথমিক তালিকা।

এরপরে সেই সংখ্যা কমে দাঁড়ায় ৫৭৮ জনে। বাংলাদেশ থেকে নিলামের এই তালিকায় রয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান, তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান ও আবুল হাসান। নিলামে সাকিবের ভিত্তি মূল্য ধরা হয়েছে দুই কোটি রুপি।
মোস্তাফিজের ভিত্তি মূল্য এক কোটি, তামিম, সাব্বির, মাহমুদউল্লাহ ও আবুল হাসানের ভিত্তি মূল্য ৫০ লাখ রুপি। পেসারদের তালিকায় মোস্তাফিজকে ছাড়া বিদেশিদের মাঝে আরও রয়েছেন- কাগিসো রাবাদা, প্যাট কামিন্স, জশ হ্যাজলউড, মিচেল জনসন, টিম সাউদি, মিচেল ম্যাক্লিনাঘান ও লাসিথ মালিঙ্গা। তালিকায় দক্ষিন আফ্রিকার ডেল স্টেইন ও মরনে মরকেলেও রয়েছেন। বিস্তারিত

জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে টিকে রইল শ্রীলঙ্কা

জিতলেই ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে যাবে জিম্বাবুয়ের, টিকে থাকতে জিততেই হবে শ্রীলঙ্কাকে- এমন সমীকরণে ত্রিদেশীয় সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দুই দল। সফল হয়েছে শ্রীলঙ্কা। জিম্বাবুয়েকে ৫ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালের আশা বাঁচিয়ে রেখেছে লঙ্কানরা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
জিম্বাবুয়ে: ৪৪ ওভারে ১৯৮/১০ (মাসাকাদজা ২০, মিরে ২১, আরভিন ২, টেলর ৫৮, রাজা ৯, ওয়ালার ২৪, মুর ০, ক্রেমার ৩৪, জার্ভিস ৫, চাতারা ২*, মুজারাবানি ০; পেরেরা ৪/৩৩, প্রদীপ ৩/২৮, সান্দাকান ২/৫৭)।
শ্রীলঙ্কা: ৪৪.৫ ওভারে ২০২/৫ (পেরেরা ৪৯, থারাঙ্গা ১৭, মেন্ডিস ৩৬, ডিকভেলা ৭, চান্দিমাল ৩৮*, গুনারত্নে ৯, থিসারা ৩৯; মুজারাবানি ৩/৫২, জার্ভিস ১/৩৪, চাতারা ১/৪০)। বিস্তারিত

অ্যাশেজ হারের বদলা নিল ইংল্যান্ড

সিডনি: অ্যাসেজ সিরিজে ৪-০ ব্যবধানে অজিদের হাতে বিধ্বস্ত হতে হয়েছিল ইংল্যান্ডকে৷ পরবর্তী ওয়ান-ডে সিরিজেই অ্যাসেজ হারের মধুর প্রতিশোধ নিল ব্রিটিশরা৷ তৃতীয় ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ১৬ রানে পরাজিত করে দু’ম্যাচ বাকি থাকতেই পাঁচ ম্যাচের ওয়ান-ডে সিরিজ জয় নিশ্চিত করল ইংল্যান্ড৷

টসে জিতে অজি অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ প্রথমে ব্যাট করতে পাঠায় ইংল্যান্ডকে৷ জোস বাটলারের দুরন্ত শতরানে ভর করে ইংল্যান্ড নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩০২ রান তোলে৷ বাটলার ৮৩ বলে ১০০ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ তিনি ৬টি চার ও ৪টি ছয় মেরেছেন৷ একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাটলারের এটি পঞ্চম শতরান৷

ক্রিস ওকস ৩৬ বলে অপরাজিত ৫৩ রানের ঝোড়ে ইনিংস খেলেন৷ তিনি ৫টি চার ও ২টি ছয় মারেন৷ এছাড়া ইয়ন মর্গ্যান ৪১, জনি বেয়ারস্টো ৩৯, জো রুট ২৭ ও জেসন রয় ১৯ রান করেন৷ দু’টি উইকেট নিয়েছেন হ্যাজেলউড৷
জবাবে ব্যাট করতে নেমে অস্ট্রেলিয়া ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৮৬ রানের বেশি তুলতে পারেনি৷ অ্যারন ফিঞ্চ ৬২, মার্কাস স্টোইনিস ৫৬, মিচেল মার্শ ৫৫, স্টিভ স্মিথ ৪৫ ও টিম পেইন অপরাজিত ৩১ রান করেন৷ ৮ রানে আউট হন ওয়ার্নার৷
বিস্তারিত

শ্রীলংকার দরকার ১৯৯ রান

ঢাকা: ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয়ের জন্য ১৯৯ রানের লক্ষ্য পেয়েছে শ্রীলংকা।

টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ৪৪ ওভারে ১৯৮ রানেই গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৮ রান করেন ব্রেন্ডন টেইলর। এছাড়া গ্রায়েম ক্রেমার ৩৪ ও ম্যালকম ওয়ালার ২৪ রান করেন।

শ্রীলংকার পক্ষে থিসারা পেরেরা চারটি, নুয়ান প্রদীপ তিনটি ও লক্ষণ সান্দাকান দু'টি উইকেট নেন।
ঢাকার মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে রোববার বেলা ১২টায় ম্যাচটি শুরু হয়।
সিরিজে টিকে থাকতে জয়ের বিকল্প নেই— এমন সমীকরণ সামনে রেখে রোববার মাঠে নামে হারুথুসিংহের শ্রীলংকা।
শুরুতে টস ভাগ্য নিজেদের পক্ষে না পাওয়া শ্রীলংকা বল হাতেও সাফল্য পাচ্ছিল না। উদ্বোধনী জুটিতেই জিম্বাবুয়ে ৯.৫ ওভারে স্কোরকার্ডে তুলে ফেলে ৪৪ রান। দশম ওভারের শেষ বলে মাসাকাদজাকে সাজঘরে ফেরত পাঠানোর মধ্য দিয়ে খেলায় ফেরে শ্রীংলকা। নিয়মিত বিরতিতে তুলে নিতে থাকে জিম্বাবুয়ের উইকেট।
স্রোতের বিপরীতে একপ্রান্ত আগলে লড়াই চালিয়ে যান জিম্বাবুয়ের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন টেইলর। তুলে নেন অর্ধশতক। দলীয় ১৭১ রানে টেইলর আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে গেলে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ বড় করার সম্ভবনা স্তিমিত হয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ৬ ওভার বাকি থাকতে ১৯৮ রানেই গুটিয়ে যায় তারা।
টুর্নামেন্টের প্রথম লেগের ম্যাচে শ্রীলংকাকে হারানো জিম্বাবুয়ে এই ম্যাচে জয় তুলে নিতে পারলেই চলে যাবে ফাইনালে।
ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটে এবং দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলংকাকে ১৬৩ রানে বড় ব্যবধানে হারিয়ে দুটি বোনাস পয়েন্টসহ ১০ পয়েন্ট পেয়ে দুই ম্যাচ হাতে রেখেই ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ।
শ্রীলংকা দল: দিনেশ চান্ডিমাল (অধিনায়ক), উপুল তারাঙ্গা, দানুশকা গুনাথিলাকা, কুশল মেন্ডিজ, কুশল পেরেরা, থিসারা পেরেরা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ, আসেলা গুনারত্নে, নিরোশান ডিকভেলা, সুরঙ্গ লাকমাল, নুয়ান প্রদীপ, দুশমন্ত চামিরা, শেহান মাদুশানাকা, আকিলা ধনঞ্জয়া, লক্ষণ সান্দাকান ও বানিদু হাসারাঙ্গা।
জিম্বাবুয়ে দল: গ্রায়েম ক্রেমার (অধিনায়ক), হ্যামিলটন মাসাকাদজা, সলোমন মিরে, ক্রেইগ আরভিন, ব্রেন্ডন টেইলর, সিকান্দার রাজা, পিটার মুর, ম্যালকম ওয়ালার, রায়ান মারে, টেন্ডাই চিসোরো, ব্র্যান্ডন মাভুতা, ব্লেসিং মুজারাবানি, ক্রিস্টোফার এমপফু, টেন্ডাই চাতারা ও কাইল জার্ভিস। বিস্তারিত

সমালোচনার মুখে কোহলি

বিরাট কোহলি ভারতের টেস্ট দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ২০১৪ সাল থেকে। তাঁর ২১ টেস্ট সেঞ্চুরির মধ্যে ১৪টি পেয়েছেন অধিনায়ক হিসেবে। নেতৃত্বের ভার নিয়ে তাঁর ব্যাট দ্যুতি ছড়ালেও দল গড়ায় কোহলি ঠিক কতটুকু মুনশিয়ানা দেখাতে পেরেছেন? প্রশ্নটি তুলেছেন ভারতের খ্যাতনামা ক্রিকেট ধারাভাষ্যকার এবং বিশ্লেষক হর্শা ভোগলে। তাঁর মতে, ভারতের টেস্ট দলে ধারাবাহিক পরিবর্তন খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সে প্রভাব ফেলছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে গিয়ে প্রথম টেস্টে শিখর ধাওয়ানকে খেলায় ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। কিন্তু পরের টেস্টে তাঁকে দল থেকে ছেঁটে লোকেশ রাহুলকে খেলানো হয়েছে। এ ছাড়া প্রথম টেস্টে দারুণ বোলিং করা ভুবনেশ্বর কুমারকেও বসিয়ে খেলানো হয় ইশান্ত শর্মাকে। তারপরও ফল পাল্টাতে পারেননি কোহলি। প্রথম দুই টেস্ট হেরে সিরিজ খুইয়েছে ভারত। টেস্ট দলে কোহলির এই ধারাবাহিক পরিবর্তনের অভ্যাস কিন্তু নতুন কিছু না। নেতৃত্ব পাওয়ার থেকে এ পর্যন্ত ৩৪ টেস্টে কোহলি কখনো টানা দুই টেস্টে এক দল খেলাননি!

