সর্বশেষ খবর

   সিলেটে মিডল্যান্ড ব্যাংক    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি ধোঁকাবাজি: আরসা    মাংস এবং উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত পানীয় ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়    ইনস্টাগ্রামের নয়া ফিচার, দেখেছেন কি?    প্রকাশ্যে চুমু, ‘দেশি গার্ল’-এর বিদেশি রোম্যান্স    নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি তিন খানের    ১০৫ রানেই শেষ পাকিস্তানের ইনিংস!    আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব    নেতাকর্মীদের জেলে রেখে নির্বাচন হবে না: ফখরুল    সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ভিত্তিতেই গ্রেফতার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হচ্ছে না কাল    সিলেটের দক্ষিন সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৪    সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার    মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজন গ্রেফতার    যুবলীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সমাবেশে অর্থমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ    গোয়াইনঘাট থানার আসামী উপশহরে গ্রেফতার    হবিগঞ্জে জমির আইল কাটা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০    সিলেট জেলা বিএনপির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত    কোম্পানীগঞ্জে পরীক্ষার্থীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন॥    দক্ষিণ সুরমায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার


কৃষি

পেঁয়াজ বীজের সাদাফুলে ভরা মাঠ

সিলেট বার্তা, ২০১৭-০৩-২০ ১৯:২২:৪৯

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় চলতি মৌসুমে ব্যাপক পেঁয়াজ বীজের আবাদ করা হয়েছে। উপজেলার প্রায় প্রতিটি মাঠে এখন পেঁয়াজ বীজের সাদা ফুলের সমারোহ। অন্য ফসলের চেয়ে অধিক লাভজনক হওয়ায় এ অঞ্চলের চাষীরা দিন দিন পেঁয়াজ বীজের আবাদে ঝুঁকছে। চাষীরা এখন সারাদিন ব্যস্ত সময় পার করছেন  বীজ ক্ষেতের পরিচর্যায়।

চাষীরা জানায়, পেঁয়াজ বীজ একটি ঝুঁকিপূর্ণ ফসল। পেঁয়াজ বীজের করে যেমন লাভ বেশি হয়, তেমনি ঝুঁকিপূর্ণ। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে লাভ ভালো হয়। নিড়ানী, সার, কীটনাশকসহ, পেঁয়াজ বীজের পরিচর্যায় এখন ব্যস্ত ভাঙ্গা উপজেলার কৃষকরা। চলতি বছর কৃষকরা পেঁয়াজ বীজের ভালো ফলন আশা করছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানায়, চলতি বছর ভাঙ্গা উপজেলার রেকর্ড পরিমাণ পেঁয়াজ বীজের আবাদ করা হয়েছে। এ বছর পেঁয়াজ বীজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮০০ হেক্টর এবং আবাদ করা হয়েছে ৮২৫ হেক্টর। আবাদের লক্ষ্যমাত্রা রেকর্ড পরিমাণ ছাড়িয়ে গেছে।

পেঁয়াজ চাষীরা জানান, গত বছর পেঁয়াজের বীজ মণ প্রতি বিক্রি হয়েছে ৮০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। কালো সোনা খ্যাত এ বীজ চাষ করে এলাকায় গ্রামীণ কৃষি অর্থনৈতিক চিত্রই পাল্টে গেছে। প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় ৩/৪ মণ পেঁয়াজ বীজ উৎপন্ন হয়।

পেঁয়াজ বীজ বিক্রি করে এলাকার কৃষকরা প্রচুর মুনাফা অর্জনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছেন।

উপজেলার হিরালদী গ্রামের পেঁয়াজ বীজ আবাদকারী শাহাজাহান বলেন, তিনি ৫ মিঘা জমিতে পেঁয়াজের বীজ আবাদ করছেন। উপজেলার সাউতিকান্দা গ্রামের বিল্লাল মুন্সী বলেন গত বছর আমি ৩ বিঘা জমিতে পেঁয়াজের বীজ আবাদ করে সফলতা পেয়ে ছিলাম, চলতি বছর ৪ বিঘা জমিতে পিয়াজের বীজ আবাদ করে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছি। উপজেলার পৌরসদরের ভারইডাঙ্গা গ্রামের আদর্শ চাষী ইসহাক মোল্যা বলেন, তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ পেঁয়াজ বীজ আবাদ করছেন।  গত বছর ১০ বিঘা জমিতে পেঁয়াজ বীজ আবাদ করে সফলতা লাভ করায় চলতি বছরও প্রায় ৩৫ বিঘা জমিতে পেঁয়াজ বীজের আবাদ করছেন।

এ ব্যাপারে ভাঙ্গা উপজেলা কৃষি অফিসার মো. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, এ বছর ভাঙ্গা উপজেলায় ৮২৫ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ বীজের আবাদ করা হয়েছে। আমাদের এ বছর পেঁয়াজ বীজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮০০ হেক্টর জমি। আমরা কৃষকদের পেঁয়াজ বীজ আবাদের জন্য সেই ভাবে প্রশিক্ষণ দিয়ে গড়ে তুলেছি।

এ বার মূলত আবহাওয়া অনুকূলে থাকায়, সুষম মাত্রায় সার প্রয়োগ এবং কীটনাশক ও সারের সহজলভ্যতা থাকায় পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন ভালো হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Print Friendly and PDF

আপনার মতামত দিন