সর্বশেষ খবর

   হাথুরুসিংহের পরিকল্পনা ভুলে গেছে বাংলাদেশ: মাশরাফি    নতুন সম্পর্কে জোলি!    মাটির লেয়ারের ভিন্নতায় পদ্মা সেতুর ১৪ পাইলের ডিজাইনে বিলম্ব    ব্যাংকিং খাতে জবাবদিহিতার জন্য পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে : অর্থমন্ত্রী    অবকাঠামো উন্নয়নে ৬০ মিলিয়ন ডলার দেবে ওএফআইডি    বাংলাদেশ যথেষ্ট সক্ষমতা অর্জন করেছে : বিশ্বব্যাংক    ৩৭ হজ এজেন্সিকে নোটিশ    বাজেটে এমপিও অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নিবে: প্রধানমন্ত্রী    ভোলাগঞ্জ ও কালাইরাগে ৩৬টি ‘বোমা মেশিন’ ধ্বংস    ফেঞ্চুগঞ্জে ছাত্রলীগের ৫ নেতা বহিষ্কার    আম্মার মতো আমিও হারিয়ে যাব : রাইমা    ‘সূর্যসেন’ নতুন মঞ্চনাটক    আমি মৃত্যুকে ভয় করি না: আইভী    আমি একাই যথেষ্ট: শামীম ওসমান    সিরিয়ার কুর্দিদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাবেন এরদোয়ান    বড় ধরনের বিপদ থেকে বাচঁলেন শোয়েব!    কোহলির জরিমানা    নির্বাচন স্থগিত হওয়া ইসির চরম ব্যর্থতা: ফখরুল    ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন স্থগিত    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু ২ বছরের মধ্যে


জাতীয়

‘রাষ্ট্রের উন্নয়নে ধনীদের বেশি কর দিতে হবে’

সিলেট বার্তা, ২০১৮-০১-১৩ ১৪:৪৪:৫১

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেছেন, বাংলাদেশে কোটিপতিদের সংখ্যা বেড়ে গেছে। অনেকের মধ্যে রয়েছে অর্থ প্রদর্শনের চেষ্টা। এটা কমানো দরকার। এজন্য তাদের ওপর বেশি বেশি কর আরোপ করা উচিত।

শনিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে ‘বঙ্গবন্ধু উন্নয়ন দর্শন ও আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ সব কথা বলেন।
এইচ টি ইমাম বলেন, বাংলাদেশে কোটিপতিদের সংখ্যা বেড়ে গেছে। অনেকেরই পরিবারের প্রতিটি বাচ্চার জন্য আলাদা গাড়ি রয়েছে। অনেকটা অর্থ প্রদর্শনের চেষ্টা। তারা দেখাতে চায় ‘আমি খুব ধনী হয়ে গেছি’। এটা কমানো দরকার। এজন্য বেশি কর আরোপ করা উচিত। কেন কর দেবে না। এই রাষ্ট্র হয়েছে বলেই তো এত উন্নতি। কাজেই রাষ্ট্রের উন্নয়নে প্রত্যেককে তার সক্ষমতা অনুসারে কর দিতে হবে। আমাদের ট্যাক্স জিডিপি অনুপাত বাড়াতে হবে।
তিনি বলেন, ঢাকায় যানজট কমাতে স্কুল জোনিং বাড়াতে হবে। কেন এক অঞ্চলের শিক্ষার্থী অন্য অঞ্চলের স্কুলে যাবে। এর পাশাপাশি স্কুল বাস চালু করা জরুরি। এতে যেমন ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সখ্য বাড়বে তেমনি যানজট হ্রাস পাবে। কারণ অনেক ধনী পরিবারের প্রত্যেক বাচ্চার জন্য আলাদা গাড়ি থাকে যা একসঙ্গে বের হয়ে যানজট বাড়ায়।
ভূমি দস্যুদের কাছ থেকে দখল করা খাল ও জলাশয় পুনরুদ্ধার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভূমি দস্যুদের অত্যাচারে আমরা চরমভাবে নির্যাতিত। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের দায়িত্ব এগুলো গুরুত্ব সহকারে দেখা। দখল করা খাল ও জলাশয় পুনরুদ্ধার করতে হবে। নদী ভরাট চলবে না। ভূমি দস্যুসহ সব দস্যুদের কাছ থেকে সরকারি জমি, খাল ও জলাশয় উদ্ধার করতে হবে।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বঙ্গবন্ধুর দর্শন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কাজ নিয়ে আলোচনা করেন। আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন ঢাকার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন।
‘উন্নয়নের রোল মডেল শেখ হাসিনার বাংলাদেশ’ এই মূলমন্ত্রকে ধারণ করে গত বৃহস্পতিবার থেকে তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা-২০১৮ শুরু হয়েছে। আজ মেলার শেষ দিন।
গত ১৩ বছরে দেশের অগ্রগতি ও উন্নয়নের চিত্র জনগণের কাছে তুলে ধরতে তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলার আয়োজন করেছে ঢাকা জেলা প্রশাসন।
মেলার প্রায় প্রতিটি স্টলেই দর্শনার্থীদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। সবচেয়ে বেশি ভিড় দেখা গেছে সেনাবাহিনীর স্টলে। স্থির চিত্রের মাধ্যমে সেনাবাহিনী তাদের সামগ্রিক উন্নয়ন দেখাচ্ছে স্টলে আসা দর্শনার্থীদের। এ ছাড়া নৌ ও বিমানবাহিনীর স্টলেও ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। সেখানে তারা তাদের বিভিন্ন সাফল্যের চিত্র তুলে ধরেছেন।
উন্নয়ন মেলায় এ ছাড়াও সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, ঢাকা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয়, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, রেলপথ মন্ত্রণালয়, জনস্বাস্থ্য প্রেকৌশল অধিদপ্তর, ঢাকা জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর, ঢাকা জেলা সমবায় অফিস, কৃষি মন্ত্রণালয়, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর, ঢাকা জেলা কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ৯০টির বেশি স্টল  রয়েছে।
বিকেলে থাকছে সমাপনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। যেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শেয়ার করুন

Print Friendly and PDF

আপনার মতামত দিন