কিংবা ১১ খেলোয়াড়ের একটি ‘সেট’ কোহলি কখনো দ্বিতীয়বার মাঠে নামাননি। অর্থাৎ অধিনায়ক হিসেবে প্রতি টেস্টেই আলাদা আলাদা দল খেলিয়েছেন কোহলি। কেপটাউন এবং সেঞ্চুরিয়ন টেস্টে ভারতের দুটি আলাদা একাদশই তার সাম্প্রতিকতম প্রমাণ। তবে কোহলি যে এসব ক্ষেত্রে পুরোপুরি স্বৈরাচারী সিদ্ধান্ত নিয়ে এসেছেন, তা কিন্তু নয়। খেলোয়াড়দের চোট কিংবা নিজেকে প্রত্যাহার করে নেওয়াও কোহলি দল গঠনে প্রভাব ফেলেছে।
অধিনায়ক হিসেবে এই ৩৪ টেস্টে ২৮ জন আলাদা আলাদা খেলোয়াড় মাঠে নামিয়েছেন কোহলি। তাঁর অধীনে টেস্টে অভিষেক ঘটেছে ছয়জনের—করণ শর্মা, লোকেশ রাহুল, নোমান ওঝা, জয়ন্ত যাদব, করুণ নায়ার, হার্দিক পান্ডিয়া ও জসপ্রীত বুমরা। কোহলির নেতৃত্বে ভারতের টেস্ট দলে সবচেয়ে নিয়মিত মুখ রবিচন্দ্রন অশ্বিন (৩৩ টেস্ট)। এরপর আজিঙ্কা রাহানে (৩০ টেস্ট), চেতেশ্বর পূজারা ও ঋদ্ধিমান সাহা (২৯ টেস্ট), মুরালি বিজয় (২৫ টেস্ট), উমেশ যাদব (২৪ টেস্ট) ও রবীন্দ্র জাদেজা (২২ টেস্ট)।
দল নিয়ে কোহলির এই অনবরত কাটাছেঁড়ায় খেলোয়াড়েরা নিশ্চয়তার অভাবে ভুগছেন বলে মনে করছেন হর্শা ভোগলে। তাঁর মতে, রাহানে, রাহুল ও ধাওয়ান টেস্ট দলে আসা-যাওয়ার মধ্যে থাকায় তাঁদের পারফরম্যান্সে প্রভাব পড়েছ। বিদেশের মাটিতে রাহানের টেস্ট গড় পঞ্চাশের ওপরে হলেও দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে তাঁকে কোহলি এখনো বিবেচনা করেননি। ভোগলের ভাষ্য, ‘কোচ এবং অধিনায়কের যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা আছে। কিন্তু কোনো ক্রিকেটারকে দলে অনিরাপদ অবস্থানে ঠেলে দেওয়া উচিত নয়।’
বিস্তারিত

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিংয়ের অনুমতি পেলেন জিম্বাবুয়ের ভিটোরি

২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে জিম্বাবুয়ের পেসার ব্রিয়ান ভিটোরির বোলিং অ্যাকশন নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়। তার এক মাসের মাথায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার বোলিং নিষিদ্ধ করা হয়। নিজেকে শুধরে বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দেন তিনি। সেটা যাচাই-বাছাই শেষে আবারো ভিটোরিকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বল করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

দুই বছর আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে খুলনায় চার ওভার বল করে ৪৫ রান দিয়েছিলেন জিম্বাবুয়ের এই বোলার। তখনই তার বোলিং অ্যাকশন নিয়ে রিপোর্ট করেন আম্পায়াররা। এরপর তিনি চেন্নাইতে তিনি বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দেন। কিন্তু সেখানে দেখা যায় তার সবগুলো ডেলিভারিই আইসিসি অনুমোদিত ১৫ ডিগ্রির বেশি বেঁকে যায়। পরে তাকে নিষিদ্ধ করা হয়। এরপর নিজেকে শুধরে আবার পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি।
অবশ্য নিষিদ্ধ হওয়ার পর থেকে ভিটোরি জিম্বাবুয়ের ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলেছেন। সবশেষ ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে তিনি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটও খেলেছেন। ২৭ বছর বয়সী এই পেসারের অভিষেক হয় ২০১১ সালের আগস্টে। অভিষেকের পর জিম্বাবুয়ের হয়ে এ পর্যন্ত ৪টি টেস্ট, ২০টি ওয়ানডে ও ১১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন।
বিস্তারিত

ফাইনালের লক্ষ্যেই আজ মাঠে নামবে জিম্বাবুয়ে

ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে হার মানে জিম্বাবুয়ে। ওই ম্যাচে হারের পর তারা হয়তো ফাইনালে খেলার স্বপ্ন দেখতে কিছুটা হলেও ভয় পাচ্ছিল। কারণ, পরের ম্যাচ যে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। মাঠের লড়াইয়ে যাইহোক, কাগজে-কলমে জিম্বাবুয়ের চেয়ে শক্তিশালী দল শ্রীলঙ্কা।

কিন্তু সেই ম্যাচে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করে শ্রীলঙ্কাকে ১২ রানে হারিয়ে দিয়ে ফাইনালের স্বপ্ন আবার দেখতে শুরু করে হিথ স্ট্রিকের শিষ্যরা। শ্রীলঙ্কা তাদের পরের ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে ১৬৩ রানের বড় ব্যবধানে হেরে যাওয়ায় এখন স্বাগতিকদের সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল খেলার স্বপ্ন ভালোভাবেই দেখতে শুরু করেছে শেভরনসরা। আগামীকাল রোববার ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে আবার শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হবে ক্রেমার-রাজারা। দুপুর ১২টায় শুরু হবে ম্যাচ। যা মিরপুর থেকে সরাসরি সম্প্রচার করবে গাজী টিভি।
প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে শুরুতেই সলোমান মিরে ও হ্যামিলটন মাসাকাদজার উইকেট হারিয়ে পথভ্রষ্ট হয় জিম্বাবুয়ে। এরপর অবশ্য তারা আর সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। অবশ্য পরের ম্যাচেই মিরে ও মাসাকাদজা ৭৫ রানের জুটি গড়ে দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন। মাসাকাদজা ৭৩ রানের ইনিংস খেলেন। তার সঙ্গে সিকান্দার রাজা মিডল অর্ডারে ৮১ রানের ইনিংস খেলেন। তাতে স্কোরবোর্ডে ২৯০ রান যোগ করে আফ্রিকান দলটি। এরপর তাদের বোলাররা নিয়ন্ত্রিত বোলিং করে শ্রীলঙ্কাকে ২৭৮ রানেই আটকে দেয়।রোববারও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একইরকম পারফরম্যান্স করতে চায় জিম্বাবুয়ে। এক ম্যাচ হাতে রেখেই নিশ্চিত করতে চায় ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল।
এদিকে প্রথম দুই ম্যাচে হার মেনে ব্যাকফুটে চলে যাওয়া শ্রীলঙ্কা ঘুরে দাঁড়াতে বদ্ধ পরিকর। আগামীকাল জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ফাইনালে যাওয়ার আশা বাঁচিয়ে রাখতে চায় তারাও। ফাইনালে যেতে পরের দুটি ম্যাচই তাদের জিততে হবে। অন্যদিকে জিম্বাবুয়ে একটি ম্যাচ জিতলেই চলবে।
এখন দেখার বিষয় শেষ পর্যন্ত কাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হয়। কাদের মুখে ফোটে হাসি। বিস্তারিত

শ্রীলঙ্কাকে বড় ব্যবধানে হারাল বাংলাদেশ

ত্রিদেশীয় সিরিজের নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ১৬৩ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। প্রথমে ব্যাট করে বাংলাদেশের ছুড়ে দেওয়া ৩২১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কা ৩২.২ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৫৭ রানের বেশি করতে পারেনি।

স্কোর : শ্রীলঙ্কা : ১৫৭/৯ (৩২.২ ওভার শেষে)ব্যাটিং : প্রদীপ (০)। আউট : কুশাল পেরেরা (১), উপুল থারাঙ্গা (২৫), কুশাল মেন্ডিস (১৯), ডিকলেভা (১৬), চান্দিমাল (২৮), গুনারত্নে (১৬), হাসারাঙ্গা (০), পেরেরা (২৯), লাকমল (১) ও ও ধনঞ্জয়া (১৪)।
সাকিবের জোড়া আঘাত : ২৬তম ওভারের শেষ দুই বলে দুই উইকেট নেন সাকিব। প্রথমে আসেলা গুনারত্নেকে মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের হাতে ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরে ফেরান। পরের বলে মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ বানিয়ে হাসারাঙ্গাকে ফেরান সাকিব। গোল্ডেন ডাক মারেন হাসারাঙ্গা। গুনারত্নে করেন ১৬ রান। 
সাকিবের থ্রোতে চান্দিমাল আউট : সাইফউদ্দিনের করা ২৫তম ওভারের প্রথম বলটি ঠিকমতো খেলতে পারেননি দিনেশ চান্দিমাল। পরের বলটিতে রান নিতে গিয়ে আউট হয়ে যান তিনি। সাকিব আল হাসানের নিঁখুত থ্রোতে চান্দিমাল পৌঁছানোর আগেই স্ট্যাম্প ভেঙে যায়।
মুস্তাফিজ ফেরালেন ডিকভেলাকে : দলীয় ৮৫ রানের মাথায় মুস্তাফিজের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন নিরোশান ডিকভেলা। যাওয়ার আগে ২২ বল খেলে ১৬টি রান করে যান তিনি। 
মাশরাফির দ্বিতীয় শিকার মেন্ডিস : দলীয় ৬২ রানের মাথায় মাশরাফির করা ১৪তম ওভারের তৃতীয় বলে মিফঅফে রুবেল হোসেনের হাতে ধরা পড়েন কুশাল মেন্ডিস। যাওয়ার আগে ১৯টি রান করেন তিনি। 
মাশরাফি ফেরালেন থারাঙ্গাকে : দলীয় ৪৩ রানের মাথায় মাশরাফির করা দশম ওভারের চতুর্থ বলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন উপুল থারাঙ্গা।
নাসির ফেরালেন কুশাল পেরেরাকে : দলীয় ২ রানের মাথায় তৃতীয় ওভারের প্রথম বলেই কুশাল পেরেরাকে সাজঘরে ফেরান নাসির হোসেন। 
দুপুরে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩২০ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে বাংলাদেশের ইনিংসে অবদান রাখেন তামিম ইকবাল (৮৪), সাকিব আল হাসান (৬৭), মুশফিকুর রহিম (৬২), এনামুল হক (৩৫), মাহমুদউল্লাহ (২৪) ও সাব্বির রহমান (২৪*)।
বল হাতে শ্রীলঙ্কার থিসারা পেরেরা ৩টি উইকেট নিয়েছেন। ২টি উইকেট নিয়েছেন ফার্নান্দো। আর ১টি করে উইকেট নিয়েছেন আসেলা গুনারতেœ ও ধনঞ্জয়া।
প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে। অন্যদিকে শ্রীলঙ্কা তাদের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়ের কাছে ১২ রানের হার মেনেছে। বিস্তারিত

