সর্বশেষ খবর

   ভোলাগঞ্জ ও কালাইরাগে ৩৬টি ‘বোমা মেশিন’ ধ্বংস    ফেঞ্চুগঞ্জে ছাত্রলীগের ৫ নেতা বহিষ্কার    আম্মার মতো আমিও হারিয়ে যাব : রাইমা    ‘সূর্যসেন’ নতুন মঞ্চনাটক    আমি মৃত্যুকে ভয় করি না: আইভী    আমি একাই যথেষ্ট: শামীম ওসমান    সিরিয়ার কুর্দিদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাবেন এরদোয়ান    বড় ধরনের বিপদ থেকে বাচঁলেন শোয়েব!    কোহলির জরিমানা    নির্বাচন স্থগিত হওয়া ইসির চরম ব্যর্থতা: ফখরুল    ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন স্থগিত    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু ২ বছরের মধ্যে    ব্যাংকে একই পরিবারের ৪ পরিচালক রেখে সংশোধন বিল পাস    আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল    মেয়র আইভী আহত    এবার আশ্বাসে অনশন ভাঙলেন মাদ্রাসা শিক্ষকরাও    প্রতিদিন তিনশ থেকে পাঁচশ রোহিঙ্গা ফিরে যাবেন নিজ দেশে    বাগদাদে জোড়া আত্মঘাতী বিস্ফোরণে নিহত ৩৮    গোয়াইনঘাটে অগ্নিকান্ডে ৬টি দোকানসহ একটি গুদাম ভূস্মিভুত    জাফলংয়ে ট্রাক চাপায় নারী শ্রমিক নিহত


খেলাধুলা

ডোপ পাপে নিষিদ্ধ ইউসুফ পাঠান

সিলেট বার্তা, ২০১৮-০১-০৯ ১৯:০১:৪৯

ডোপ টেস্টে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পারেননি ভারতীয় অলরাউন্ডার ইউসুফ পাঠান। এজন্য তাকে ৫ মাসের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই। তবে ঘটনাটি গত বছরের বলে নিষেধাজ্ঞা চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি শেষ হচ্ছে।

সম্প্রতি জাতীয় দলে ফেরার চেষ্টায় ছিলেন ইউসুফ পাঠান। এমন প্রচেষ্টার মধ্যে ডোপ পরীক্ষায় দোষী হলেন তিনি। ২০১২ সালের পর থেকে জাতীয় দলের বাইরে ইউসুফ। ভারতের জার্সিতে তিনি ৫৭টি ওয়ানডে ও ২২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন।
ইউসুফ পাঠানের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে এক বিবৃতিতে বিসিসিআই জানিয়েছে, ‘২০১৭ সালের ১৬ মার্চ ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতা চলার সময় বিসিসিআই’র অ্যান্টি-ডোপিং টেস্টিং প্রোগ্রামের কাছে ইউরিন স্যাম্পল দিয়েছিলেন মি. পাঠান। তাতে দেখা যায় টার্বুটালিনের (কাশির সিরাপ) অস্তিত্ব পাওয়া যায়। এটা ওষুধ  হলেও অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির নিষিদ্ধ ড্রাগের তালিকাভুক্ত। ২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবর মি. পাঠানকে দোষী সাব্যস্ত করেছিল কমিশন। বিসিসিআইয়ের অ্যান্টি-ডোপিং নিয়মের ২.১ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অভিযুক্ত হয়ে নিষেধাজ্ঞা পান তিনি।
বোর্ডের ডোপিং বিরোধী আইনের ২.১ ধারায় অভিযুক্ত হন ইউসুফ এবং লঙ্ঘনের বিষয়টি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তাঁকে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করা হয়। বোর্ডকে ইউসুফ জানান, ভুলবশত টার্বুটালিন সমন্বিত ওষুধ তাকে দেওয়া হয়েছিল।
বোর্ড জানিয়েছে, ইউসুফ যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন তা সন্তোষজনক। তিনি যে বস্তু গ্রহণ করেছিলেন তা শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য। তিনি পারফরম্যান্স বাড়ানোর জন্য ওই নিষিদ্ধ বস্তু সেবন করেননি।
ইউসুফের বক্তব্য বিবেচনা করে বোর্ড তাঁর ওপর পাঁচ মাসের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। গত বছরের ২৮ অক্টোবর বোর্ড ইউসুফকে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করেছিল। শেষপর্যন্ত ইউসুফের নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা গত বছরের ১৫ আগস্ট থেকে আরোপের সিদ্ধান্ত নেয়। এরফলে ওই নিষেধাজ্ঞা আগামী ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত বহাল থাকবে। এরফলে তাঁর আইপিএলে খেলার ক্ষেত্রে কোনও বাধা থাকবে না। আইপিএলের ১১ তম আসরের নিলাম ২৭ ও ২৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে।

শেয়ার করুন

Print Friendly and PDF

আপনার মতামত দিন