সেঞ্চুরি হল না তামিমের

ত্রিদেশীয় সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে মিরপুর শের-ই-বাংলায় দুপুর ১২টায় মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা।

স্কোর : বাংলাদেশ ১৭০/২ (২৯.১ ওভার)।
ব্যাটিং: সাকিব (৩৪), মুশফিক ।
আউট: এনামুল (৩৫), তামিম ৮২,।
তামিমের ফিফটি: ত্রিদেশীয় সিরিজের টানা দ্বিতীয় ম্যাচে ফিফটি তুলে নিলেন তামিম ইকবাল। ক্যারিয়ারের ৪০তম ওডিআই ফিফটি পেতে বেশ ধীরভাবেই এগোচ্ছিলেন তামিম। ৭২ বল মোকাবিলা করে ৫টি চারে ফিফটির দেখা পান তামিম। তার ফিফটিতে ভর করে দলীয় সংগ্রহ শতরান ছাড়িয়েছে বাংলাদেশ।
এনামুলকে ফেরালেন পেরেরা: ব্যাটিংয়ের শুরু থেকেই আজ আক্রমণাত্মক ছিলেন এনামুল হক বিজয়। কয়েকবার জীবন পেয়ে ব্যক্তিগত ৩৫ রানে ফিরলেন তিনি। ইনিংসের শুরুতেই সেকেন্ড স্লিপে তার ক্যাচ মিস করেন কুশল মেন্ডিস। মাঝে ব্যক্তিগত ৩৪ রানে আরও একবার ক্যাচ তুলে দিয়ে জীবন পেলেও ইনিংসের ১৫তম ওভারের শেষ বলে শেষ রক্ষা হয়নি তার। থিসারার শর্ট বল পুল করতে গিয়ে ব্যাটে খেলতে পারেননি এনামুল। বল তার গ্লাভস ছুঁয়ে উইকেটরক্ষক নিরোশান ডিকভেলার গ্লাভসে বন্দি হয়।  
টস: টস জিতে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, রুবেল হোসেন ও মু্স্তাফিজুর রহমান। 
শ্রীলঙ্কা দল: উপুল থারাঙ্গা, কুশল মেন্ডিস, দিনেশ চান্দিমাল, কুশল পেরেরা, থিসারা পেরেরা, আসেলা গুনারত্নে, নিরোশান ডিকভেলা, সুরাঙ্গা লাকমাল, নুয়ান প্রদীপ, আকিলা ধনঞ্জয়া, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা।
চার পেসার নিয়ে বাংলাদেশ: বাড়তি এক পেসার নিয়ে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। সানজামুল ইসলামের পরিবর্তে দলে পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন।
ঘুরে দাঁড়াতে পারবে তো লঙ্কানরা: জিম্বাবুয়েকে মিরপুরে উড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ। ব্যাট-বলের লড়াইয়ে বাংলাদেশ নিজেদের মাঠে শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করেছিল। কিন্তু উল্টো চিত্র শ্রীলঙ্কার। চন্ডিকা হাথুরুসিংহের দল প্রথম ম্যাচেই পেয়েছে হারের স্বাদ। জিম্বাবুয়ে তাদের হারিয়েছে ১২ রানে। আজ লঙ্কানরা বাংলাদেশকে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে পারে কিনা সেটাই দেখার। অন্যদিকে জয়ের ধারা অব্যাহত রাখার চ্যালেঞ্জ নিয়ে মাঠে নামছে মাশরাফির দল।
বাংলাদেশ ৫: শ্রীলঙ্কা ৩৪ : দুই দলের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে বাংলাদেশ এগিয়ে থাকলেও ওভারঅল মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে শ্রীলঙ্কা। ৪১ মুখোমুখিতে বাংলাদেশ জিতেছে ৫টিতে। শ্রীলঙ্কা ৩৪টিতে। ২টি ম্যাচের ফল আসেনি।
ম্যাথুস আউট : হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলা হচ্ছে না শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের। তার পরিবর্তে লঙ্কানদের নেতৃত্বে দিচ্ছেন দিনেশ চান্দিমাল।
১২৬ রান দূরে তামিম : নির্দিষ্ট ভেন্যুতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়তে তামিম ইকবালের প্রয়োজন ১২৬ রান। মিরপুর শের-ই-বাংলায় তামিম ৭২ ওয়ানডেতে করেছেন ২৩৮৯ রান। তার উপরে রয়েছেন ইনজামাম-উল-হক (শারজাহ, ২৪৬৪) এবং সনাৎ জয়াসুরিয়া (আর. প্রেমাদাসা ২৫১৪)। মিরপুরে সাকিবের রান ২২৫১। বিস্তারিত

আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার বিরাট কোহলি

২০১৭ সালের সেরা ক্রিকেটার হিসেবে কোহলির নাম ঘোষণা করেছে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসসি।

বছরজুড়ে ধারাবাহিক পারফরম্যান্স দেখানোর ফলেই এই পুরস্কার তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ২০১৭ সালের বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটারের পুরস্কারও জেতার পাশাপাশি বর্ষসেরা টেস্ট ও ওয়ানডে একাদশের অধিনায়কও নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার স্টিভেন স্মিথ জিতেছেন বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের পুরস্কার।
টেস্টের বর্ষসেরা একাদশ: ডিন এলগার, ডেভিড ওয়ার্নার, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), স্টিভেন স্মিথ, চেতশ্বর পুজারা, বেন স্টোকস, কুইন্টন ডি কক (উইকেট কিপার), রবিচন্দ্রন অশ্বিন, মিচেল স্টার্ক, কাগিসো রাবাদা, জেমস অ্যান্ডারসন।
ওয়ানডের বর্ষসেরা একাদশ: ডেভিড ওয়ার্নার, রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), বাবর আজম, এবি ডি ভিলিয়ার্স, কুইন্টন ডি কক (উইকেটকিপার), বেন স্টোকস, ট্রেন্ট বোল্ট, হাসান আলি, রশিদ খান, জাসপ্রিত বুমরাহ। বিস্তারিত

ফুটবলকে বিদায় রোনাল্ডিনহোর

১০১ বার ব্রাজিলের জার্সি গায়ে চাপিয়েছেন। ৩৫ বার বিপক্ষের জালে বল জড়িয়েছেন। নো-লুক পাস থেকে ফ্রি-হুইলিং স্টাইল, ব্রাজিলের শিল্পিত ফুটবলের সৌন্দর্য নিজের পায়ের জাদুতে অনেকটাই বাড়িয়ে দিয়েছিলেন তিনি। কে ভুলতে পারে সেই অবিশ্বাস্য ফ্রি-কিক! তবে আপাতত সে সব স্মৃতির সরণিতেই তুলে রাখতে হবে। কারণ বিশ্ব ফুটবলকে বিদায় জানাচ্ছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা রোনাল্ডিনহো।

২০১৫ সাল থেকে আর মাঠে তাঁকে তেমন দেখা যায়নি। ব্রাজিলের এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ, তিনি অবসরই নিয়েছেন। তবে একটি ফেয়ারওয়েল ম্যাচের কথা ভাবা হচ্ছে। তারকা ফুটবলারকে যথাযোগ্য সম্মান দিয়েই বিদায় জানানো হবে। এ কথা জানিয়েছেন তাঁর ভাই তথা এজেন্ট। ফলে বিশ্ব ফুটবল থেকে যে রোনাল্ডিনহো জাদু ফিকে হচ্ছে তা নিশ্চিত।

রোনাল্ডিনহোর সঙ্গে দুটি নাম জড়িয়ে আছে অঙ্গাঙ্গীভাবে। ব্রাজিল আর বার্সেলোনা। দেশের হয়ে বিশ্বকাপ জিতেছেন। আর ক্লাবের হয়ে বোধহয় জীবনের সেরা সময়টা কাটিয়েছেন এই তারকা ফুটবলার। কেরিয়ারে প্রায় সাতটি ক্লাবে খেলেছেন। কিন্তু বার্সেলোনা তাঁর কেরিয়ারের সোনার অধ্যায়। ২০০৩-২০০৮, টানা পাঁচবছর এই ক্লাবে খেলেন তিনি। সারা বিশ্ব এই সময়েই মজেছিল তাঁর ফুটবল জাদুতে। পরবর্তীকালে মিলানে গিয়েছিলেন। সাফল্য পেয়েছেন ঠিকই। কিন্তু কখনওই বার্সার উচ্চতায় পৌঁছাতে পারেননি। দেশের হয়েও চোখধাঁধানো সাফল্য পেয়েছিলেন। ২০০২ –এর বিশ্বকাপে প্রায় ৪০ গজ দূর থেকে নেওয়া তাঁর ফ্রি-কিক আজও ফুটবলপ্রেমীদের চোখে ভাসে। সেই একটা শটেই ইংল্যান্ডের কাপজয়ের আশার ভরাডুবি হয়েছিল। স্টাইলিশ ফুটবলে গোটা মাঠে জাদু ছড়িয়ে রাখতেন। ব্রাজিল দুর্গের নির্ভরযোগ্য মিডফিল্ডারও ছিলেন তিনিই।
তবে নিজেই যে মাত্রা বেঁধে দিয়েছিলেন, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বারবার তাঁর কাছে পরাস্ত হয়েছেন। তবে প্রাপ্তি কম নয়। বিশ্বকাপ থেকে ব্যালন-ডি-অর পাননি এরকম কিছুই নেই। তবু ক্রমে ক্রমে জাদু ফুরোচ্ছিল। আর তাই বুটজোড়া তুলে রাখার সিদ্ধান্তই নিয়েছেন তিনি।
বিস্তারিত

হাথুরুসিংহের পরিকল্পনা ভুলে গেছে বাংলাদেশ: মাশরাফি

গত অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পরই বাংলাদেশের কোচের পদ ছেড়ে দেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। নিজ দেশ শ্রীলংকার কোচের দায়িত্ব নেন তিনি। তাই বাংলাদেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজটি হাথুরুসিংহের প্রথম অ্যাসাইনমেন্ট। ইতোমধ্যে জিম্বাবুয়ের কাছে হেরে নিজ দায়িত্ব শুরু করেন হাথুরু। তবে আগামীকাল ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে হাথুরুর সাবেক দল বাংলাদেশের মুখোমুখি হচ্ছে শ্রীলংকা। তাই স্বাভাবিকভাবে বাংলাদেশের বিপক্ষ হিসেবে হাথুরুসিংহকেই বলা হচ্ছে।
 aতবে এসব নিয়ে ভাবতে রাজি নন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এমনকি বাংলাদেশ দলের কোচ থাকা অবস্থায় হাথুরুসিংহের করা পরিকল্পনাগুলোও দল ভুলে গেছে বলে জানান মাশরাফি, ‘পেশাদার ক্রিকেটে এই ধরনের ঘটনা এটাই প্রথম না। সম্প্রতি যে কোচ ছিল তার মুখোমুখি হওয়া এই প্রথম না। আর সত্যি বলতে, আমরা এটা অনেক আগেই পেছনে ফেলে এসেছি। যখন তিনি চলে গেছেন তার পরিকল্পনা আমরা পুরোটাই ভুলে গেছি। এখন যারা কোচ আছেন, তাদের সাথে আমরা মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছি। এখানে তার ব্যাপারটা নিয়ে আর ভাবার কোন অবকাশই নেই।’ 
তারপরও হাথুরুসিংহের প্রসঙ্গ চলে আসায় বাড়তি চাপ পড়ছে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে মাশরাফি বলেন, ‘আমাদের এ ম্যাচ খেলতে হবে, জিততে হবে। এর বাইওে অন্য কিছু চিন্তা করার সুযোগ নেই। চিন্তা করলে আরও বেশি চাপ আসে। আমার কাছে মনে হয় খেলার দিকেই সবার মনোযোগ থাকে। সেটাই আছে। আমাদের লক্ষ্য ভালো ক্রিকেট খেলা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে যেভাবে খেলেছি, সেভাবেই খেলতে চাই।’ শ্রীলংকাকে হারিয়ে বাংলাদেশের সাথে প্রথম দেখায় হাথুরুসিংহেকে চমকে দেওয়ার কোন পরিকল্পনা দলের নেই বলে জানান মাশরাফি, ‘আলাদা করে চমক দেওয়ার কিছু নেই। আমরা যেভাবে খেলতাম, সেভাবেই খেলব। হাথুরুসিংহে থাকতেও এখানে এসে বলতাম আমরা আত্মবিশ্বাস ও স্বাধীনতা নিয়ে ক্রিকেট খেলতে চাই। আপনি যদি দেখেন প্রায় তিন-আড়াই বছর পর বিজয় দলে এসে যেভাবে ক্রিকেট খেলেছে, আমরা ঠিক এটাই চাই। ভয়হীন ক্রিকেট খেলুক।’২০১৪ সালের মে মাসে বাংলাদেশ দলের কোচের দায়িত্ব নেন হাথুরুসিংহে। এরপর তার অধীনে ১৭ টেস্টে ৫ জয় ৮ হার ৪ ড্র, ৩৭ ওয়ানডেতে ২০ জয় ১৩ হার এবং ২৫ টুয়েন্টি টুয়েন্টি ম্যাচে ৯ জয় ১১ হারের স্বাদ নেয় বাংলাদেশ। তাই বাংলাদেশের আদ্যপান্থ সবই জানা হাথুরুসিংহের। তাই হাথুরুসিংহে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবেই থাকবেন বাংলাদেশের জন্য। এ ব্যাপারে মাশরাফি বলেন, ‘চ্যালেঞ্জ আসলে সব জায়গাতেই থাকে। হাথুরুসিংহে যখন এখানে ছিল, তখন তার ওপরে এক রকম চ্যালেঞ্জ ছিল। হয়তো দক্ষিণ আফ্রিকায় আমরা পুরোটা হেরে আসার পর চ্যালেঞ্জটা আরও বেশি হতো। আরও উপভোগ্য হতো। তিনি থাকেননি, শ্রীলঙ্কাকে বেছে নিয়েছেন। এখন তার আরেক রকম চ্যালেঞ্জ।  আমাদেরও চ্যালেঞ্জ, যখন ছিল কথা তো সব আমরাই শুনেছি। চ্যালেঞ্জ তো সব সময় আমাদেরকেই নিতে হয়। এই চ্যালেঞ্জটা থাকছে, এখনও যে নাই তা না। আর আমরা এই টুর্নামেন্টটা যদি জিতিও পরের সিরিজে তো একই চাপ থাকবে। বাংলাদেশের হয়ে খেললে এই চ্যালেঞ্জ থাকবেই। নতুন কিছু নয়।’  বিস্তারিত

বড় ধরনের বিপদ থেকে বাচঁলেন শোয়েব!

হ্যামিল্টন: বড় রকমের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারত ক্রিকেটমাঠে। শোয়েব মালিকের সঙ্গে আছেন বলে অল্পের উপর দিয়ে ব্যাপারটা গিয়েছে। নাহলে কী যে হত! শিউরে উঠছেন ক্রিকেটপাগলরা।

হ্যামিল্টনে অনুষ্ঠিত চতুর্থ ওয়ানডের ঘটনা। পাক-ইনিংসের ৩২-তম ওভারের দ্বিতীয় বলে সিঙ্গল নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন শোয়েব মালিক। অন্য প্রান্তে ছিলেন মহম্মদ হাফিজ। সিঙ্গল নেওয়া সম্ভব নয় দেখে শোয়েব মালিককে ফিরিয়ে দেন হাফিজ।

জীবন ফিরে পাওয়ার মরিয়া চেষ্টা করেন শোয়েব। সেই সময়ে কভার থেকে থ্রো করেন কিউয়ি কলিন মানরো। তাঁর ছোড়া বল সরাসরি মালিকের মাথায় আঘাত করে।
মালিকের মাথায় আঘাত করা বলটা ফাইন লেগ দিয়ে বাউন্ডারিতে পৌঁছে যায়। তার জন্য চার রান পাওয়া গেলেও তখনকার মতো সবার মুখ ফ্যাকাসে হয়ে গিয়েছিল।
মালিকের মাথায় ছিল না হেলমেট। মানরোর ছোড়া বলের আঘাতে মাটিতে শুয়ে পড়েন শোয়েব। কিউয়ি ক্রিকেটাররা ছুটে আসেন মালিকের কাছে। প্রাক্তন পাক অধিনায়ক তখন মাটিতে লুটিয়ে পড়েছেন। দ্রুতই অবশ্য  নিজেকে সামলে নেন দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার। এই ঘটনার ঠিক চার বল পরেই আউট হয়ে যান মালিক।
আউট হওয়ার পরে শোয়েবকে পরীক্ষা করা হয়। তিনি ঠিক আছে বলেই জানানো হয় পাকিস্তান শিবির থেকে।
বিস্তারিত

কোহলির জরিমানা

টেস্টে ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির শাস্তি। শাস্তিস্বরূপ ভারত অধিনায়কের ম্যাচ ফি-র ২৫ শতাংশ জরিমানা করা হয়। ঘটনার সূত্রপাত সেঞ্চুয়িন টেস্টের তৃতীয় দিনে দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় ইনিংসের ২৫ ওভারে। চা-পানের বিরতির পর বৃষ্টির জন্য ম্যাচ শুরু হলে বল নিয়ে সমস্যা দেখা দেয়।

আউটফিল্ড ভিজে থাকায় ভারতীয় বোলারদের ভিজে বল গ্রিপ করতে সমস্যা শুরু হয়। বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকবার আম্পায়ার মাইকেল গফের কাছে অভিযোগ করেন বিরাট। অসন্তুষ্ট বিরাট মাটিতে ছুঁড়ে মারেন বল। ঘটনার জন্য আইসিসির আচরণ বিধির লেবেল ১ লঙ্ঘন করায় শাস্তি বিরাটের। আইসিসি-র বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিরাটকে আইসিসি আচরণবিধির ২.১.১ ধারা লঙ্ঘণ করতে দেখা গিয়েছে। খেলার ভাবধারার বিরুদ্ধাচরণ সংক্রান্ত ওই ধারা লঙ্ঘনের জন্যই শাস্তি হয়েছে ভারত অধিনায়কের।

এই আচরণের জন্য বিরাটকে এক ডিমেরিট পয়েন্টও দেওয়া হয়েছে। বিস্তারিত

অভিযুক্ত স্টোকস

ব্রিস্টলে নাইট ক্লাবে মারামারির ঘটনায় বেন স্টোকসের বিরুদ্ধে পুলিশি তদন্ত চলছিল। সেই তদন্ত অবশেষে শেষ হয়েছে। তদন্ত শেষে ইংলিশ এই অলরাউন্ডারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে ক্রাউন প্রসিকিউশন সার্ভিস (সিপিএস)।

ঘটনায় স্টোকসের সঙ্গে অভিযুক্ত হয়েছেন আরো দুজন। ব্রিস্টলে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চলবে তাদের বিচার কাজ। তাদের আদালতে হাজির হওয়ার তারিখ পরে জানানো হবে। আর বিচারে দোষী প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ তিন বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে স্টোকসের। 
তদন্ত শেষে সোমবার অ্যাভন ও সমারসেট পুলিশ এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘ব্রিস্টলের কুইন্স রোডের ঘটনায় তিন ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তারা হলেন বেন স্টোকস (২৬), রায়ান আলী (২৮) ও রায়ান হেল (২৬)। সকল প্রমাণ পর্যালোচনা করে এই তিন ব্যক্তির বিরুদ্ধে মারামারির অভিযোগ দায়ের করার অনুমতি দিয়েছে সিপিএস।’
স্টোকস এক বিবৃতিতে তার পাশে থাকার জন্য পরিবার, বন্ধু, সমর্থক ও সতীর্থদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। আদালতেই তিনি নিজের অবস্থান পরিষ্কার করতে চান, ‘আমি আমার নাম পরিষ্কার করার সুযোগের অপেক্ষায় আছি। তবে সঠিক সময়ে এটা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে আমাকে, আর সেটা হবে শুনানিতে। সিপিএস আমাকে অভিযুক্ত করেছে, রায়ান আলী ও রায়ান হেলকেও। এর মানে হলো ওই রাতের ঘটনা কোর্টের মাধ্যমে জনসম্মুখে আসবে। তার আগ পর্যন্ত আমার পুরো মনোযোগ থাকবে ক্রিকেটে।’
গত ২৫ সেপ্টেম্বর ব্রিস্টলে সেই মারামারির ঘটনার সময় স্টোকসের সঙ্গে ছিলেন সতীর্থ অ্যালেক্স হেলস। ঘটনার দুই দিন পর দুজনকেই পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত ইংল্যান্ড দল থেকে নিষিদ্ধ করা হয়। পরে হেলসকে অভিযোগ থেকে মুক্তি দেওয়া হয়। কিন্তু স্টোকস ইংল্যান্ডের অ্যাশেজ ও ওয়ানডে দলে থাকলেও তদন্ত শেষ না হওয়ায় অস্ট্রেলিয়া যেতে পারেননি।
জাতীয় দলে খেলতে না পারায় ডিসেম্বরে নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটে ছয়টি ম্যাচ খেলেন স্টোকস। ক্যান্টারবুরির হয়ে খেলেন তিনটি একদিনের ও তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। এ মাসের শেষ দিকে হতে যাওয়া আইপিএলের নিলামেও আছে তার নাম।
বিস্তারিত

লাথি মেরে বরখাস্ত রেফারি

নতের বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পেয়েছে প্যারিস সেন্ট জার্মেই। তবে ম্যাচ শেষে ফলাফল ছাপিয়ে বেশি আলোচিত হয়েছে রেফারি ও কার্লোসের ঘটনা। ম্যাচের শেষ দিকে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে নঁতের ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে পড়ে যান রেফারি। রেফারি মাঠে বসে থাকা অবস্থাতেই প্রথমে কার্লোসকে লাথি মারেন। পরবর্তী সময়ে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেন!

পরবর্তীতে এই ঘটনা ফরাসি লিগ কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে সাময়িকভাবে টনি শ্যাপরন নামের এই রেফারি বরখাস্ত করা হয়। চলতি লিগ ওয়ানে পরবর্তী শুনানি পর্যন্ত আর ম্যাচ খেলাতে পারবেন না তিনি। 
ম্যাচ শেষে যদিও ব্যাপারটি অস্বীকার করেছেন এই ফরাসি রেফারি। তার মতে, মাঠের শিশিরে পা পিছলে কার্লোসের গায়ে লেগেছে। ফরাসি রেফারির এই কথা যে পুরো মিথ্যা তা ম্যাচের পরে একটি ভিডিও রিপ্লেতে ধরা পড়ে। অবশেষে নিজের ‘কুৎসিত’ আচরণের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন শ্যাপরন। তিনি বলেছেন, ‘সাময়িক ব্যথার চোটে রেগে ওই কাজ করেছি।’


বিস্তারিত

পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে রুবেলের ‘সেঞ্চুরির’ গৌরব

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচেই দারুণ এক মাইলফলকে পৌঁছলেন টাইগার গতি তারকা রুবেল হোসেন। বাংলাদেশের পঞ্চম বোলার হিসেবে ১০০ উইকেটের মাইলফলক পৌঁছে গেলেন এই গতিদানব। তার ১০০তম শিকার হলেন জিম্বাবুয়ের লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যান টেন্ডাই চাতারা। রুবেলের বল চাতারার ব্যাটের কানায় লেগে স্টাম্পে আঘাত হানে।

বাংলাদেশের হয়ে প্রথম ১০০ উইকেট শিকারি হলেন সাবেক স্পিন মহাতারকা মোহাম্মদ রফিক। এই কিংবদন্তি বাঁহাতি স্পিনারের পর এই ক্লাবের সদস্য হন আব্দুর রাজ্জাক, মাশরাফি বিন মুর্তজা ও সাকিব আল হাসান। দীর্ঘদিন ধরে এই চারজনই ছিলেন ১০০ বা তদুর্ধ উইকেট শিকারীদের ক্লাবে। আজ এই দলে যোগ দিলেন রুবেল।
টাইগার ক্যাপ্টেন মাশরাফি সবখানেই যেন আলাদা। এই পাঁচজনের মধ্যে তিনিই সবচেয়ে দ্রুততম সময়ে ১০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেন। তিনি ৭৮তম ম্যাচেই ১০০ উইকেট শিকার করেন। এছাড়া  ৭৯তম ম্যাচে রাজ্জাক, ৮৮তম ম্যাচে সাকিব এবং ক্যারিয়ারের ১০৩ তম ম্যাচে ১০০ উইকেট নিয়েছিলেন মোহাম্মদ রফিক। আজ নিজের ৮১তম ম্যাচে এই কীর্তি গড়লেন রুবেল।
বিস্তারিত

৩৬ রানে অলআউট, সব রানই দিয়েছেন একজন বোলার!

ক্রিকেটে কত অদ্ভুত ঘটনাই না ঘটে। তবে এবারের ঘটনা যেন আগের সবকিছুকে ছাপিয়ে গেল! শ্রীলঙ্কার ঘরোয়া ক্রিকেটে ‘বি’ টায়ারের একটা টুর্নামেন্টে এক দল অলআউট হয়েছে ৩৬ রানে। সব রান দিয়েছেন প্রতিপক্ষের একজন বোলার!

পানাদুরায় শ্রীলঙ্কা এয়ার ফোর্স স্পোর্টস ক্লাব ও পানাদুরা স্পোর্টস ক্লাবের মধ্যকার তিন দিনের এই ম্যাচে গত শনিবারের ঘটনা এটি। এয়ার ফোর্স টস জিতে প্রতিপক্ষকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিল। এয়ার ফোর্সের বোলাররা অধিনায়ককে হতাশ করেনি, তারা প্রতিপক্ষের প্রথম ইনিংস গুটিয়ে দেয় ১৭৬ রানে। সোহান রঙ্গিকা নেন ৫ উইকেট। জবাবে অধিনায়কের ৯৬ রানের সুবাদে এয়ার ফোর্স তোলে ৩০৯ রান। প্রথম ইনিংসে তাদের লিড ১৩৩ রানের।
পিছিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে পানাদুরা স্পোর্টস ক্লাবের দ্বিতীয় ইনিংস গুটিয়ে যায় মাত্র ৩৬ রানে। তারা ম্যাচ হারে ইনিংস ও ৯৭ রানে। ৩৬ রানে অলআউট হওয়াই একটা বিরল ঘটনা। তবে এর চেয়েও বিরল ঘটনা, সেই রান যদি দেন একজন বোলার!
এয়ার ফোর্স তিনজন বোলার ব্যবহার করেছিল। পানাদুরা স্পোর্টস ক্লাবের ১০ উইকেট তুলে নিতে তাদের লেগেছে মাত্র ১৩.৩ ওভার। মিলান রাথনায়েকে ৭ ওভারে নিয়েছেন ৫ উইকেট। ৪ ওভার বল করে একটি উইকেট নিয়েছেন বুদ্দিকা সান্দারুয়ান। এই ৪ ওভারে তিনি কোনো রান দেননি। রঙ্গিকা মাত্র ২.৩ ওভারে নেন ৪ উইকেট। তিনিও কোনো রান খরচ করেননি। পানাদুরা স্পোর্টস ক্লাবের ৩৬ রানই এসেছে রাথনায়েকের ৭ ওভার থেকে!
   বিস্তারিত

খেলোয়াড়কে লাথি মেরে লাল কার্ড দেখালেন রেফারি!

ফরাসি লিগ ওয়ানে গতকাল রাতে ডি মারিয়ার একমাত্র গোলে নঁতের বিপক্ষে জয় পেয়েছে প্যারিস সেইন্ট জার্মেই। ওই ম্যাচ চলাকালীন স্বাগতিক দল নতেঁর এক খেলোয়াড়ের সঙ্গে সংঘর্ষে দুর্ভাগ্যজনকভাবে পড়ে যান ম্যাচ রেফারি। এরপর ওই খেলোয়াড়কে নিজেই লাথি মেরে লাল কার্ড দেখিয়েছেন রেফারি!

ঘটনাটি ঘটেছে ম্যাচের ৯০ মিনিটে নঁতের মাঠে। বলের পিছনে ছুঁটতে গিয়ে স্বাগতিক দলের ডিফেন্ডার ডিয়েগো কার্লোসের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় ম্যাচ রেফারি টনি চাপরনের। সংঘর্ষের পর সবাইকে বিস্মিত করে ডিফেন্ডার কার্লসকে লাথি দেন রেফারি। শুধু এখানেই থেমে থাকেননি তিনি। উঠে দ্বিতীয় হলুদ কার্ডের পর কার্লোসকে লাল কার্ড দেখান তিনি। রেফারির এমন বেপরোয়া আচরণে বিস্মিত ফুটবলবোদ্ধারা। অথচ ভিডিওতে দেখা যায় কার্লোসকে নিজেই ক্রস করে সামনে যাওয়ার সময় সংঘর্ষ লেগে মাঠে পড়ে যান টনি চাপরন।
মাঠে খেলোয়াড়ের সঙ্গে রেফারির এমন কাণ্ডজ্ঞানহীন আচরণ ক্ষুব্ধ নঁতের সভাপতি ওয়াল্ডিমার কিটা। তিনি ওই ম্যাচের মাঠ রেফারি টনি চাপরনের ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা দাবি করছেন।
ম্যাচ শেষে এল ইকুপিকে দেওয়া সাক্ষাতকারে নঁতের সভাপতি ওয়াল্ডিমার কিটা বলেন, ‘ম্যাচের শেষ সময়ে রেফারির এমন আচরণ আমাকে হাসিয়েছে। আমি এমন ঘটনা আগে দেখিনি। তাকে ছয় মাস নিষিদ্ধ করা উচিত।এমনটা করলে আমরা ঠিকই ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ হতাম।’
শেষ সময়ে নঁত দশ জনের দলে পরিণত হওয়ার পর ম্যাচের ফলাফলে কোনো পরিবর্তন আসেনি। ডি মারিয়ার গোলে ১-০ ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পিএজি।
বিস্তারিত

বাংলাদেশের কাছে পাত্তাই পেল না জিম্বাবুয়ে

ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে পাত্তাই পায়নি জিম্বাবুয়ে। ৮ উইকেটের বড় জয়ে সিরিজ শুরু করেছে বাংলাদেশ।

সাকিব আল হাসান, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেনদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে এক ওভার বাকি থাকতে জিম্বাবুয়ে গুটিয়ে যায় ১৭০ রানে। জবাবে তামিম ইকবালের অপরাজিত ৮৪ রানের সুবাদে ১২৯ বল বাকি থাকতেই ম্যাচ জিতেছে বাংলাদেশ। ৯৩ বলে ৮ চার ও এক ছক্কায় ৮৪ রানের ইনিংসটি সাজান তামিম। 
সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ১৭১/২ (ওভার ২৮.৩)। (তামিম (৮৪*, বিজয় ১৯, সাকিব ৪৭, মুশফিক ১৪*; রাজা ২/৫৩)। 
তামিমের দারুণ ফিফটি: ব্যক্তিগত ৪১ থেকে সিকান্দার রাজাকে টানা দুই চারে তামিম পৌঁছে যান ৪৯ রানে। এক বল পরই সিঙ্গেল নিয়ে পূর্ণ করেন ফিফটি। ৬৬ বলে ফিফটি করতে ৫টি চার মেরেছেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। 
রিভিউ নিয়ে সাকিবকে ফেরাল জিম্বাবুয়ে: সিকান্দার রাজার বলে শট খেলতে গিয়েছিলেন সাকিব। কিন্তু বল সরাসরি আঘাত হানে তার প্যাডে। জিম্বাবুয়ের খেলোয়াড়দের জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার চান রিভিউ। তাতে পাল্টে সিদ্ধান্ত। ৪৬ বলে ৫টি চারে ৩৭ রান করে ফেরেন তিনে নামা সাকিব। বাংলাদেশের সংগ্রহ তখন ১৯.১ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ১০৮ রান। 
সাকিব-তামিম জুটির পঞ্চাশ: এনামুল হক বিজয়ের বিদায়ের পর বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তামিম ও সাকিব। এরই মধ্যে তাদের জুটির পঞ্চাশ পেরিয়েছে। ৫৯ বলে এসেছে জুটির পঞ্চাশ।
আক্রমণাত্মক শুরুর পর বিজয়ের বিদায়: প্রায় তিন বছর পর ওয়ানডে খেলতে নেমেছিলেন। শুরুটা ভালোই করেছিলেন এনামুল হক বিজয়। মুখোমুখি প্রথম বলেই চার হাঁকিয়ে খোলেন রানের খাতা। এরপর আরো তিনটি দারুণ চার মারেন। কিন্তু ইনিংস বড় করতে পারেননি। চতুর্থ ওভারে স্পিনার সিকান্দার রাজার শেষ বল ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ডিপ স্কয়ার লেগে ক্রেইগ আরভিনকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ১৪ বলে ৪টি চারে বিজয় ১৯ রান করে ফেরার সময় বাংলাদেশের স্কোর ১ উইকেটে ৩০।    
বোলিংয়ে দুর্দান্ত বাংলাদেশ: টস জিতে বোলিং নিয়ে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখাল বাংলাদেশ। সাকিব ইনিংসের প্রথম ওভারেই নিয়েছিলেন দুই উইকেট। এরপর আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট হারিয়েছে তারা। সিকান্দার রাজার ফিফটিতে অলআউট হওয়ার আগে কোনোমতে ১৭০ রান করতে পেরেছে সফরকারীরা। ৪৩ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন সাকিব। রুবেল ২৪ রানে ২টি ও মুস্তাফিজ ২৯ রানে নিয়েছেন ২টি উইকেট। সানজামুল ও মাশরাফি পেয়েছেন একটি করে উইকেট।


১৭০ রানে অলআউট জিম্বাবুয়ে: ব্লেসিং বুজারাবানিকে বোল্ড করে জিম্বাবুয়ের ইনিংসের ইতি টেনেছেন মুস্তাফিজুর রহমান। ৪৯ ওভারে ১৭০ রানে অলআউট হয়েছে জিম্বাবুয়ে। 
জোড়ায় রুবেলের সেঞ্চুরি: পরপর দুই বলে দুই উইকেট নিয়েছেন রুবেল হোসেন। দুটিই বোল্ড। পিটার মুরের (৩৩) পর বোল্ড হয়েছেন টেন্ডাই চাতারা। এই দুই উইকেটে মাশরাফির পর বাংলাদেশের দ্বিতীয় পেসার হিসেবে একশ ওয়ানডে উইকেটের স্বাদ পেলেন রুবেল।  
রানে আউটে ফিরলেন রাজা: সিকান্দার রাজার লড়াকু ইনিংস থেমেছে রান আউটে। নাসির হোসেনের বল স্কয়ার লেগে ঠেলে সিঙ্গেল নিতে ছুটেছিলেন রাজা। কিন্তু নন স্ট্রাইকে থাকা পিটার মুর ফিরিয়ে দেন রাজাকে। বল ধরে দ্রুত মুশফিকের হাতে দেন সাকিব। মুশফিক ভেঙে দেন স্টাম্প, ততক্ষণে রাজা আর ফিরতে পারেননি। ৯৯ বলে ২টি করে চার ও ছক্কায় ৫২ রান করেন রাজা।       
রাজার ফিফটি: সতীর্থদের ব্যর্থতার দিনে একাই লড়ছেন সিকান্দার রাজা। নাসির হোসেনের বলে চার মেরে ৯২ বলে ফিফটি করেছেন তিনি। এটি তার নবম ওয়ানডে ফিফটি।
ওয়ালারকে ফেরালেন সানজামুল: এক বল আগে নিজের বলে ম্যালকম ওয়ালারের ফিরতি ক্যাচ ছেড়েছিলেন সানজামুল। তবে এক বল পরই ওয়ারলারের উইকেটটা পান বাঁহাতি এই স্পিনার। স্লিপে সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দেন জিম্বাবুইয়ান ব্যাটসম্যান। দুইবার জীবন পেয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি ওয়ালার (১৩)। জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ তখন ৫ উইকেটে ৮১।
সহজ ক্যাচ ছাড়লেন নাসির: ওয়ানডেতে বাংলাদেশের দ্বিতীয় পেসার হিসেবে একশ উইকেট নিতে রুবেল হোসেনের চাই ২ উইকেট। উইকেটের সেঞ্চুরির পথে নিজের প্রথম ওভারেই এক ধাপ এগিয়ে যেতে পারতেন ডানহাতি পেসার। কিন্তু স্লিপে ম্যালকম ওয়ালারের সহজ ক্যাচ ফেলেছেন নাসির হোসেন। ৪ রানে জীবন পেয়েছেন ওয়ালার।
  টেলরকে ফেরালেন মুস্তাফিজ: মুস্তাফিজের বলে মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন ব্রেন্ডন টেলর (২৪)। জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ তখন ৪ উইকেটে ৫১। সিকান্দার রাজার সঙ্গে নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে যোগ দিয়েছেন ম্যালকম ওয়ালার।   
এবার মাশরাফির ছোবল: সাকিবের পর জিম্বাবুয়ে শিবিরে আঘাত হেনেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। অষ্টম ওভারে ডানহাতি পেসারের অফ স্টাম্পের বলে শট খেলতে গিয়ে উইকেটকিপার মুশফিকের গ্লাভসবন্দি হয়ে ফিরেছেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (১৫)। জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ তখন ৩ উইকেটে ৩০।  
৩ বলে ২ উইকেট সাকিবের: বোলিংয়ে শুরুটা দুর্দান্ত হয়েছে বাংলাদেশের। ওপেনিংয়ে বোলিংয়ে এসে প্রথম তিন বলের মধ্যে ২ উইকেট নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। বাঁহাতি স্পিনারের দ্বিতীয় বলটা ছিল ওয়াইড, আর সেই বলে মুশফিকুর রহিমের হাতে স্টাম্পড হয়েছেন সলোমন মিরে। তৃতীয় বলে মিড উইকেটে সাব্বির রহমানকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ক্রেইগ আরভিন। জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ তখন ২ উইকেটে ২! দুজনই ডাক মেরেছেন।


টস: বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
তিন পেসার নিয়ে বাংলাদেশ: মাশরাফির সঙ্গে দুই পেসার নিয়ে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। রুবেল ও মুস্তাফিজকে নিয়ে সাজানো হয়েছে বোলিং আক্রমণ। সাকিবের সঙ্গে বাঁহাতি স্পিনার হিসেবে নেওয়া হয়েছে সানজামুল ইসলামকে। একাদশে রয়েছেন সাত বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান।
তিন বছর পর ফিরলেন বিজয়: প্রায় তিন বছর পর ওয়ানডে খেলছেন এনামুল হক বিজয়। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান সর্বশেষ ওয়ানডে খেলেছিলেন ২০১৫ সালের মার্চে বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে। 
বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, সানজামুল ইসলাম, মাশরাফি বিন মুর্তজা, রুবেল হোসেন ও মুস্তাফিজুর রহমান।
জিম্বাবুয়ে দল: হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, সলোমন মিরে, ক্রেইগ আরভিন, ব্রেন্ডন টেলর, সিকান্দার রাজা, পিটার মুর, ম্যালকম ওয়ালার, গ্রায়েম ক্রেমার (অধিনায়ক), ব্লেসিং মুজারাবানি, টেন্ডাই চাতারা, কাইল জার্ভিস।


বাংলাদেশ ৩৯ : ২৮ জিম্বাবুয়ে: বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ে এখন পর্যন্ত ওয়ানডেতে মুখোমুখি হয়েছে ৬৭ বার। এতে বাংলাদেশের জয় ৩৯টিতে, জিম্বাবুয়ের ২৮টি। দুই দলের শেষ দশ মুখোমুখিতে ২টি জয় জিম্বাবুয়ের, বাকি ৮টিতেই জিতেছে বাংলাদেশ।
২০১৬ সালের ৯ অক্টোবরের পর: মিরপুর শের-ই-বাংলায় দীর্ঘদিন পর ওয়ানডে খেলছে বাংলাদেশ। ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবরের পর আবারো রঙিন পোশাকে মিরপুরে নামছে টাইগাররা। সবশেষ ম্যাচে বাংলাদেশ খেলেছিল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। মাশরাফির অলরাউন্ড নৈপুণ্যে জয়ও পেয়েছিল টাইগাররা।
আট বছর পর ত্রিদেশীয় সিরিজ বাংলাদেশে: আট বছর পর ত্রিদেশীয় সিরিজের আয়োজক বাংলাদেশ। ২০১০ সালে বাংলাদেশ সবশেষ ত্রিদেশীয় সিরিজ আয়োজন করেছিল শ্রীলঙ্কা ও ভারতকে নিয়ে। সেবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল শ্রীলঙ্কা। সাকিব আল হাসানের বাংলাদেশ দল দুটি করে ম্যাচ খেলেছিল ভারত ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। দুটি ম্যাচই হেরেছিল বাংলাদেশ। ফাইনালে ভারতকে ৪ উইকেটে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল শ্রীলঙ্কা।

বিস্তারিত

আমার প্রিয় বলে কেউ ছিল না : হাথুরুসিংহে

‘আমার প্রিয় বলে কেউ ছিল না। যখন কেউ পারফর্ম করে, তখনই সে আমার প্রিয়। আমি বিষয়টিকে এভাবেই দেখি। বাংলাদেশ দল মানে একজন-দুজন ক্রিকেটার নয়। আরো অনেক ভালো ক্রিকেটার আছে’- চিরচেনা মিরপুর শের-ই-বাংলার সংবাদ সম্মেলন কক্ষে কথাগুলো বলছিলেন বাংলাদেশের প্রাক্তন কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে।

বাংলাদেশে সাড়ে তিন বছর কাটানোর সময় সৌম্য সরকারকে বেশ ভালোভাবে সমর্থন করেছিলেন হাথুরুসিংহে। হাথুরুসিংহের অনুপ্রেরণায় তামিমের সঙ্গী হয়ে ওপেনিংয়ে আসেন সৌম্য। পরবর্তীতে দারুণ পারফরম্যান্সে নিজের জায়গায় প্রতিষ্ঠিত হন সৌম্য। কিন্তু ধারাবাহিকতার অভাবে তার জায়গা নড়বড়ে হয়ে যায়।
তারপরও সৌম্য সরকারকে বারবার সুযোগ দিয়ে যাচ্ছিলেন হাথুরুসিংহে। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও আস্থা রাখছিলেন। কিন্তু বাঁহাতি ওপেনার সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারছিলেন না। সৌম্য সরকার হাথুরুসিংহের ‘প্রিয় ছাত্র’ বলে দিনের পর দিন সুযোগ পেয়ে যাচ্ছিলেন বলে গুঞ্জন ছিল। সৌম্য সরকারও এক প্রশ্নের জবাবে বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছিলেন। আজ হাথুরুসিংহেও বিষয়টি স্পষ্ট করলেন।
হাথুরুসিংহে যাওয়ার পরপরই নিজের জায়গা হারিয়েছেন সৌম্য। নেই তাসকিন আহমেদও। সৌম্য সরকার কিংবা তাসকিন আহমেদ না থাকায় ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিচ্ছেন না হাথুরুসিংহে। তিনি বলেছেন, ‘পাঁচজন ক্রিকেটার না থাকলেও তারা পারফর্ম করতে পারে। বাংলাদেশ তাই একজন-দুজন ক্রিকেটারের দল নয়। দলে ওদের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার আছে। আমাদের জন্য সিরিজটি হবে চ্যালেঞ্জিং। বাংলাদেশ দেশের মাটিতে দারুণ লড়াকু। আমাদের জন্য সিরিজটি হবে চ্যালেঞ্জিং।’
তিনি আরো বলেছেন, ‘দেশের মাটিতে বাংলাদেশ খুব ভালো দল। গত আড়াই বছরে একটি ছাড়া আমরা আর সিরিজ হারিনি। ‘আমরা’ বলতে আমি বোঝাচ্ছি বাংলাদেশকে। ওরা ওয়ানডেতে খুব ভালো ক্রিকেট খেলছে। তারা নিজেদের ভূমিকা ও ম্যাচ পরিকল্পনা খুব ভালো করে জানে। সেদিক থেকে প্রতিপক্ষের জন্য এখানে খেলা অনেক চ্যালেঞ্জিং।’
বিস্তারিত

স্মরণীয় মূহুর্তের অপেক্ষায় সচিন-পুত্র অর্জুন

সিডনি: বাবা কিংবদন্তী ব্যাটসম্যান সচিন তেন্ডুলকর। সেই বাবার পদাঙ্ক অনুসরন করছে তার ছেলে অর্জুন তেন্ডুলকর। ডাউনআন্ডারে বাবা যা করেছিলেন তা করার একটা সুযোগ ছেলের সামনে। আগামী রবিবার ঐতিহাসিক সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড (এসসিজি)-তে খেলতে নামবে অর্জুন।

স্পিরিট অফ ক্রিকেট গ্লোবাল চ্যালেঞ্জ টি ২০ টুর্নামেন্টে ক্রিকেট ক্লাব অফ ইন্ডিয়া (সিসিআই)-এর হয়ে খেলছে বাঁহাতি পেসার অর্জুন।

অস্ট্রেলিয়ায় ইতিমধ্যেই নিজের প্রতিভার পরিচয় দিয়েছে অর্জুন। ব্র্যাডম্যান ওভালে গত বৃহস্পতিবার হং কং ক্রিকেট ক্লাবের বিরুদ্ধে অলরাউন্ড পারফরম্যান্স দিয়ে নজর কেড়েছে অর্জুন।
এবার এসসিজি।। এই মাঠে তার বাবা একদিন ও টেস্ট-উভয় ধরনের ক্রিকেটেই বেশ কয়েকটি স্মরণীয় ইনিংস খেলেছেন। ২০০৪-এর টেস্ট সিরিজে দুরন্ত ২৪১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন সচিন। আর ওই ইনিংসে একটিও কভার ড্রাইভ মারেননি তিনি।
অসি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, তাঁর দাপট দেখানো এসসিজি-তে ছেলের খেলা দেখতে হাজির থাকবেন সচিন।
২০১১-তে সচিন জানিয়েছিলেন, ভারতের বাইরে তাঁর প্রিয় মাঠ এসসিজি। এটা আমার কাছে একটা বিশেষ জায়গা। এমন কিছু মাঠ থাকে সেখানে পা রাখলেই মনে হয়, ভালো কিছু করা যাবে। এসসিজি এমনই একটি মাঠ। এখানে খেলাটা দারুন উপভোগ করি।
ক্যারিয়ান কিংবদন্তী ব্যাটসম্যান ব্রায়ান লারা এই মাঠে অপরাজিত ২৪১ রানের ইনিংসকে সচিনের কেরিয়ারের সেরা ইনিংস আখ্যা দিয়েছিলেন।
ওই ইনিংস এখনও প্রাক্তন অসি অধিনায়ক রিকি পন্টিংয়ের স্মৃতিতে অম্লান। স্টিভ ওয়ার বিদায়ী সিরিজে ওই ইনিংস খেলেছিলেন সচিন।
পন্টিং উইসডেনের তেন্ডুলকর সংক্রান্ত গ্রন্থে লিখেছিলেন যে, ওই সময় রান পাচ্ছিলেন না শচীন। এসসিজি-র ওই ইনিংসে একটাও কভার ড্রাইভ মারেননি সচিন। যে শৃঙ্খলা ও কৃতসংকল্পতা ছিল ওই ইনিংসে তা সত্যিই প্রশংসাযোগ্য।
২০১২-তে প্রথম বিদেশী ক্রিকেটার হিসেবে সাম্মানিক সদস্যপদ পেয়েছিলেন শচীন।
বিস্তারিত

জয়ে শুরু সাইফদের বিশ্বকাপ মিশন

ভিন্ন কন্ডিশনে যুবাদের নিজেদের মানিয়ে নেওয়ার চ্যালেঞ্জই ছিল সবথেকে বেশি। সেই চ্যালেঞ্জের শুরুতেই বাধা। প্রস্তুতি ম্যাচের পারফরম্যান্স তলানিতে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে হার আত্মবিশ্বাসে চিড় ধরায়। কিন্তু মূল মঞ্চে ঠিকই নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করল যুবরা।

ওভালের লিঙ্কন গ্রাউন্ডে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে পুচকে নামিবিয়াকে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছে ৮৭ রানের বড় ব্যবধানে। ২০ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে ৪ উইকেটে ১৯০ রান তুলে বাংলাদেশ। জবাবে নামিবিয়া ৬ উইকেটে ১০৩ রানের বেশি করতে পারেনি।
‘টি-টোয়েন্টি’ ম্যাচে বাংলাদেশের ব্যাটিং ছিল দুর্দান্ত। ওভারপ্রতি ৯.৫০ গড়ে রান তুলে সাইফ হাসান, মোহাম্মদ নাঈমরা। শেষ ৫ ওভারে রান রেট পৌঁছায় ১১ তে। অধিনায়ক সাইফ ৪৮ বলে ৩ চার ও ৫ ছক্কায় করেন ৮৪ রান। ইনিংসের শেষ বলে বেন সিঙ্কোগর বলে আউট হন সাইফ। এর আগে ইনিংসের শুরুতেই পিনাক ঘোষ আউট হন ২৬ রানে। আরেক ওপেনার মোহাম্মদ নাঈমকে নিয়ে ৯৭ রানের ‍জুটি গড়েন সাইফ। নাঈম ৪৩ বলে ৬০ রান করে আউট হলে জুটি বাঁধেন সাইফ ও আফিফ। ১৫ বলে ৪০ রান যোগ করেন তারা। যেখানে আফিফের অবদান ১১।

বাংলাদেশের বিশাল সংগ্রহের জবাব দিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ১২ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারায় নামিবিয়া। এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি তারা। যদি পঞ্চম উইকেটে ইবেন ভন উইক ও নিকল লফটি ইটন ৬৯ রানের জুটি গড়ে প্রতিরোধ গড়েন। কিন্তু তাদের প্রতিরোধ পরাজয়ের ব্যবধান কমায় মাত্র। 



বল হাতে বাংলাদেশের হয়ে ২টি করে উইকেট নেন কাজী অনিক ও হাসান মাহমুদ। ১টি উইকেট নেন তৌহিদ হৃদয়।
ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন বাংলাদেশের অধিনায়ক সাইফ হাসান।
একই মাঠে বাংলাদেশের পরবর্তী ম্যাচ কানাডার বিপক্ষে, ১৫ জানুয়ারি।
বিস্তারিত

পাকিস্তানের এ কেমন হার!

প্রত্যাশিতভাবেই ডুনেডিনের উইকেট ছিল স্লো। বল ব্যাটে আসছিল ধীর গতিতে। আর অসমান বাউন্স তো ছিলই। সব মিলিয়ে নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তানের মধ্যকার তৃতীয় ওয়ানডেতে লো স্কোরিং ম্যাচের প্রত্যাশায় ছিল ক্রিকেট প্রেমিরা।

কিন্তু এমন স্কোর হবে তা হয়তো কেউ কল্পনাও করেননি। স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৫৭ রান জমা করে। প্রথম দুই ম্যাচ হেরে আগেই পিছিয়ে ছিল চ্যাম্পিয়নস ট্রফির বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। আজ সিরিজ বাঁচানোর লড়াইয়ে ছিল সরফরাজ আহমেদের দল। কিন্তু দলের ব্যাটিং ছিল যাচ্ছেতাই।
৭৪ রানে গুটিয়ে যায় শোয়েব মালিক-বাবর আজমরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ওয়ানডে এটি পাকিস্তানের সর্বনিম্ন রান। লজ্জার রেকর্ড গড়ে পাকিস্তান ম্যাচ হেরেছে ১৮৩ রানে। 
সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে প্রথম পাঁচ ব্যাটসম্যানই ছুঁতে পারেননি দুই অঙ্ক। ট্রেন্ট বোল্টের গতির ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে যায় পাকিস্তানের ব্যাটিং অর্ডার। এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেননি সফরকারীরা। অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদের অপরাজিত ১৪ রানে আক্ষেপ বাড়ে পাকিস্তানের। শেষ দিকে মোহাম্মদ আমিরের ১৪ ও রুম্মান রাইসের ১৬ রানের সুবাদে সর্বনিম্ন ৪৩ রানের লজ্জা এড়ায় পাকিস্তান। বল হাতে ট্রেন্ট বোল্ট ১৭ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ধসিয়ে দেন। ক্যারিয়ারে তৃতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেটের স্বাদ পান এ ব্যাটসম্যান। এছাড়া ২টি করে উইকেট নেন কলিন মুনরো ও লকি ফার্গুসন।

ব্যাটসম্যানরা ভালো করতে না পারলেও পাকিস্তানের বোলাররা ছিল দুর্দান্ত। শুরু থেকেই নিয়ন্ত্রিত বোলিং করে আসছিল মোহাম্মদ আমির, হাসান আলী, ফাহীম আশরাফ ও রুম্মান রাইস।
তবে নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ছিলেন দায়িত্বশীল। ১০১ বলে ৭৩ রানের দারুণ ইনিংস খেলে কিউইদের ইনিংস একাই টেনে নেন। তাকে সঙ্গ দেন রস টেলর। ৫২ রান করেন তিনি। দুজনের ৭৪ রানের জুটির সুবাদে মিডল অর্ডারে লড়াইয়ের ভিত পায় নিউজিল্যান্ড। পরবর্তীতে টম লাথামের ৩৫ রানে আড়াইশ রানের সংগ্রহ পায় নিউজিল্যান্ড।
পাকিস্তানের হয়ে বল হাতে ৩টি করে উইকেট নেন রুম্মান রাইস ও হাসান আলী। ২টি উইকেট নেন লেগ স্পিনার শাদাব খান।
বিস্তারিত

  • সিলেটে মিডল্যান্ড ব্যাংক
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি ধোঁকাবাজি: আরসা
  • মাংস এবং উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত পানীয় ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়
  • ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?
  • প্রকাশ্যে চুমু, ‘দেশি গার্ল’-এর বিদেশি রোম্যান্স
  • নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি তিন খানের
  • ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!
  • আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব
  • নেতাকর্মীদের জেলে রেখে নির্বাচন হবে না: ফখরুল
  • সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ভিত্তিতেই গ্রেফতার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হচ্ছে না কাল
  • সিলেটের দক্ষিন সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৪
  • সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার
  • মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজন গ্রেফতার
  • যুবলীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সমাবেশে অর্থমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ
  • গোয়াইনঘাট থানার আসামী উপশহরে গ্রেফতার
  • হবিগঞ্জে জমির আইল কাটা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০
  • সিলেট জেলা বিএনপির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
  • কোম্পানীগঞ্জে পরীক্ষার্থীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন॥
  • দক্ষিণ সুরমায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার
  • মুসলমানরাই সবচেয়ে বেশি সন্ত্রাসের শিকার: বান কি মুন   ৫০৬২৬
  • মেয়র কালামের পায়ের নিচে ওসি আতাউর শার্ট খুলে লিনডাউন,তারপর জুতো পেটার প্রস্তাব   ১৪৬৯৫
  • ছলনাময়ী নারীদের চেনার উপায়   ১৩৭২০
  • জুমার নামাজ ছুটে গেলে কী করবেন?   ১১৬৩৭
  • ​চিনা কোম্পানিকে কাজ দিতে প্রতিমন্ত্রী তারানার স্বাক্ষর জাল   ৯৩৪৪
  • ঋণখেলাপি নই-হুন্ডি ব্যবসায়িও নই,সম্পত্তি নিলামের খবর অপপ্রচার-নাসির   ৮৩৩৭
  • জেনে নিন ছুলি দূর করতে কিছু ঘরোয়া উপায়   ৮৩০৬
  • ডিমের পর স্বয়ংসম্পূর্ণতার পথে সোনালি মুরগি   ৮২৩৮
  • মুসাফির কাকে বলে? মুসাফিরের রোযা ভঙ্গ করলে   ৮২৩০
  • গরুর দুধের অসাধারণ কয়েকটি গুণ   ৮০৩৩
  • খতমে ইউনুস নামে সামাজে চলে আসা জালিয়াতী   ৭১২৭
  • মুঘল সম্রাটদের দিনযাপন   ৬৬০৮
  • চিত্রনায়িকা সাহারার সেক্স ভিডিও ফাঁস!   ৬০০৯
  • হযরত শাহ্‌ জালাল ইয়েমেনী (রাঃ)-এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনী   ৫৯১২
  • শিশুর কানে আজান দেবে কে?   ৫৫৪২
  • চিকিৎসায় দ্রুত সরকারি সহযোগিতা চান খাদিজার বাবা মাসুক মিয়া   ৫৩৩৯
  • কামরূপ-কামাখ্যা : নারী শাসিত যাদুর ভূ-খন্ড   ৫৩০১
  • প্রশ্নব্যাংকে প্রশ্ন, স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাছাই হয়ে পরীক্ষা   ৫২৫৬
  • ফুলবাড়ির বশর চেীধুরী আজ ইন্তেকাল করেছেন   ৫২৫৪
  • ম,আ,মুক্তাদিরের ছেলে রাহাত লন্ডনে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে   ৫০৭৬
  • সাম্প্রতিক আরো খবর

  • ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!
  • আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব
  • জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে টিকে রইল শ্রীলঙ্কা
  • অ্যাশেজ হারের বদলা নিল ইংল্যান্ড
  • শ্রীলংকার দরকার ১৯৯ রান
  • সমালোচনার মুখে কোহলি
  • আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিংয়ের অনুমতি পেলেন জিম্বাবুয়ের ভিটোরি
  • ফাইনালের লক্ষ্যেই আজ মাঠে নামবে জিম্বাবুয়ে
  • শ্রীলঙ্কাকে বড় ব্যবধানে হারাল বাংলাদেশ
  • সেঞ্চুরি হল না তামিমের
  • আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার বিরাট কোহলি
  • ফুটবলকে বিদায় রোনাল্ডিনহোর
  • হাথুরুসিংহের পরিকল্পনা ভুলে গেছে বাংলাদেশ: মাশরাফি
  • বড় ধরনের বিপদ থেকে বাচঁলেন শোয়েব!
  • কোহলির জরিমানা
  • অভিযুক্ত স্টোকস
  • লাথি মেরে বরখাস্ত রেফারি
  • পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে রুবেলের ‘সেঞ্চুরির’ গৌরব
  • ৩৬ রানে অলআউট, সব রানই দিয়েছেন একজন বোলার!
  • খেলোয়াড়কে লাথি মেরে লাল কার্ড দেখালেন রেফারি!
  • বাংলাদেশের কাছে পাত্তাই পেল না জিম্বাবুয়ে
  • আমার প্রিয় বলে কেউ ছিল না : হাথুরুসিংহে
  • স্মরণীয় মূহুর্তের অপেক্ষায় সচিন-পুত্র অর্জুন
  • জয়ে শুরু সাইফদের বিশ্বকাপ মিশন
  • পাকিস্তানের এ কেমন হার!